Deshe Bideshe

DESHEBIDESHE

Login
ইউনিজয়
ফনেটিক
English

গড় রেটিং: 0/5 (0 টি ভোট গৃহিত হয়েছে)

print
আপডেট : ০১-২৮-২০১৬

জেনে নিন পোকামাকড় কামড়ের যতো ঘরোয়া প্রতিকার

সাবেরা খাতুন


জেনে নিন পোকামাকড় কামড়ের যতো ঘরোয়া প্রতিকার

পোকামাকড় ও মাকড়সা কামড় দিলে ছোটখাট ফোলা হয়, লাল হয়ে যায়, ব্যথা ও চুলকানি হয়। এইসব হালকা প্রতিক্রিয়াগুলো খুবই সাধারণ এবং কয়েক ঘন্টা থেকে কয়েক দিন স্থায়ী হয়। কিছু মানুষের ক্ষেত্রে পোকার কামড় বা হুল ফোটানোর ফলে তীব্র প্রতিক্রিয়া হতে পারে। বড়দের চেয়ে ছোটদের ক্ষেত্রে এই প্রতিক্রিয়ার প্রভাব বেশি দেখা যায়। তীব্র প্রতিক্রিয়ার লক্ষণ সমূহ :

কারো কারো ক্ষেত্রে পোকার কামড়ের ফলে তীব্র অ্যালার্জির প্রতিক্রিয়া দেখা দিতে পারে। যার ফলে জীবন আশংকার ও সৃষ্টি হতে পারে। তীব্র অ্যালার্জির প্রতিক্রিয়ায় যে লক্ষণগুলো দেখা যায়-
- পক্ষাঘাত হতে পারে যদি গুরুত্বপূর্ণ অঙ্গে সঠিক ভাবে রক্ত সঞ্চালন বাধাগ্রস্থ হয়।
- কফ, জোরে জোরে নিঃশ্বাস ফেলা, নিঃশ্বাস-প্রশ্বাসে কষ্ট হওয়া, মুখে ও গলায় পূর্ণতার অনুভূতি হয়।
- ঠোঁট, জিহবা, কান, চোখের পাতা, হাতের তালু, পায়ের পাতার নীচের অংশ এবং মিউকাস পর্দা ফুলে যায়।
- মাথাঘোরা ও বিভ্রান্তি হতে পারে
- বমি বমি ভাব, ডায়রিয়া এবং পেটফাঁপা
- আমবাতের লক্ষণ দেখা দিতে পারে
পতঙ্গ ও মাকড়সা ছাড়াও আরো যে প্রাণীর একটি মাত্র দংশনে বা হুল ফোটানোর ফলে বিষক্রিয়া হতে পারে তা হল- ব্ল্যাক উইডো স্পাইডার, ব্রাউন রেক্লাস স্পাইডার, বিছা ও ক্যাটারপিলার বা শুঁয়াপোকা ইত্যাদি। আবার কিছু পতঙ্গ আছে যারা অনেক গুলো হুল ফোটায়। মৌমাছি হুল ফোটানোর পরেই মারা যায়। আফ্রিকান কিলার বি সাধারণ মৌমাছির চেয়ে অনেক বেশি আক্রমণাত্মক হয় এবং এরা অনেকে একসাথে আক্রমণ করে। ভীমরুল একসাথে অনেক গুলো হুল ফোটায়।

তীব্র প্রতিক্রিয়া দেখা গেলে চিকিৎসকের শরণাপন্ন হতে হবে। বেশির ভাগ সাধারণ পোকার কামড় নিজে নিজেই ভালো হয়ে যায়। কিছু ঘরোয়া উপায়ে পোকায় কামড়ের উপসর্গগুলো প্রশমন করা যায়। আসুন জেনে নেই ঘরোয়া প্রতিকারগুলো সম্পর্কে।

পোকামাকড়ের কামড়ের প্রতিকার :

১। পোকার কামড়ের স্থানটিতে বরফের টুকরো নিয়ে ঘষতে থাকুন। এর ফলে চুলকানি সৃষ্টিকারী প্রদাহ কমে যাবে।

২। আন্ডারআর্ম ডিওডোরেন্টে যে উপাদান থাকে তা ত্বকের জ্বালাযন্ত্রণা কমাতে পারে।

৩। এক বা দুই ফোটা পিপারমেন্ট অয়েল বা মেন্থলের তেল আক্রান্ত স্থানে লাগান। এটি শীতলতা দান করতে পারে এবং আক্রান্ত স্থানে রক্ত সঞ্চালন বৃদ্ধি করে নিরাময়কে ত্বরান্বিত করে। বিকল্প হিসেবে মেন্থলের তেল সমৃদ্ধ টুথ পেস্ট লাগাতে পারেন।

