Deshe Bideshe

DESHEBIDESHE

Login
ইউনিজয়
ফনেটিক
English

গড় রেটিং: 3.6/5 (5 টি ভোট গৃহিত হয়েছে)

print
আপডেট : ০১-০২-২০১৬

ফিরে দেখা ২০১৫: বলিউডের সেরা ১৫ সিনেমা

ফিরে দেখা ২০১৫: বলিউডের সেরা ১৫ সিনেমা

১. বজরঙ্গি ভাইজান
কবীর খানের পরিচালনায় ‘ভাইজান’ সলমনের এ ছবি, এ বছরের অন্যতম সেরা ব্লকবাস্টার৷ শুধু ব্যবসার নিরিখে নয়, ছবির সামাজিক বার্তা আর বলিপাড়ার বিনোদনের ফর্মূলাকে যেভাবে মেশানো হয়েছে তা সচরাচর দেখা যায় না৷ বলিউডে এরকম ছবি কমই হয় যেখানে বিনোদন ও সামাজিক বিষয় এমন সমানুপাতে মিশে যায়৷ সলমনকেও এ ছবিতে পাওয়া গিয়েছিল একেবারে অন্যভাবে৷ সাংবাদিকের চরিত্রে মাতিয়ে দিয়েছিলেন নওয়াজউদ্দিন সিদ্দিকি৷আর মুন্নির চরিত্রে সবার মন কেড়ে নিয়েছিলেন ছোট্ট হর্ষালি মালহোত্রা৷


২. বেবি
অক্ষয়কুমারের কেরিয়ারে নিঃসন্দেহে বড় জায়গা করে নেবে এ ছবি৷ নীরজ পান্ডের এ ছবির বিষয় ছিল দেশের সিক্রেট এজেন্সির কাজকর্ম৷ এজেন্টের ভূমিকায় ছিলেন অক্ষয়কুমার৷ সিক্রেট এজেন্সির কাজের সূত্রেই ছবি যেভাবে সন্ত্রাসদমনের ছবি তুলে ধরেছিল, তা আলোড়িত করেছিল সারা দেশের মানুষকে৷ অভাবিত বাণিজ্যিক সাফল্যও পেয়েছিল ছবিটি৷


৩. মাঝি
দশরথ মাঝির জীবন অবলম্বনে কেতন মেহতার এ ছবি৷ নিজের হাতে পাহাড় কেটে রাস্তা তৈরি করেছিলেন দশরথ৷ তাঁর জীবনকে অনবদ্য সিনেম্যাটিক অভিব্যক্তিতে পরদায় তুলে এনেছিলেন কেতন৷ দশরথের চরিত্রে অসাধারণ অভিনয় করেছিলেন নওয়াজউদ্দিন সিদ্দিকি৷একেবারে অন্যরকমভাবে পাওয়া গিয়েছিল রাধিকা আপতেকেও৷ কাহিনি, অভিনয়, দেশপ্রেম সব মিলিয়ে এ ছবি এ বছরের তো বটেই, হিন্দি সিনেমার আকার্ইভেও তুলে রাখার মতো সেরা একটি ছবি৷


৪. তলওয়ার
আরুষি হত্যা মামলা অবলম্বনে মেঘনা গুলজারের এ ছবি৷ এ ঘটনায় অনালোকিত সত্যির দিকে আলো ফেলতে চেয়েছিলেন পরিচালক৷ তবে তাঁর সংযমের মুনসিয়ানাই ছবিটিকে অন্য মাত্রা দিয়েছে৷ কোনও পক্ষ অবলম্বন করেননি মেঘনা৷ ফলত ছবিটির কাঠামো নিরপেক্ষ হতে পেরেছে৷ ‘রশোমন’-এর আদলে ‘সত্যি’ সম্পর্কিত বিভিন্ন ভার্সনগুলিকে আলাদা আলাদা করে উপস্থাপিত করা হয়েছে৷ সেখান থেকে প্রকৃত সত্যি খুঁজে নেওয়ার ভার দর্শকের৷ এ কাহিনি নিয়ে আগেও ছবি হয়েছে৷ তবে আঙ্গিকে, উপস্থাপনায় এ ছবিটি স্বতন্ত্র হয়ে উঠেছে৷ ছবিতে অসাধারণ অভিনয় করেছিলেন ইরফান খান৷


