Deshe Bideshe

DESHEBIDESHE

Login
ইউনিজয়
ফনেটিক
English

গড় রেটিং: 0/5 (0 টি ভোট গৃহিত হয়েছে)

print
আপডেট : ০২-১৫-২০১৬

দিল্লির রাস্তা হলো জীবন্ত ক্যানভাস

দিল্লির রাস্তা হলো জীবন্ত ক্যানভাস

নয়া দিল্লী, ১৫ ফেব্রুয়ারী- ভারতের রাজধানী দিল্লির শহুরের রাস্তাগুলোর দুপাশ পরিণত হয়েছে চিত্রশিল্পীদের ছবি আঁকার জীবন্ত ক্যানভাসে। সম্প্রতি দিল্লিতে সেন্টআর্ট ফাউন্ডেশনের উদ্যেগে আয়োজন করা হলো ব্যাতিক্রমধর্মী আরবান স্ট্রিট আর্ট ফেস্টিভ্যাল। শিল্পীদের চিত্রকলা প্রদর্শনের জন্য দেয়া হয়েছিল বিচিত্র সব ক্যানভাস। আর সেই ক্যানভাসগুলো হলো শহরের বড় বড় দালান, রাস্তা এবং ফুটপাত। এই উৎসবে স্ট্রিট আর্টিস্টদের পাশাপাশি আন্তর্জাতিক খ্যাতিসম্পন্ন শিল্পীরাও অংশগ্রহন করেছিলেন।


দেয়ালচিত্রগুলোতে আঁকা হয়েছিল অসাধারণ সব চিত্রশিল্প, যা সহজেই দিল্লি বাসিন্দাদের নজর কারে। তবে বেশিরভাগ দেয়াল চিত্রগুলোতে তুলে ধরা হয়েছিল সামাজিক ও রাজনৈতিক বার্তা। যা দেখে দিল্লিবাসীরা রীতিমতো হতভম্ব। একজন জার্মান চিত্রশিল্পী সুদূর জার্মানী থেকে এসেছিলেন দিল্লির রাস্তায় ছবি আঁকার জন্য। তিনি তার ক্যানভাস হিসেবে বেছে নিয়েছিলেন দিল্লির পুলিশ সদরদপ্তরকে। সেখানে তিনি এঁকেছিলেন ভারতের অবিসংবাদিত নেতা মহাত্মা গান্ধীর ছবি।


তার আর একটি দেয়ালচিত্র ছিল তুঘলাখাবাদের একটি সিমেন্ট কারখানার বিপরীতে একটি ময়লা ফেলার স্থান। ছবি আঁকা প্রসঙ্গে তিনি বলেন, ‘আমি পাঁচদিন ধরে দেয়ালচিত্রের মাধ্যমে ভারতের সাধারণ মানুষের চিত্র ফুটিয়ে তোলার চেষ্টা করেছি। আমি দেখেছি অনেক টোকাই ময়লার স্তূপ থেকে ময়লা সংগ্রহ করতে। আমার আঁকা সব ছবি আমি তাদের উৎসর্গ করছি।’


ইউরোপে আগে থেকে স্ট্রিট আর্ট বেশ জনপ্রিয়, তবে ভারতে এই আর্ট মাধ্যমটি সমসাময়িক। আর দেশটির জনসাধারণের মাঝেও স্ট্রিট আর্ট বেশ ইতিবাচক সাড়া ফেলছে। লোধি আর্ট জেলায় এবারের স্ট্রিট আর্টের প্রতিপাদ্য বিষয় হলো মারকু। ভারতের জনস্বাস্থ্য অধিদপ্তরের নেয়া সাচ্চা ভারত মিশনের (পরিষ্কার পরিচ্ছন্ন ভারত) সঙ্গে যৌথভাবে কাজ করছে সেন্টআর্ট ফাউন্ডেশন। উল্লেখ্য ভারতের প্রথম পাবলিক আর্ট জেলা হিসেবে দিল্লির লোধি কলোনিকে সাচ্চা ভারত মিশনের নমুনা হিসেবে নির্বাচন কারা হয়েছে।


এর আগেও আইল্যান্ড কন্টেইনার ডিপো নামে এশিয়ার সবচেয়ে বড় চিত্রপ্রদর্শনীর আয়োজন করা হয়েছিল। সেখানে প্রায় বিশ হাজারেরও বেশি কর্মঘন্টা ধরে ২৪ জন আর্টিস্ট ১০০ টি কন্টেইনারের মধ্যে তাদের চিত্রকলা প্রদর্শন করেছিল। আর এই চিত্রকলা প্রদর্শনে তাদের ব্যয় হয়েছিল একহাজার লিটার পরিমাণ রং। প্রদর্শনীর পরে আবার কন্টেইনারগুলোকে মাল পরিবহনের জন্য ছেড়ে দেয়া হয়।
অংশগ্রহনকারীরা এই উদ্যেগকে অসাধারণ এবং এর ফলে তাদের নতুন এক অভিজ্ঞতা হয়েছে বলে মনে করেন। আর সবচেয়ে মজার বিষয় হলো কন্টেইনারগুলো যেখানেই পণ্য পরিবহন করতে যেতো সেখানেই সেগুলো দেখার জন্য মানুষের আগ্রহের কমতি থাকতো না।

দক্ষিণ এশিয়া

আরও সংবাদ

Bangla Newspaper, Bengali News Paper, Bangla News, Bangladesh News, Latest News of Bangladesh, All Bangla News, Bangladesh News 24, Bangladesh Online Newspaper
উপরে