Deshe Bideshe

DESHEBIDESHE

Login
ইউনিজয়
ফনেটিক
English

গড় রেটিং: 0/5 (0 টি ভোট গৃহিত হয়েছে)

print

আপডেট : ০২-০৭-২০১৬

বিলবোর্ডের সঙ্গে নেমে যাচ্ছে সিসি ক্যামেরাও

রমেন দাশগুপ্ত


বিলবোর্ডের সঙ্গে নেমে যাচ্ছে সিসি ক্যামেরাও

চট্টগ্রাম, ০৭ ফেব্রুয়ারী- অপরাধ ও যানবাহন নিয়ন্ত্রণের জন্য বন্দরনগরীর স্পর্শকাতর স্থানে নগর পুলিশের পক্ষ থেকে লাগানো ক্লোজ সার্কিট ক্যামেরাগুলো নামিয়ে ফেলা হচ্ছে।  বিলবোর্ডের খুঁটির সঙ্গে ক্যামেরাগুলো লাগানো হয়েছিল।  নগরীর চলমান উচ্ছেদ অভিযানে বিলবোর্ডের সঙ্গে নামিয়ে ফেলা হচ্ছে ক্লোজ সার্কিট ক্যামেরাগুলোও। 

ক্লোজ সার্কিট ক্যামেরায় ধারণ করা দৃশ্য দেখে প্রয়োজনীয় নির্দেশনা দেয়ার জন্য চট্টগ্রাম মহানগর পুলিশ (সিএমপি) কেন্দ্রীয়ভাবে একটি নিয়ন্ত্রণ কক্ষ খুলেছিল। ক্যামেরাগুলো নেমে যাওয়ায় সেই মনিটরিং পদ্ধতি কার্যত ভেঙ্গে পড়েছে। 

নগর পুলিশের দেয়া তথ্যমতে, নগরীর সাতটি প্রবেশপথসহ ২৬টি স্পর্শকাতর পয়েন্টে নগর পুলিশের পক্ষ থেকে ৯৯টি ক্লোজ সার্কিট ক্যামেরা লাগানো হয়েছিল।  শনিবার (৬ ফেব্রুয়ারি) পর্যন্ত ৫৭টি ক্যামেরা বিলবোর্ডের সঙ্গে নামিয়ে ফেলা হয়েছে। 

বর্তমানে ক্লোজ সার্কিট ক্যামেরা সচল আছে ৪২টি।  সেগুলোর অধিকাংশও বিলবোর্ডের খুঁটির সঙ্গে লাগানো।  কয়েকদিনের মধ্যে সেগুলোও নামিয়ে ফেলা হবে বলে নগর পুলিশকে জানিয়েছে সিটি করপোরেশন। 

২০১৪ সালের জুনে নগর গোয়েন্দা পুলিশের অতিরিক্ত উপ কমিশনার বাবুল আক্তারের পরিকল্পনা ও তত্ত্বাবধানে ক্লোজ সার্কিট ক্যামেরাগুলো স্থাপন করা হয়েছিল।  

বাবুল আক্তার বলেন, ক্লোজ সার্কিট ক্যামেরাগুলো বিলবোর্ডের সঙ্গে নেমে যাচ্ছে।  সেগুলো নামিয়ে ফেলার পর সংশ্লিষ্ট থানায় জমা রাখা হচ্ছে।  ক্যামেরাগুলো আবার লাগানো হবে কিনা এ সংক্রান্ত কোন সিদ্ধান্ত এখনও হয়নি।  তবে ক্যামেরাগুলো থাকলে আমাদের অপরাধ ও যানজট নিয়ন্ত্রণ কার্যক্রমে সুবিধা হয়। 

এ প্রসঙ্গে জানতে চাইলে চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশনের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা কাজী মো. শফিউল আলম বলেন, বিলবোর্ড উচ্ছেদের সময় আমাদের সঙ্গে পুলিশ অফিসাররাও থাকেন।  সমন্বয় করেই কাজটা হচ্ছে।  ক্যামেরাগুলো নামিয়ে ফেলা হচ্ছে, এটা ঠিক।  সেগুলো আবার করপোরেশনের পক্ষ থেকে লাগিয়ে দেয়া হবে, এই প্রতিশ্রুতি আমি দিতে পারব না।  তবে পুলিশের সঙ্গে সমন্বয় করেই যে কোন একটা সিদ্ধান্ত নেব। 

সিটি করপোরেশন এবং জেলা প্রশাসন যৌথভাবে গত ১৫ জানুয়ারি থেকে চট্টগ্রাম নগরীতে বিলবোর্ড উচ্ছেদ অভিযান শুরু করেছে।  অভিযানে সব ধরনের বিলবোর্ড খুঁটিসহ নামিয়ে ফেলা হচ্ছে। 

