Deshe Bideshe

DESHEBIDESHE

Login
ইউনিজয়
ফনেটিক
English

গড় রেটিং: 0/5 (0 টি ভোট গৃহিত হয়েছে)

print
আপডেট : ০২-১৮-২০১৬

হিটলার সম্পর্কে অজানা কিছু তথ্য

সাবেরা খাতুন


হিটলার সম্পর্কে অজানা কিছু তথ্য

অ্যাডলফ হিটলার অস্ট্রিয়ায় জন্মগ্রহণকারী জার্মান রাজনীতিবিদ। নৃশংসতার প্রসঙ্গে খুব কম মানুষই আছেন হিটলারের সমপর্যায়ের। দ্বিতীয় বিশ্ব যুদ্ধের সময়ে অ্যাডলফ হিটলার ছয় লক্ষ ইহুদি মানুষের মৃত্যুর জন্য দায়ী। তারপর ও তিনি ইতিহাসের সবচেয়ে তথ্যসমৃদ্ধ মানুষ। বামপন্থী জার্মান সাপ্তাহিক “Die Zeit” এ একবার প্রকাশিত হয়, “হিটলারের প্রহেলিকা মানুষের বোধশক্তির বাইরে”। তিনি ছিলেন সাসপেন্স ও রহস্য ঘেরা একজন মানুষ। তিনি ছিলেন কঠোর পরিশ্রমী। তিনি রাতে মাত্র ৩-৪ ঘন্টা ঘুমাতেন। তিনি ছিলেন অত্যন্ত ভালো বক্তা। তিনি ছিলেন নাৎসি বাহিনীর দলনেতা। হিটলার সম্পর্কে এই তথ্যগুলো আমরা জানি। কিন্তু তার সম্পর্কে এখনো কিছু তথ্য অজানাই রয়ে গেছে। হিটলার সম্পর্কে কিছু অজানা তথ্য আজ আমরা জেনে নেই আসুন।

১। তিনি একের অধিক বার আর্ট স্কুল থেকে প্রত্যাখ্যাত হয়েছিলেন
আমরা জানি যে হিটলার শিল্পী হিসেবে ক্যারিয়ার গড়তে পারেন নি ফ্যাসিবাদের জন্য। কিন্তু আসলে তিনি দুইবার “Academy of fine arts Viyena” তে ভর্তির জন্য আবেদন করেছিলেন ১৯০৭ ও ১৯০৮ সালে এবং দ্বিতীয়বার তিনি খুবই কঠোর ভাবে প্রত্যাখ্যাত হয়েছিলেন যে ভর্তি পরীক্ষায় অংশগ্রহণেরই অনুমতি পাননি। কিন্তু এখনো শিল্প বোদ্ধারা মনে করেন যে, হিটলার ছিলেন একজন গুণী শিল্পী। তিনি একশো এর অধিক চিত্রকর্ম ও পোস্টকার্ড তৈরি করেছিলেন।

২। তিনি বক্তৃতার চর্চা করার সময় ছবি তুলে রাখতেন
তিনি ছিলেন একজন অনন্য বক্তা। তিনি নিজের ছবি তোলার প্রতি আবিষ্ট ছিলেন। তাই বক্তৃতার চর্চা করার সময় ফটোগ্রাফার হাইনরিখ হফমেনকে দিয়ে ছবি তুলিয়ে রাখতেন যাতে তিনি দেখতে পারেন যে তিনি কতোটা আতঙ্কিত করতে পারেন। পরবর্তীতে ছবিগুলো ধ্বংস করে ফেলার নির্দেশ দিয়েছিলেন তিনি কিন্তু হফমেন এগুলো সংরক্ষণ করেছিলেন বলে মানুষ সেগুলো দেখতে পেরেছে।

৩। হিটলার এক ইহুদি মেয়েকে ভালোবাসতেন
স্কুলে ষোল বছর বয়সে Stefanie Rabatsch নামের একটি ইহুদি মেয়ের সাথে হিটলারের পরিচয় হয়। হিটলারের সবচেয়ে কাছের বন্ধুর বরাত দিয়ে জানা যায় যে, কিশোর হিটলার সেই মেয়েটির গভীর প্রেমে পড়েন। কিন্তু স্টেফানি হিটলারের এই অনুভূতির বিষয়ে সাড়া না দিয়ে ঠান্ডাভাবে উপেক্ষা করেছিলেন। এতে হিটলার ভীষণ ভাবে ভেঙ্গে পড়েছিলেন এমনকি নিজেকে ও পুরো বিশ্বকে ধ্বংস করে দিতে চেয়েছিলেন।

৪। তার পারিবারিক চিকিৎসক ছিলেন একজন ইহুদি
এডওয়ার্ড ব্লচ ছিলেন একজন সম্মানিত ইহুদি চিকিৎসক। তিনি অস্ট্রিয়ার নিম্ন শ্রেণীর মানুষদের চিকিৎসা করতেন। হিটলার যখন তীব্র ফুসফুসের রোগে আক্রান্ত ছিলেন তখন এডওয়ার্ড ব্লচ প্রথম হিটলারকে দেখার জন্য তার গৃহে যান। ১৯০৭ সাল পর্যন্ত তিনি হিটলারের পারিবারিক ডাক্তার ছিলেন। হিটলারের মা যখন ব্রেস্ট ক্যান্সারে আক্রান্ত হন তখন ডাক্তার ব্লিচ হিটলারের মায়ের মৃত্যু পর্যন্ত চিকিৎসা করেন বিনা খরচে। এজন্য ১৮ বছর বয়সের হিটলার তাকে অনন্ত কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করে সম্মানিত করেন। অস্ট্রিয়া ও জার্মানির নাৎসি ইউনিয়ন থেকে বিশেষ প্রতিরক্ষা ব্যবস্থার মাধ্যমে সুরক্ষিত রেখে পুরস্কৃত করা হয়।

৫। তিনি ডিজনি ফ্যান ছিলেন
ডিজনিকে কে না পছন্দ করে? বিস্ময়কর বিষয় হচ্ছে হিটলারও কার্টুন ও অ্যানিমেটেড ফিল্ম পছন্দ করতেন। “Snow white and the Seven Dwarfs” তার সবচেয়ে প্রিয় ছবি ছিলো।
 
আরো কিছু তথ্য: হিটলার কখনোই কোন কনসেনট্রেশন ক্যাম্পে যাননি, পৃথিবীতে প্রথন ধূমপান বিরোধী ক্যাম্পেইন করেছিলেন তিনি, তিনি সবসময় তার মায়ের প্রতিকৃতি তার কাছে রাখতেন, ১৯৩৯ সালে নোবেল পুরষ্কারের জন্য মনোনীত হয়েছিলেন তিনি, তিনি কুকুর ভালোবাসতেন, তিনি ছিলেন কঠোর নিরামিষভোজী, তিনি ছিলেন কুসংস্কারাচ্ছন্ন একজন মানুষ।

জানা-অজানা

আরও সংবাদ

Bangla Newspaper, Bengali News Paper, Bangla News, Bangladesh News, Latest News of Bangladesh, All Bangla News, Bangladesh News 24, Bangladesh Online Newspaper
উপরে