৫. দৃশ্যম
দক্ষিণী ছবির রিমেক হলেও বলিউডের ‘দৃশ্যম’ এ বছরের অন্যতম সেরা সিনেমা৷ উপস্তাপনার গুণে এ সিনেমা আলাদা হয়ে উঠেছে৷ ছবির চিত্রনাট্যেই ছিল টানটান উত্তেজনা৷ গোত্রে থ্রিলার এ ছবি জানিয়ে দিয়েছিল, চোখের দেখাও ভুল হতে পারে৷ পরিবারের জন্য একজন মানুষ কতদূর যেতে পারেন তাইই দেখিয়েছিলেন পরিচালক নিশিকান্ত কামাত৷ দুরন্ত অভিনয় করেছিলেন অজয় দেবগণ, টাবু, রজত কাপুর প্রমুখ৷


৬. তানু ওয়েডস মানু রিটার্নস
বছরের অন্যতম সেরা ‘এন্টারটেইনিং’ ছবি৷ ‘তানু ওয়েডস মানু’ ছবির সিকুয়েল এ ছবিতে অসাধারণ অভিনয় করেছিলেন কঙ্গনা রানাওয়াত৷ দ্বৈত চরিত্রে এমন শক্তিশালী অভিনয় বহুদিন দেখা যায়নি বলিপাড়ায়৷ খোদ ‘বিগ বি’ কঙ্গনাকে নিজের হাতে চিঠি লিখে সাধুবাদ জানিয়েছিলেন৷ আনন্দ এল রাইয়ের এ ছবি দাম্পত্যের এক গভীর সত্যিও তুলে ধরেছিল পরদায়৷   


৭. পিকু
বাবা-মেয়ের সম্পর্কের মাধুর্য, পারিবারিক বন্ধন, প্রেম-সব মিলিয়ে ক্যানবাসে যেন এক মনোরম গার্হস্থের ছবি এঁকেচিলেন পরিচালক সুজিত সরকার৷ অপ্রতিদ্বন্দ্বী অভিনয়ে অমিতাভ বচ্চন আরও একবার মনে করিয়ে দিয়েছিলেন কেন তিনি বিগ বি৷ যোগ্য সঙ্গতে ছিলেন দীপিকা পাড়ুকোন ও ইরফান খান৷


৮. মশান
এ ছবিতে দুটো আলাদা গল্প, কিন্তু কোথাও যেন তা মিলে গিয়েছিল এক পরিণতিতে৷ এই সমাজ কখনও প্রেমকে স্বীকার করে নেয়, কখনও বা জাতিভেদ প্রথার বদ্ধমূল ধারণায় মাঝে মধ্যে হয়ে ওঠে শ্মশানের মতো৷ এছবিতে আছে ছিল ইঙ্গিত৷ কান ফিল্ম ফেস্টিভ্যালে দারুণ অভিবাদন পেয়েছিল ছবিটি৷ পরিচালক নীরজ ঘ্যানের এ ছবিতে অনবদ্য অভিনয় করেছিলেন রিচা চাড্ডা৷


৯. মার্গারিটা উইথ দ্য স্ট্র
ছবির বিষয় ছিল বেশ চমকে দেওয়ার মতো৷ সেরিব্রাল পালসির মতো জটিল অসুখে আক্রান্ত নারীরও যে যৌনচাহিদা থাকে, এই সমাজের ব্যবস্থায় তা যে অবদমিত হয়ে থেকে যায়-এরকমই বিষয় উঠে এসেছিল ছবিটিতে৷ সোনালী বোসের পরিচালনায় এ ছবিতে নিজের অভিনয় প্রতিভা চিনিয়ে দিয়েছিলেন কালকি কোয়েচলিন৷


