Deshe Bideshe

DESHEBIDESHE

Login
ইউনিজয়
ফনেটিক
English

গড় রেটিং: 2.7/5 (6 টি ভোট গৃহিত হয়েছে)

print

আপডেট : ০২-১২-২০১৬

কক্সবাজারে রোহিঙ্গা নিবন্ধন কার্যক্রম শুরু হচ্ছে আজ

এম.শাহজাহান চৌধুরী শাহীন


কক্সবাজারে রোহিঙ্গা নিবন্ধন কার্যক্রম শুরু হচ্ছে আজ

কক্সবাজার, ১২ ফেব্রুয়ারী- কক্সবাজার জেলায় মাঠ পর্যায়ে রোহিঙ্গা নিবন্ধন কার্যক্রম আজ শুক্রবার থেকে  শুরু হচ্ছে। এরপর আগামী মার্চের শেষ সপ্তাহে চূড়ান্ত সনাক্তকরণ কাজ শুরু হবে। এসব তথ্য জানিয়েছেন জেলা পরিসংখ্যান কার্যালয়ের উপ-পরিচালক মোহাম্মদ ওয়াহিদুর রহমান।

দেশে অবসস্থানরত অনিবন্ধিত রোহিঙ্গাদের (মিয়ানমারের নাগরিক) সংখ্যা নির্ণয় করতে প্রথমবারের মতো শুমারি করার উদ্যোগ নিয়েছে সরকার।
সুত্র জানিয়েছেন, কক্সবাজারের উখিয়া উপজেলার কুতুপালং শরনার্থী শিবির ও টেকনাফ উপজেলার নয়াপাড়া শরনার্থী শিবিরে বর্তমানে প্রায় ৩৩ হাজার নিবন্ধিত রোহিঙ্গা অবস্থান করছে। এছাড়াও দেশের বিভিন্ন স্থানে ছড়িয়ে-ছিটিয়ে বসবাস করছে অবৈধভাবে অনুপ্রবেশকারীর রোহিঙ্গার সংখ্যা ৫ লাখেও বেশি। 
কক্সবাজার জেলা পরিসংখ্যান কার্যালয় সূত্র জানায়, ‘বাংলাদেশে অবস্থানরত অনিবন্ধিত মিয়ানমার নাগরিক শুমারি ২০১৬’ শীর্ষক প্রকল্পটি পরিচালনা করছে বাংলাদেশ পরিসংখ্যান ব্যুরো (বিবিএস)। প্রকল্পের মূল উদ্দেশ্য হলো, বাংলাদেশে অবস্থানরত রোহিঙ্গাদের ছবি ও সাধারণ তথ্যসংবলিত একটি তথ্যসম্ভার প্রণয়ন করা। তাদের বর্তমান অবস্থান এবং বাংলাদেশে অনুপ্রবেশের আগে মিয়ানমারে মূল বাসস্থানের ঠিকানা প্রণয়ন। এ ছাড়া অনুপ্রবেশের অন্তর্নিহিত কারণ চিহ্নিত করা এবং রোহিঙ্গাদের আর্থসামাজিক ও জনমিতি-সংক্রান্ত পরিসংখ্যান প্রণয়ন।

প্রকল্পটির জেলা শুমারি সমন্বয়কারীর দায়িত্ব পালন করছেন জেলা পরিসংখ্যান কার্যালয়ের উপ-পরিচালক মোহাম্মদ ওয়াহিদুর রহমান।

তিনি বলেন, ‘খানা তালিকার কাজ করতে কক্সবাজার জেলাকে ৪৯টি জোনে ভাগ করা হয়েছে। ১১০ জন সুপারভাইজার ও ১ হাজার ৯০ জন গণনাকারী তালিকা করবেন। আজ শুক্রবার থেকে ১৭ ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত খানা তালিকার কাজ চলবে।’

পরিসংখ্যান কর্মকর্তা আরো বলেন,‘শুধু কক্সবাজার নয়, শুমারির আওতায় চট্টগ্রাম, বান্দরবান, রাঙামাটি, খাগড়াছড়ি ও পটুয়াখালী জেলায় অবস্থানরত রোহিঙ্গাদেরও গণনা করা হবে। এই শুমারির মাধ্যমে রোহিঙ্গারা মিয়ানমারের কোন অঞ্চল থেকে এসেছে, কেন এসেছে, বাংলাদেশে তাদের জীবিকা নির্বাহ হয় কীভাবে, পরিবারের সদস্য কত এইসব তথ্য সংগ্রহ করা হবে। ফলে দেশের অন্যান্য স্থানে ছড়িয়ে-ছিটিয়ে থাকা রোহিঙ্গাদের আত্মীয়-স্বজনদের খুঁজে বের করা সহজ হবে।’ 

বাস্তবায়নাধীন ‘বাংলাদেশে অবস্থানরত অনিবন্ধিত মিয়ানমার নাগরিক শুমারি ২০১৬’ প্রকল্পের প্রস্তাবনায় বলা হয়েছে,সঠিক কোনো হিসাব না থাকলেও মিয়ানমারের ৩ থেকে ৫ লাখ নাগরিক অবৈধভাবে বাংলাদেশে প্রবেশ করেছে।

কক্সবাজার

আরও সংবাদ

Bangla Newspaper, Bengali News Paper, Bangla News, Bangladesh News, Latest News of Bangladesh, All Bangla News, Bangladesh News 24, Bangladesh Online Newspaper
উপরে