৪। পেঁয়াজের একটি টুকরা হুল ফোটার স্থানে লাগালে ইনফেকশন ও ফোলা কমে যায়।

৫। অ্যাক্টিভেটেড চারকোল আক্রান্ত স্থানে লাগালে বিষ বাহির হয়ে যাবে।

৬। সাদা ভিনেগার বা আপেল সাইডার ভিনেগারও ব্যথা কমতে সাহায্য করে।

৭। কামড়ের স্থানে লেবুর রস লাগিয়েও উপকার পেতে পারেন।

৮। কামড়ের স্থানটি পানি দিয়ে ভিজিয়ে নিয়ে পুরোনো বার সাবান লাগিয়ে ধুয়ে ফেলুন। সুগন্ধি ফ্যান্সি সাবান ব্যবহার করা যাবেনা। কারণ এতে যন্ত্রণা বাড়তে পারে।
মাকড়সার কামড়ের প্রতিকার :

৯। মাকড়সার কামড়ের চুলকানি কমাতে পারে তুলসী পাতা। তুলসী পাতা পিষে কামড়ের জায়গায় লাগান।

১০। বাঁধাকপির পাতা মাকড়সার কামড়ের শক্তিশালী প্রতিকার হিসেবে কাজ করে। বাঁধাকপির কাঁচা পাতা পিষে নিয়ে কামড়ের স্থানে লাগিয়ে এর উপরে ব্যান্ডেজ লাগিয়ে সারারাত রেখে দিন। এর ফলে বিষ মুক্ত হয়ে দ্রুত নিরাময় হবে।

১১। হাইড্রোজেন পারঅক্সাইডের পতঙ্গের কামড়কে নিরাময় করতে পারে এবং এটিতে অ্যান্টিব্যাক্টেরিয়াল উপাদান আছে। আক্রান্ত স্থানটি হাইড্রোজেন পারঅক্সাইডের দ্রবণ দিয়ে ধুয়ে ফেলুন।

১২। অলিভ অয়েল ও হলুদ গুঁড়া মিশিয়ে পেস্ট তৈরি করে আক্রান্ত স্থানে লাগান। মাকড়সার কামড়ের চুলকানি ও ফোলা কমাতে এটি অনেক কার্যকরী।

১৩। মাকড়সার কামড়ের স্থানটি পানি দিয়ে ভালোভাবে ধুয়ে নিন এবং লবণ লাগান। আক্রান্ত স্থানে লবণ লাগিয়ে একটি ব্যান্ডেজ লাগিয়ে রাখতে পারেন।

১৪। রসুন স্লাইস করে কেটে আক্রান্ত স্থানে সরাসরি লাগান এবং ভালো ফল পাওয়ার জন্য অবশ্যই একটি ব্যান্ডেজ দিয়ে আটকে রাখুন সারারাত।

১৫। বিশেষ করে শিশুদের ইনফেকশন কমানোর জন্য অ্যান্টিবায়োটিক ক্রিম বা লোশন ব্যবহার করুন।

কিছু টিপস :
-  মৌমাছি বা বোলতা কামড় দেয়ার সাথে সাথে হুলটি সরিয়ে ফেলুন।
- শান্ত হয়ে এক জায়গায় বসুন, কারণ বেশি নাড়াচাড়া করলে রক্তে বিষ ছড়িয়ে যায়।
- যদি ত্বকে শুঁয়াপোকা লাগে তাহলে সেলোফেন টেপ লাগিয়ে কাঁটা গুলো তুলে ফেলতে হবে।
- বিছা কামড় দিলে দ্রুত ডাক্তারের কাছে যান। অ্যান্টিডট নামের ঔষধ বিছার দংশন ভালো করতে পারে।
- পেঁপের এনজাইম ও অ্যাসপিরিন ট্যাবলেটের গুঁড়ো পোকার কামড়ের বিষকে নিষ্ক্রিয় করতে পারে।
- এছাড়াও চিনি, টি ট্রি অয়েল ও ভালো কাজ করে।
- পোকার কামড়ের স্থানটি উঁচু করে রাখলে ফোলা কমতে সাহায্য করবে।

লিখেছেন- সাবেরা খাতুন

Bangla Newspaper, Bengali News Paper, Bangla News, Bangladesh News, Latest News of Bangladesh, All Bangla News, Bangladesh News 24, Bangladesh Online Newspaper
উপরে