Deshe Bideshe

DESHEBIDESHE

Login
ইউনিজয়
ফনেটিক
English

গড় রেটিং: 0/5 (0 টি ভোট গৃহিত হয়েছে)

print

আপডেট : ০২-১৭-২০১৬

চাহিদা ‘না পাওয়ায়’ কর্মী পাঠানো যায়নি মালয়েশিয়ায়

চাহিদা ‘না পাওয়ায়’ কর্মী পাঠানো যায়নি মালয়েশিয়ায়

ঢাকা, ১৭ ফেব্রুয়ারী- মালয়েশিয়ার কাছ থেকে আশানুরূপ চাহিদা না পাওয়ায় সরকারি পর্যায়ে (জিটুজি) সে দেশে প্রত্যাশিত হারে কর্মী পাঠানো সম্ভব হয়নি বলে জানিয়েছেন প্রবাসী কল্যাণ ও বৈদেশিক কর্মসংস্থানমন্ত্রী নুরুল ইসলাম বিএসসি।

তবে বেসরকারি খাতকে যুক্ত করে নতুন পদ্ধতিতে আগামী তিন বছরে ১৫ লাখ কর্মী পাঠানো সম্ভব হবে বলে আশা প্রকাশ করেছেন তিনি।

বেশ কয়েক বছর বন্ধ থাকার পর মালয়েশিয়ায় সরকারি পর্যায়ে কর্মী পাঠানোর উদ্যোগ নেওয়া হলেও তাতে সাড়া মেলেনি।  

এ নিয়ে বুধবার সংসদে আওয়ামী লীগের মোয়াজ্জেম হোসেন রতনের প্রশ্নের জবাবে মন্ত্রী বলেন, “কর্মী পাঠানোর বিষয়ে নিয়োগকর্তাদের কাছ থেকে মালয়েশিয়া সরকারের মাধ্যমে আশানুরূপ চাহিদা পাওয়া যায়নি। যে কারণে সেখানে প্রত্যাশিত হারে কর্মী পাঠানো সম্ভব হয়নি।”

গত অক্টোবরে বেসরকারি রিক্রুটিং এজেন্সিগুলোকে সম্পৃক্ত করে ‘জি টু জি প্লাস’ প্রক্রিয়ায় কর্মী পাঠাতে মতৈক্য হয়েছে জানিয়ে তিনি বলেন, “গত ৮ ফেব্রুয়ারি এ সংক্রান্ত খসড়া সমঝোতা স্মারক মন্ত্রিসভায় অনুমোদন হয়েছে। আজ দুই দেশের মধ্যে সমঝোতা স্মারক সই হবে বলে আশা করা যায়। সেটি হলে আগামী ৩ বছরে ১৫ লাখ কর্মী পাঠানো সম্ভব হবে।”

সরকারি দলের এম আবদুল লতিফের প্রশ্নের জবাবে প্রবাসী কল্যাণমন্ত্রী বলেন, বিএনপি-জামায়াত জোট সরকারের আমলে ৬১টি দেশে কর্মী পাঠানো হত। এখন পাঠানো হচ্ছে ১৬১টি দেশে।

২০১৩ সালে ৪ লাখ ৯ হাজার, ২০১৪ সালে ৪ লাখ ২৫ হাজার এবং ২০১৫ সালে ৫ লাখ ৫৫ হাজার কর্মী পাঠানো হয়েছে বলে সংসদে জানানো হয়।

বাণিজ্যমন্ত্রী তোফায়েল আহমেদ জানান, বাংলাদেশ ভারত থেকে ৫ হাজার ৮১১ মিলিয়ন মার্কিন ডলারের পণ্য আমদানি করে। বিপরীতে রপ্তানি করে ৫২৭ মিলিয়ন ডলারের পণ্য। দেশটির সঙ্গে বাণিজ্য ঘাটতির পরিমাণ ৫ হাজার ২৮৪ মিলিয়ন ডলার।

ভুটান ও মিয়ানমারের সঙ্গে বাণিজ্য ঘাটতির পরিমাণ যথাক্রমে ২৩ দশমিক ৭৮ মিলিয়ন ও ৫ দশমিক ২০ মিলিয়ন ডলার।

তবে বাংলাদেশ নেপালে আমদানির চেয়ে রপ্তানি বেশি করে থাকে। দেশটি থেকে আমদানি করা হয় ১১.৫০ ডলারের পণ্য এবং রপ্তানি হয় ২৫.০৫ মিলিয়ন ডলারের পণ্য।

বাংলাদেশ, ভারত, চীন ও মিয়ানমারকে গঠিত আঞ্চলিক বাণিজ্য জোট এই ঘাটতি কমিয়ে আনার ক্ষেত্রে ভূমিকা রাখবে বলে আশা প্রকাশ করেন বাণিজ্যমন্ত্রী।

জাতীয় পার্টির এ কে এম মাইদুল ইসলামের প্রশ্নের জবাবে মন্ত্রী জানান, চলতি অর্থবছরের প্রথম ছয় মাসে ভারত, চীন ও অন্যান্য দেশ থেকে ২২৪ কোটি টাকার জুতা আমদানি করা হয়েছে।

২০১৪-১৫ অর্থবছরে বাংলাদেশ ১৯৬টি ধরনের পণ্য রপ্তানি করে বলে সংসদে জানানো হয়। এ থেকে আয় হয় ৩১ হাজার ২০৮ মিলিয়ন ডলার। চলতি অর্থবছরের প্রথম ছয় মাসে আয় হয়েছে ১৬ হাজার ৮৪ মিলিয়ন ডলার।

গত অর্থবছরে বাংলাদেশ ৭.৬৬ মিলিয়ন ডলারের কাঁকড়া বিদেশে রপ্তানি করেছে বলে বাণিজ্যমন্ত্রী জানান।

খাদ্যমন্ত্রী কামরুল ইসলাম সংসদে জানান, ২০১৪-১৫ অর্থবছরে দেশে চাল ও গমের চাহিদা ছিল ২৯৫ লাখ টন। বিপরীতে উৎপাদন হয়েছে ৩৬০ লাখ টন।

জাতীয় পার্টির নুরুল ইসলাম ওমরের প্রশ্নের জবাবে শ্রম প্রতিমন্ত্রী মুজিবুল হক বলেন, পরিসংখ্যান ব্যুরোর জরিপ অনুযায়ী বাংলাদেশে বেকার জনগোষ্ঠী ১৬ লাখ।

জাতীয়

আরও সংবাদ

Bangla Newspaper, Bengali News Paper, Bangla News, Bangladesh News, Latest News of Bangladesh, All Bangla News, Bangladesh News 24, Bangladesh Online Newspaper
উপরে