Deshe Bideshe

DESHEBIDESHE

Login
ইউনিজয়
ফনেটিক
English

গড় রেটিং: 0/5 (0 টি ভোট গৃহিত হয়েছে)

print
আপডেট : ০২-০২-২০১৬

বয়স লুকিয়েছেন নেপালী অধিনায়ক?

বয়স লুকিয়েছেন নেপালী অধিনায়ক?

ঢাকা, ০২ ফেরুয়ারী- সোমবার প্রথমবারের মত চলতি অনূর্ধ্ব ১৯ বিশ্বকাপে নেপালের কোন ম্যাচ দেখা গেল টেলিভিশনে। আর সেই ম্যাচটা ভারতের বিপক্ষে বলেই, ভারত জুড়েই ম্যাচটিকে ঘিরে আগ্রহ ছিল। আর ম্যাচ শুরু হওয়ার সাথে সাথেই মুম্বাইয়ের ক্রিকেট মহলে সোরগোল পড়ে গেল।

ফোন লাইন গুলো ব্যস্ত হয়ে উঠলো। সবার মুখে একটাই প্রশ্ন – এই রাজু রিজালই কি এক যুগ আগে যে মুম্বাইয়ের অনূর্ধ্ব ১৫ দলকে নেতৃত্ব দেয়া সেই রাজু রামচন্দ্র শর্মা? রাজু রিজাল, বাংলাদেশে চলমান যুব বিশ্বকাপ ক্রিকেটে তিনি এসেছে নেপাল অনূর্ধ্ব ১৯ দলের অধিনায়ক হয়ে।

আর গোলমালটা এখানেই বাঁধে। বছর দশেক আগে অনূর্ধ্ব ১৫ দলের নেতৃত্ব দেয়া ক্রিকেটারের বয়স তো এখন ২৪-২৫ হয়ে যাওয়া উচিৎ। তাহলে তিনি কি করে অনূর্ধ্ব ১৯ দলে খেলেন?

তাহলে কি বয়স লুকিয়েছেন রাজু? এই প্রশ্নটা আরও বড় হয়ে যায়, যখন মুম্বাইয়ের দুই ক্রিকেটার জাভেদ খান ও কৌস্তব পাওয়ার তাদের অনূর্ধ্ব ১৫ দলের সাবেক অধিনায়ককে টেলিভিশনের পর্দায় দেখে চিনে ফেলেন। তারা নিজেরাও ধাঁধায় পড়ে যান, অবিকল সেই চেহারা, অবিকল সেই ব্যাটিং স্টাইল দেখে।

ক্ষেপে গিয়ে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে পাওয়ার এই অভিযোগ এনে একটি স্ট্যাটাস দিয়েছেন। সেখানে হ্যাশ ট্যাগ ব্যবহার করে পাওয়ার লিখেছেন-

 ‘#সেভক্রিকেট’, ‘#শেম’। একসঙ্গে মুম্বাইয়ের ক্রিকেটে খেলেছেন দাবি করে পাওয়ারের বক্তব্য, ‘মুম্বাইয়ের হয়ে আমরা অনূর্ধ্ব ১৫ ক্রিকেটে এক সঙ্গে খেলেছি। আর এখন ও নেপালের অনূর্ধ্ব ১৯ দলের অধিনায়ক! অথচ আমাদের সে দলের সবার​ বয়স এখন ২৪-২৫। মুম্বাইয়ে সে রাজু শর্মা, আর নেপালে গিয়ে রাজু রিজল! ক্রিকেটকে বাঁচান। কী লজ্জার!’

নেপাল দলের ম্যানেজার সূদীপ শর্মা অবশ্য বিতর্কিত এই ব্যাপারটা একেবারেই অস্বীকার করে গেলেন। বরং ইন্ডিয়ান এক্সপ্রেসকে তিনি উল্টো অভিযোগ ছুড়লেন, ‘আমি এই বিতর্কটা শুনেছি। রাজু এই ব্যাপারে কিছু জানে না। ওদের ফেসবুক কিংবা অন্য যে কোন সোশ্যাল মিডিয়া ব্যবহার করা নিষেধ। আর ওখানে কেউ চাইলেই অনেক কিছু লিখতে পারে। ওর কাছে (কৌস্তব পাওয়ার) আদৌ কোন প্রমান আছে? ওকে আগে প্রমান নিয়ে আসতে বলুন। আমার ধারণা, ওর রাজুর সাথে কোন সমস্যা আছে!’

