Deshe Bideshe

DESHEBIDESHE

Login
ইউনিজয়
ফনেটিক
English

গড় রেটিং: 0/5 (0 টি ভোট গৃহিত হয়েছে)

print

আপডেট : ০১-২৯-২০১৬

খালেদার অনাগ্রহ, তবু ইউপি নির্বাচনে যাবে বিএনপি

খালেদার অনাগ্রহ, তবু ইউপি নির্বাচনে যাবে বিএনপি

ঢাকা,২৯ জানুয়ারি- আসন্ন ইউনিয়ন পরিষদ (ইউপি) নির্বাচন নিয়ে বিএনপির শীর্ষ নেতৃত্বের আগ্রহ কম। পৌরসভা নির্বাচনের অভিজ্ঞতাই এর কারণ বলে নেতারা জানান। এরপরও দলকে সংগঠিত করতে ও সচল রাখতে ইউপি নির্বাচনে যাবে বিএনপি। তবে এখন পর্যন্ত দলটিতে নির্বাচনকেন্দ্রিক কোনো প্রস্তুতি বা তৎপরতা দৃশ্যমান নয়।

বিএনপির দায়িত্বশীল একাধিক নেতা জানিয়েছেন, দলীয় প্রতীকে ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচন নিয়ে দলের স্থায়ী কমিটির সর্বশেষ বৈঠকে আলোচনা হয়েছে। বৈঠকে বিএনপির চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া নির্বাচনে অংশগ্রহণ প্রশ্নে নেতিবাচক মনোভাব দেখান। তিনি সদ্য সমাপ্ত পৌরসভা নির্বাচনের প্রসঙ্গ তুলে বলেন, ক্ষমতাসীন দল একই কায়দায় ইউনিয়ন পরিষদও জোরজবরদস্তি দখল করে নেবে। জেনেশুনে ওই নির্বাচনে অংশ নিয়ে কী লাভ হবে।

সংশ্লিষ্ট সূত্র জানায়, বৈঠকে বিএনপির স্থায়ী কমিটির একজন জ্যেষ্ঠ সদস্য দলের চেয়ারপারসনকে মাঠপর্যায়ের গুরুত্বপূর্ণ এই নির্বাচনে অংশ নেওয়ার পক্ষে যুক্তি দেখান। ওই নেতা বলেন, পৌর নির্বাচনে অংশ নিয়ে বিএনপির লোকসান হয়নি, বরং লাভ হয়েছে। তিনি যুক্তি দেখান, জবরদখলের পরও বিএনপি ২৫টি পৌরসভায় জিতেছে। আর কেন্দ্র দখল করে সরকারি দল যে ভোট কারচুপি করেছে, তা গণমাধ্যমের কল্যাণে সবাই জেনেছে। এমনকি ‘প্রামাণ্যচিত্র’ তৈরি করে তা বিদেশি কূটনীতিকদের দেখাতেও পেরেছে। এসব যুক্তি-ব্যাখ্যা শোনার পর খালেদা জিয়া নির্বাচনে অংশ নেওয়ার পক্ষে মত দেন বলে জানা গেছে।

ইউপি নির্বাচন নিয়ে দলের শীর্ষ নেতৃত্বের অনাগ্রহের তথ্য যাচাই করতে যোগাযোগ করলে বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য নজরুল ইসলাম খান তা স্বীকার করে বলেন, ‘এগুলোন তো আছেই। এ সরকার ও নির্বাচন কমিশনের অধীনে সুষ্ঠু নির্বাচন হওয়ার তো সুযোগ দেখি না। জনগণ ভোট দিলেও জেতার কোনো গ্যারান্টি নেই। তারপরও আমরা যাব। কারণ, স্থানীয় সরকারের সব নির্বাচনেই আমরা অংশ নিয়েছি।’

নির্বাচন কমিশন সূত্র জানিয়েছে, দলীয় প্রতীকে দেশের চার হাজারের বেশি ইউনিয়ন পরিষদে আগামী মার্চ মাসের শেষ সপ্তাহ থেকে পর্যায়ক্রমে ভোট গ্রহণ শুরু হবে। এর মধ্যে মার্চের তৃতীয় ও চতুর্থ সপ্তাহে ১২টি উপকূলীয় জেলার ৭৭২টি ইউনিয়নে ভোট গ্রহণের পরিকল্পনা নিয়েছে কমিশন। ফেব্রুয়ারির দ্বিতীয় সপ্তাহে নির্বাচনের তফসিল ঘোষণা করা হতে পারে। এ লক্ষ্যে নির্বাচন পরিচালনা বিধি ও আচরণবিধির খসড়াও নীতিগতভাবে অনুমোদন করা হয়েছে।