নগর পুলিশ সূত্রে জানা গেছে, নগরীর সিটি গেইট, একে খান মোড়, অলংকার মোড়, জিইসি, মুরাদপুর, দুই নম্বর গেইট, বহদ্দারহাট, অক্সিজেন মোড়, সাগরিকা, সিইপিজেড মোড়, রাহাত্তারপুল, শাহ আমানত সেতু, নিউমার্কেট, কাজির দেউড়ি মোড়সহ ২৬টি পয়েন্টের প্রত্যেকটিতে চার-পাঁচটি করে ক্যামেরা লাগানো হয়েছিল।  মোট তিন ধরনের ক্যামেরা লাগানো হয়েছিল।  এর মধ্যে আছে পিটিজেড ক্যামেরা যেটা গাড়ির নম্বর সংরক্ষণ করে।  ফেস ডিটেক্টর আছে যেগুলো মিটিং-মিছিল, সমাবেশসহ জনসমাগমের চিত্র নিঁখুতভাবে ধারণ করে।  এছাড়া ১২০০ টিবিএল ক্যামেরা আছে যেগুলো ওভারঅল ভিউ ধারণ করে। 

ক্যামেরা স্থাপনের কাজটি করেছিল থ্রি এক্সপ্লোরার নামে একটি সংস্থা।  আর স্পট থেকে স্পটে ক্যামেরায় এবং নিয়ন্ত্রণ কক্ষের সঙ্গে ফাইবার অপটিক সংযোগের কাজ করেছিল বেসরকারি ক্যাবল ‍অপারেটর প্রতিষ্ঠান চিটাগং কমিউনিকেশনস লিমিটেড (সিসিএল)। 

ক্যামেরা ও বৈদ্যুতিক তার কেনা, সার্ভিসিং এবং স্থাপনে সিএমপির নিজস্ব তহবিল থেকে প্রায় ১৪ লাখ টাকা খরচ হয়েছিল বলে জানিয়েছে সংশ্লিষ্ট সূত্র।  

সূত্রমতে, বিলবোর্ড উচ্ছেদের সময় ক্যামেরা অক্ষত থাকলেও অধিকাংশ বৈদ্যুতিক তার ছিঁড়ে নষ্ট হয়ে যাচ্ছে।  নতুনভাবে আবারও ক্যামেরা লাগাতে হলে সিএমপিকে আবারও বড় অংকের অর্থের যোগান দিতে হবে। 

নগর পুলিশের সহকারি কমিশনার (বিশেষ শাখা) কাজেমুর রশিদ বলেন, প্রথমদিকে বিলবোর্ড উচ্ছেদের সময় ক্যামেরা নামিয়ে ফেলার বিষয়ে আমাদের কিছুই জানানো হয়নি।  এরপর আমরা করপোরেশনের সঙ্গে যোগাযোগ করেছি।  ইদানিং আমাদের জানানো হচ্ছে।  আমরা সংশ্লিষ্ট থানাকে সেগুলো নিজেদের হেফাজতে রেখে আবার সুবিধাজনক স্থানে লাগানোর পরামর্শ দিয়েছি।  

ক্লোজ সার্কিট ক্যামেরাগুলো স্থাপনের পর নগরীতে অপরাধের রহস্য উদঘাটন এবং অপরাধীদের শনাক্তের ক্ষেত্রে দৃশ্যমান অগ্রগতি হয়েছিল।  এছাড়া যানজটের দৃশ্য দেখে নগর পুলিশের ট্রাফিক বিভাগের জেষ্ঠ্য কর্মকর্তারা মাঠ পর্যায়ের সদস্যদের বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ দিকনির্দেশনা দিতেন।  এতে যানজট পরিস্থিতিরও খানিকটা উন্নতি হয়েছিল।  

সিএমপির স্থাপন করা ক্লোজ সার্কিট ক্যামেরাগুলো নেমে গেলেও পুলিশ কমিশনারের আহ্বানে ব্যক্তি ও বেসরকারি প্রতিষ্ঠানের স্থাপন করা ক্যামেরাগুলো আছে।  সেগুলো অপরাধ ও যানজট নিয়ন্ত্রণে সহায়তা করছে বলে জানিয়েছেন নগর পুলিশের কর্মকর্তারা।

Bangla Newspaper, Bengali News Paper, Bangla News, Bangladesh News, Latest News of Bangladesh, All Bangla News, Bangladesh News 24, Bangladesh Online Newspaper
উপরে