Deshe Bideshe

DESHEBIDESHE

Login
ইউনিজয়
ফনেটিক
English

গড় রেটিং: 4.0/5 (1 টি ভোট গৃহিত হয়েছে)

print
আপডেট : ০১-০৭-২০১৬

খালেদার বিরুদ্ধে তদন্ত কর্মকর্তার জবানবন্দি শেষ

খালেদার বিরুদ্ধে তদন্ত কর্মকর্তার জবানবন্দি শেষ

ঢাকা, ০৭ জানুয়ারী- জিয়া চ্যারিটেবল ট্রাস্ট মামালায় বিএনপির চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার বিরুদ্ধে তদন্ত কর্মকর্তা দুদকের উপপরিচালক হারুন অর রশীদের জবানবন্দি শেষ হয়েছে। তাকে জেরার জন্য ১৪ জানুয়ারি দিন ধার্য করেছেন আদালত।

রাজধানীর বকশিবাজারের আলিয়া মাদ্রাসার মাঠে স্থাপিত তৃতীয় বিশেষ জজ আবু আহমেদ জমাদারের আদালতে বৃহস্পতিবার তৃতীয় দিনের মতো জবানবন্দি দেন তদন্ত কর্মকর্তা।

এদিন সকাল সাড়ে ১০টায় শুরু হওয়া জবানবন্দি বেলা সোয়া দুইটায় শেষ হয়। এরপর বিচারক ১৪ জানুয়ারি এ সাক্ষীকে জেরার জন্য দিন ধার্য করেন।

মামলার প্রধান আসামি খালেদা জিয়া আদালতে উপস্থিত না হওয়ায় তার আইনজীবী অ্যাডভোকেট সানাউল্লাহ মিয়া সময় আবেদন করেন। আদালত অনুপস্থিতির সময় আবেদন মঞ্জুর করে সাক্ষ্যগ্রহণের আদেশ দেন। এরপর তদন্ত কর্মকর্তার তৃতীয় দিনের মতো জবানবন্দি নেয়া শুরু হয়।

এ মামলায় মোট ৩২ জনের জবানবন্দি নেয়া হলো।

তৃতীয় দিনের জবানবন্দিতে তদন্ত কর্মকর্তা বলেন, বেগম খালেদা জিয়া প্রধানমন্ত্রী থাকাকালে ক্ষমতার অপব্যবহার করে অবৈধভাবে অন্য আসামিদের সহযোগিতায় জিয়া চ্যারিটেবল ট্রাস্ট থেকে টাকা তুলে খরচ করেন। তিনি জমির মালিককে বাজার মূল্যের চেয়ে অতিরিক্ত টাকা প্রদান করেন।

এর আগে গত ২১ ডিসেম্বর তদন্ত কর্মকর্তা প্রথম জবানবন্দি দেন। ওই দিন আংশিক জবানবন্দি হওয়ার পর গত ৩১ ডিসেম্বরও আংশিক জবানবন্দি হয়। পরবর্তী সাক্ষ্যগ্রহণের জন্য ৭ জানুয়ারি দিন ধার্য করেছিলেন বিচারিক আদালত।

মামলাটিতে ইতিমধ্যে সাক্ষ্য দেয়া অন্য ৩১ সাক্ষী হলেন মামলার রেকর্ডিং অফিসার মাহফুজুল হক ভূঁইয়া, সোনালী ব্যাংকের সিনিয়র অফিসার ইনসান উদ্দিন আহমেদ ও ক্যাশ অফিসার শাহজাহান খান, পূবালী ব্যাংকের সিনিয়র প্রিন্সিপাল অফিসার এইচ এম ইসমাইল, জনতা ব্যাংকের সাত মসজিদ শাখার জিএম শেখ মকবুল ও ফাহমিদা রহমান, সোনালী ব্যাংকের ডিজিএম ড. মো. হাফিজুর রহমান, এজিএম মো. আমিরউদ্দিন ও সিনিয়র এক্সিকিউটিভ অফিসার পরিতোষ চন্দ্র দে, স্ট্যান্ডার্ড চাটার্ড ব্যাংকের ব্রাঞ্চ ম্যানেজার নওশাদ মোহাম্মদ, রিলেশনশিপ ম্যানেজার আমিরুল ইসলাম ও কাস্টমার সার্ভিসেস ম্যানেজার অলোক কান্তি চক্রবর্তী, সোনালী ব্যাংকের ঢাকা ক্যান্টনমেন্ট শাখার ক্যাশ অফিসার ওয়ালিদ আহমেদ, শাহজালাল ইসলামী ব্যাংকের সিনিয়র অফিসার মো. মামুনুজ্জামান, মেট্রো মেকার্স অ্যান্ড ডেভেলপার্স লিমিটেডের সাবেক সিনিয়র অফিসার সাইফুল আলম, মেট্রো মেকার্স কর্মকর্তা চৌধুরী এম এন আলম, সোনালী ব্যাংকের ভারপ্রাপ্তজনারেল ম্যানেজার মেজবাউল হক, মেট্রো মেকার্স অ্যান্ড ডেভেলপার্স লিমিটেডের এমডি এএফএম জাহাঙ্গীর হোসেন, ডিএমডি মাইনুল ইমরান চৌধুরী, সাবেক ডিজিএম (ফিন্যান্স অ্যান্ড অ্যাকাউন্টস) জাকারিয়া খান, সোশ্যাল ইসলামী ব্যাংকের এসইভিপি জিয়াউদ্দিন এম ঘুর্নি, ডাচ-বাংলা ব্যাংকের সিনিয়র অফিসার কামরুজ্জামান, দুদকের দুই কনস্টেবল মঞ্জুরুল হক ও সিরাজুল হক, দুদকের সহকারী পরিচালক নাজমুল আহসান, সোনালী ব্যাংকের প্রধান কার্যালয়ের ডিজিএম আব্দুল গফুর, এজিএম মো. হারুন অর রশীদ, মিরপুর শিল্প এলাকা শাখার ব্যবস্থাপক হারুন অর রশীদ ফকির ও জিএম আমিন উদ্দিন আহমেদ এবং মেট্রো মেকার্স অ্যান্ড ডেভেলপার্স লিমিটেডের সাবেক সিনিয়র ম্যানেজার কাজী রশিদউজ্জামান।

২০১১ সালের ৮ আগস্ট জিয়া চ্যারিটেবল ট্রাস্ট মামলাটি দায়ের করে দুদক। এতে ৩ কোটি ১৫ লাখ ৪৩ হাজার টাকা আত্মসাতের অভিযোগ করা হয়। মামলার চার্জশিট দেয়া হয় ২০১২ সালের ১৬ জানুয়ারি। ২০১৪ সালের ১৯ মার্চ অভিযোগ গঠন করা হয়।

মামলার অন্য আসামিরা হলেন, খালেদা জিয়ার সাবেক রাজনৈতিক সচিব হারিছ চৌধুরী, হারিছের তখনকার সহকারী একান্ত সচিব ও বিআইডব্লিউটিএর নৌ-নিরাপত্তা ও ট্রাফিক বিভাগের ভারপ্রাপ্ত পরিচালক জিয়াউল ইসলাম মুন্না এবং ঢাকার সাবেক মেয়র সাদেক হোসেন খোকার একান্ত সচিব মনিরুল ইসলাম খান।

Bangla Newspaper, Bengali News Paper, Bangla News, Bangladesh News, Latest News of Bangladesh, All Bangla News, Bangladesh News 24, Bangladesh Online Newspaper
উপরে