১০.  এনএইচ টেন
ছবিতে প্রযোজক হিসেবে অভিষেক হয়েছিল অনুষ্কা শর্মার৷ দুরন্ত অভিনয়ও করেছিলেন তিনি৷ খাপ পঞ্চায়তের নিষ্ঠুরতা এবং সেই সূত্রে ওম্যান এমপাওয়রমেন্টের বার্তা রাখা ছিল ছবিতে৷ ছবিটি পরিচালনা করেছিলেন নভদীপ সিং৷


১১. দিলওয়ালে
 এ বছরের ব্লকবাস্টার ছবি৷ বহুদিন পর পরদায় ফিরল শাহরুখ-কাজল জুটি৷ সে জুটির রসায়ন তো আছেই, অনসম্বল কাস্টিংয়ে রোহিত সেট্টি আরও একবার বাজিমাত করলেন৷ বলিউডি সিনেমার চেনা ফর্মূলাতেই এল সাফল্য৷


১২. বাজিরাও মস্তানি
পেশোয়া বাজিরাও ও তাঁর আধা মুসলিম স্ত্রী মস্তানির জীবন অবলম্বনে তৈরি এ ছবি পরিচালক সঞ্জয় লীলা বনশালীর একটি ‘মাস্টারপিস’৷ সঞ্জয়ের সিগনেচার হিসেবে এ ছবিও নান্দনিক৷ সেই সঙ্গে দুরন্ত অভিনয় করেছেন রণবীর সিং, দীপিকা পাড়ুকোন ও প্রিয়াঙ্কা চোপড়া? তবে অসহিষ্ণুতা নিয়ে দেশের বাতাস যখন ভারী, তখন ধর্মের উর্ধে প্রেমের নিশানকে আরও একবার উড়িয়ে দিল এ ছবি৷


১৩. জজবা
বহুদিন পর বড় পরদায় ফিরলেন ঐশ্বর্য রাই বচ্চন৷ কাহিনি দুই মায়ের৷ একজন অবশ্যই ঐশ্বর্য৷ অন্যজন শাবানা আজমি৷ মাতৃত্বের ধর্মে দুই মা কে কোন পথে এগিয়েছেন তাইই উঠে এসেছিল সঞ্জয় গুপ্তার এ ছবিতে৷ বলা বাহুল্য, দুজনেই অসামান্য অভিনয় করেছিলেন৷ দারুণ অভিনয় করেছিলেন ইরফান খানও৷


১৪. দম লাগাকে হাইস্যা
 এ ছবির বিষয়ও চিল চমকে দেওয়ার মতো৷ নায়িকাদের চেনা ছবিকে ভেঙে ভূমি পেদিনীকরের অভি,েক হয়েছিল ছবিতে৷ কল্পনা আর বাস্তবের মিল কখনও হয়, কখনও হয় না৷ কিন্তু তাতে সম্পর্ক কতখানি প্রভাবিত হয়, সম্পর্কের আসল বাঁধন কোথায় লুকিয়ে তাইই দেখিয়েছিল এ ছবি৷ আর সেই সঙ্গে ফিরে এসেছিল পুরনো দিনের গানের সুর৷


১৫. তামাশা
 ইমতিয়াজ আলি আরও একবার ছকভাঙা জীবনের কথা শোনালেন এ ছবিতে৷ তেমন বাণিজ্যিক সাফল্য না পেলেও, ছবির বার্তা ঠিল সময়োপযোগী৷ অসাধারণ অভিনয় করেছিলেন রণবীর কাপুর ও দীপিকা পাড়ুকোন৷

বলিউড

আরও সংবাদ

Bangla Newspaper, Bengali News Paper, Bangla News, Bangladesh News, Latest News of Bangladesh, All Bangla News, Bangladesh News 24, Bangladesh Online Newspaper
উপরে