Deshe Bideshe

DESHEBIDESHE

Login
ইউনিজয়
ফনেটিক
English

গড় রেটিং: 5.0/5 (1 টি ভোট গৃহিত হয়েছে)

print
আপডেট : ০১-১২-২০১৬

৩ বছরে ৫০ হাজার নারী তথ্যপ্রযুক্তির প্রশিক্ষণ পাবে: পলক

৩ বছরে ৫০ হাজার নারী তথ্যপ্রযুক্তির প্রশিক্ষণ পাবে: পলক

ঢাকা, ১২ জানুয়ারী- আগামী তিন বছরে ৫০ হাজার নারীকে তথ্যপ্রযুক্তি বিষয়ে প্রশিক্ষণ দিতে সরকার ভ্রাম্যমাণ প্রশিক্ষণ কেন্দ্র চালু করতে যাচ্ছে বলে জানিয়েছেন তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমদ পলক।

মঙ্গলবার দুপুরে রাজধানীর আগারগাঁওয়ে এক ‘এগিয়ে যাওয়ার আরও দুই বছর’ শীর্ষক সংবাদ সম্মেলনে এতথ্য জানান তিনি।

পলক বলেন, “নারীর কর্মসংস্থান নিশ্চিতে আগামী তিন বছরে ৫০ হাজার নারীকে আইটি প্রশিক্ষণ দেওয়ার জন্য মোবাইল ট্রেনিং ল্যাব চালু করতে যাচ্ছে সরকার।

“ছয়টি বাসে এ অত্যাধুনিক ট্রেনিং ল্যাব স্থাপন করা হচ্ছে। প্রশিক্ষকসহ বাসগুলো সারাদেশে ভ্রমণ করবে এবং শিক্ষিত নারীদের আইটি প্রশিক্ষণ দেবে।”

সরকারের তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি বিভাগ, রবি ও চীনের আইসিটি সল্যুশন সার্ভিস প্রোভাইডার প্রতিষ্ঠান হুয়াওয়ে বাংলাদেশ লিমিটেডের যৌথ উদ্যোগে এ কার‌্যক্রম পরিচালিত হবে বলে জানান তিনি।

পলক বলেন, বিগত দুই বছরে তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি বিভাগের বিভিন্ন প্রকল্পের আওয়ায় ৫০ হাজার তরুণ-তরুণীকে প্রশিক্ষণ দিয়ে দক্ষ মানবসম্পদ হিসেবে গড়ে তোলা হয়েছে।

“আগামী তিন বছরে বিশ্বমানের প্রশিক্ষণ দিয়ে এক লাখ দক্ষ মানবসম্পদ গড়ে তোলার পরিকল্পনা রয়েছে।”

তথ্যপ্রযুক্তি নানা উন্নয়ন কর্মকাণ্ডের ফিরিস্তি দিয়ে প্রতিমন্ত্রী বলেন, লেখাপড়াকে আনন্দদায়ক করতে প্রথম থেকে পঞ্চম শ্রেণি পর‌্যন্ত ১৭টি পাঠ্যবইকে ডিজিটাল টেক্সটবুক বা ই-বুকে রূপান্তর করা হয়েছে।

“আগামী মার্চে এই বইগুলো উদ্বোধনের পরিকল্পনা রয়েছে।”

আইসিটি পলিসি ২০১৫ প্রণয়ন, ডিজিটাল সিকিউরিটি অ্যাক্ট ২০১৬, ন্যাশনাল ই-সার্ভিস অ্যাক্ট ২০১৬ আইন প্রণয়নে তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি বিভাগের উদ্যোগের কথা তুলে ধরেন তিনি।

পলক বলেন, মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি উপদেষ্টা সজীব ওয়াজেদ জয়ের পরামর্শ ও তদাকিতে আইসিটি বিভাগ একটি গতিশীল বিভাগ হিসেবে আবির্ভূত হয়েছে।

“২০১৪-১৫ অর্থবছরে বার্ষিক উন্নয়ন কর্মসূচি (এডিপি) বাস্তবায়নে তার প্রতিফলন দেখা যায়। ওই সময়ে এডিপি বাস্তবায়নে হার ছিল ১০২ শতাংশ।”

তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি বিভাগ ও বিচার বিভাগের যৌথ উদ্যোগে ২০১৮ সালের মধ্যে ‘বাংলাদেশের বিচারিক ব্যবস্থাকে ডিজিটাইজেশনে সহায়তা প্রদান’ শীর্ষক প্রকল্প বাস্তবায়ন করা হবে বলেও জানান তিনি।

“আদালত পাড়ায় প্রতি দিন দশ হাজার মানুষ অপেক্ষায় থাকে। ৩০ লাখ মামলা এখনও নিষ্পত্তির অপেক্ষায় আছে। এই প্রকল্পের কাজ শুরু হলে দ্রুত মামলা নিষ্পত্তি করা সম্ভব হবে।”

তথ্যপ্রযুক্তি প্রতিমন্ত্রী বলেন, “তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি বিভাগ গোটা দেশকে কানেক্ট করার জন্য কানেকটিভিটি প্রোগ্রাম গ্রহণ করেছে। আইসিটি অবকাঠামো গড়ে তোলার অংশ হিসেবে জেলা ও উপজেলা পর্যন্ত কানেকটিভিটি সম্প্রসারিত করেছি।”

বাংলাগভনেট প্রকল্পের আওয়ায় ৫৮টি মন্ত্রণালয়, ২২৭টি অধিদপ্তর, ৬৪টি জেলা প্রশাসকের কার্যালয় ও ৬৪টি নির্বাচিত উপজেলা নির্বাহী অফিসারের কার্যালয়কে একই নেটওয়ার্কের আওতায় আনা হয়েছে বলেও জানান মন্ত্রী।

বিসিসি মিলনায়তনে মিট দ্যা প্রেস অনুষ্ঠানে তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি মন্ত্রণালয়ের ভারপ্রাপ্ত সচিব হারুনুর রশীদসহ মন্ত্রণালয়ের বিভিন্ন স্তরের কর্মকর্তারা এসময় উপস্থিত ছিলেন।

জাতীয়

আরও সংবাদ

Bangla Newspaper, Bengali News Paper, Bangla News, Bangladesh News, Latest News of Bangladesh, All Bangla News, Bangladesh News 24, Bangladesh Online Newspaper
উপরে