যদিও, নেপাল দলের ম্যানেজার রাজুর ভারতে ক্রিকেট খেলার ব্যাপারটা স্বীকার করেছেন। আর হাস্যকর ব্যাপার হল খোদ আইসিসিরও খেলোয়াড়দের বয়স যাচাইয়ের কোন উপায় নেই।

নিরুপায় এক আইসিসি কর্মকর্তা বললেন, ‘বোর্ডগুলো আইসিসিকে খেলোয়াড়দের তালিকা জমা দেয়। দায়-দায়িত্বটা তাদেরকেই নিতে হয়। আর আমার জানা মতে, খেলোয়াড়দের বয়স যাচাইয়ের কোন ব্যবস্থা আইসিসি’র নেই।’

প্রটোকল অনুযায়ী প্রত্যেক বোর্ডের আইসিসিকে খেলোয়াড়দের পাসপোর্টের কপি, জন্ম নিবন্ধন সার্টিফিকেট জমা দিতে হয়। আর সেসব অনুয়ায়ী তিনি ১৯৯৬ সালের ২৬ সেপ্টেম্বর নেপালের ধানগাড়িতে জন্মেছেন রাজু।

নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে ৬৫ বলে ৪৮ রানের ইনিংস খেলে দলকে জয় এনে দেয়ার পাশাপাশি তিনি জিতেছেন ম্যাচ সেরার পুরস্কারও। আর টানা দুই ম্যাচ আন্ডারডগ হয়েও প্রতিপক্ষকে হারিয়ে দেয়া দলের অধিনায়ক তো আলোচিত হবেনই।

তাই, প্রথম ম্যাচ থেকেই লাইম লাইটে ছিলেন রাজু। এবার তাই সহজেই অনুমান করা যাচ্ছে যে, তার বয়সের জটিলতা নিয়েও কম জল ঘোলা হবে না!

ইন্ডিয়ান এক্সপ্রেস জানিয়েছে, রাজু রিজালই যদি রাজু শর্মা হয়ে থাকেন তাহলে, ২০০৫ সালের নভেম্বরে তিনি মুম্বাইয়ের অনূর্ধ্ব ১৫ দলকে নেতৃত্ব দিয়েছেন। এমনকি মুম্বাই ক্রিকেট অ্যাসোসিয়েশনের (এমসিএ) অনূর্ধ্ব ১৭ ও অনূর্ধ্ব ১৯ ক্যাম্পেও তিনি ছিলেন।

স্থানীয় বেশ কয়েকটা ক্লাবেও প্রতিনিধিত্ব করেছেন রাজু। এর মধ্যে একটা ছিল ভাটনগর স্পোর্টস ও কালচারাল ফাউন্ডেশন। আর এর সাধারণ সম্পাদক ছিলেন পিভি শেঠি।

এমসিএ’র রেকর্ড বলছে, রাজু শেষ ম্যাচ খেলেছেন ২০১২ সালে। আর সেখানে বলা আছে, তার জন্ম ১৯৯০ সালের ১৮ অক্টোবর, মানে ছয় বছর বয়স চুরি!

পাওয়ার ও জাভেদের দাবি যদি সত্যি হয় তাহলে রাজুকে চিনে ফেলার কথা ভারতের সরফরাজ খানের। শুধু মুম্বাইয়ের ছেলে বলে নয়, সরফরাজের পরিবারের সাথে একটা সম্পর্ক ছিল রাজুর।

সরফরাজের বাবা নওশাদ খান ছিলেন রাজুর প্রথম জীবনের কোচ। মুম্বাইয়ের স্থানীয়রা জানান, অজপাড়াগাঁ থেকে তুলে এনে রাজুকে নিজের কাছে রেখেছিলেন নওশাদ।

রাজু যখন ব্যাটিং করছিলেন, মিরপুর শেরে বাংলা জাতীয় ক্রিকেট স্টেডিয়ামের স্লিপে তখন স্লিপেই দাঁড়ানো সরফরাজ। ভেবে দেখুন তার ভেতরে তখন কি চলছিল!

ক্রিকেট

আরও সংবাদ

Bangla Newspaper, Bengali News Paper, Bangla News, Bangladesh News, Latest News of Bangladesh, All Bangla News, Bangladesh News 24, Bangladesh Online Newspaper
উপরে