বিএনপির যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী গতকাল বলেন, এখনো নির্বাচনের তফসিল ঘোষণা করা হয়নি। নির্বাচনী বিধিমালাও প্রকাশ করা হয়নি। তাই বিএনপির নির্বাচন কার্যক্রমও শুরু হয়নি। তিনি বলেন, বিএনপি নির্বাচনে অংশ নিয়ে গণতন্ত্রের যতটুকু স্পেস পাওয়া যায়, তা ব্যবহার করবে।

বিএনপির সূত্রগুলো বলছে, পৌরসভা নির্বাচনে অংশ নিতে দলের সম্ভাব্য প্রার্থীদের মধ্যে যে উচ্ছ্বাস ও তৎপরতা ছিল, ইউনিয়ন পরিষদ নিয়ে সে রকম দেখা যাচ্ছে না। খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, চেয়ারম্যান পদে দলীয় প্রার্থী বাছাইয়ের জন্য গতকাল বৃহস্পতিবার পর্যন্ত কেন্দ্র থেকে মাঠপর্যায়ে কোনো নির্দেশনা পাঠানো হয়নি। দলের নীতিনির্ধারণী মহলেও নির্বাচনকেন্দ্রিক কোনো প্রস্তুতি দৃশ্যমান নয়। এর মধ্যে কেবল ইউপি নির্বাচন বিষয়ে ১৪ জানুয়ারি দলের বিভাগীয় সাংগঠনিক সম্পাদকদের সঙ্গে একটি বৈঠক করেন বিএনপির ভারপ্রাপ্ত মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর। বৈঠকে থানা-উপজেলা পর্যায়ের নেতাদের মতামতের ভিত্তিতে প্রার্থী চূড়ান্ত করার সিদ্ধান্ত হয়েছে বলে সংশ্লিষ্ট সূত্র জানায়।

জানতে চাইলে ওই বৈঠকে থাকা বিএনপির চট্টগ্রাম বিভাগীয় সাংগঠনিক সম্পাদক গোলাম আকবর খন্দকার প্রথম আলোকে বলেন, মহাসচিবের সঙ্গে বৈঠকে সিদ্ধান্ত হয়েছে বিএনপির জেলা, উপজেলা ও ইউনিয়ন কমিটির নেতারা উপযুক্ত প্রার্থীর তালিকা করে কেন্দ্রে পাঠাবেন। তালিকা যাচাই-বাছাই করে কেন্দ্র প্রার্থী ঘোষণা করবে।

দলীয় সূত্র জানায়, ১৫ দিন আগের ওই বৈঠকের পর ইউপি নির্বাচন-সংক্রান্ত আর কোনো তৎপরতা বা কার্যক্রম নেই বিএনপিতে। দলের কেন্দ্রীয় দায়িত্বশীল একজন নেতা বলেন, পৌরসভা নির্বাচনে কেন্দ্রীয়ভাবে প্রার্থী বাছাই করে নির্বাচন তদারকের জন্য যেমন পর্যবেক্ষণ সেল গঠন করা হয়েছিল, ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে সে রকম হওয়ার সম্ভাবনা কম। তবে বিভাগীয় ও জেলাভিত্তিক তদারকি সেল গঠন করা হতে পারে। এ ছাড়া কমিশন থেকে ইউপি নির্বাচনের বিধিমালা প্রকাশের পর দলীয় প্রার্থীদেরকে এবার কে প্রত্যয়ন দেবে, তা ঠিক করবে বিএনপি। নির্বাচনের তফসিল ঘোষণার পর অনানুষ্ঠানিকভাবে নির্বাচনের কাজ শুরু করবে।

সার্বিক বিষয়ে জানতে চাইলে নজরুল ইসলাম খান বলেন, যেকোনো নির্বাচনে রাজনৈতিক দল সংগঠিত হয়, শক্তিশালী হয়। কিন্তু নির্বাচনের সময় যেভাবে গ্রেপ্তার করা হয়, বাধা দেয়, মিথ্যা মামলা করে; তাতে এই সরকার ও নির্বাচন কমিশনের অধীন নির্বাচন করা ঝুঁকির ব্যাপারও।

Bangla Newspaper, Bengali News Paper, Bangla News, Bangladesh News, Latest News of Bangladesh, All Bangla News, Bangladesh News 24, Bangladesh Online Newspaper
উপরে