Deshe Bideshe

DESHEBIDESHE

Login
ইউনিজয়
ফনেটিক
English

গড় রেটিং: 3.1/5 (159 টি ভোট গৃহিত হয়েছে)

print
আপডেট : ১১-২৪-২০১৫

অভিবাসীদের ‘ঠোঁট সেলাই’ প্রতিবাদে শামিল বাংলাদেশীরা

অভিবাসীদের ‘ঠোঁট সেলাই’ প্রতিবাদে শামিল বাংলাদেশীরা

অ্যাথেন্স, ২৪ নভেম্বর- গ্রিস-মেসিডোনিয়া সীমান্তে আটকে যাওয়া অভিবাসীরা তাদের যাত্রা অব্যাহত রাখতে অনুমোদন না দেয়ার প্রতিবাদে ঠোঁট সেলাই করে অভাবনীয় এক প্রতিবাদের সূচনা করেছেন। মেসিডোনিয়া শুধুমাত্র যুদ্ধাক্রান্ত দেশ থেকে আগতদের জন্য চলাচল সীমিত করলে হাজারো অভিবাসী বিক্ষোভ করে আসছিলো।

অর্থনৈতিক অভিবাসী বিবেচনায় বাংলাদেশ এবং মরক্কো থেকে আসা অনেককে সীমান্ত অতিক্রমে বাধা দেয়ায় তারাও এই প্রতিবাদে যোগ দেয়।

কয়েকদিন ধরে অব্যাহত বিক্ষোভের পর প্রতিবাদের এই নতুন ভাষা অবলম্বন করে অভিবাসীরা। বিক্ষুদ্ধরা, যাদের মধ্যে কয়েকজন ইরানের সংখ্যালঘু কুর্দিশ গোত্রের বলে প্রতিয়মান, তাদের মুখ সেলাই করে, বুকে ও কপালে “শুধু স্বাধীনতা” এরকম শব্দগুচ্ছ লেখে দাঙ্গা পুলিশের সামনে রেল লাইনে বসে প্রতিবাদ করে।

ইউএস স্টেট ডিপার্টমেন্টের তথ্য অনুযায়ী, ইরানের সুন্নি, কুর্দিশ সংখ্যালঘুরা সরকারের দ্বারা নির্বিচারে গ্রেপ্তার, দীর্ঘমেয়াদে আটক রাখা, শারীরিক লাঞ্চনার মতো নিপিড়নের শিকার।

ফ্রান্সের প্যারিসে নভেম্বরের ১৩ তারিখে ভয়াবহ সন্ত্রাসী হামলার পর ইউরোপিয়ান দেশগুলোর সীমান্ত নিয়ন্ত্রণ নতুন করে বিবেচনার আওতায় আনা হয়। ইসলামিক স্টেটের (আইএস) এই হামলায় জড়িত একজনের মৃতদেহের পাশ থেকে জাল সিরিয়ান পাসপোর্ট পাওয়ার পর এই কড়াকড়ি আরোপ করা হয়।

ইউরোপের ডানপন্থি রাজনৈতিক নেতারা সীমান্ত বন্ধ করে দেয়ার আহবান জানিয়েছে।

ইউরোপিয়ান ইউনিয়নের (ইইউ) শেনজেন চুক্তি যার ফলে ইউরোপের ২৬ টি দেশে পাসপোর্ট ছাড়াই ভ্রমণের অনুমোদন রয়েছে তা প্যারিস হামলার পর চাপের মুখে পড়েছে।

বলকান দেশগুলো (মেসিডোনিয়া, সার্বিয়া, স্লোভেনিয়া, ক্রোয়েশিয়া) জানায় গত সপ্তাহে তারা শুধুমাত্র যুদ্ধবিধ্বস্ত সিরিয়া, ইরাক, এবং আফগানিস্তান থেকে পালিয়ে আসা লোকদের জন্য তাদের সীমান্ত খুলে দেবে। দেশগুলোর এমন কড়াকড়ি আরোপ মানবাধিকার বিষয়ে উদ্বেগের সৃষ্টি করেছে।

অধিকাংশ অভিবাসী অর্থনৈতিকভাবে সমৃদ্ধ নর্দান এবং ওয়েস্টার্ন ইউরোপে বিশেষত জার্মানি ও সুইডেন যেতে চায়। অক্টোবর মাসের সর্বোচ্চ আগতদের তুলনায় নভেম্বরে জার্মানিতে আসা আশ্রয় প্রার্থীদের সংখ্যা বেড়ে যাবে বলে সোমবার দেশটির ফেডারেল পুলিশ তাদের ধারনার কথা জানায়।

তারা জানায়, এই মাসে (নভেম্বর) এখন পর্যন্ত ১ লাখ ৮০ হাজারের মতো আশ্রয় প্রার্থী জার্মানিতে প্রবেশ করেছে। গত মাসে যার সংখ্যা ছিলো ১ লাখ ৮১ হাজার।

নতুন বাধার ফলে গ্রিস থেকে মেসিডোনিয়াতে প্রবেশ করা অভিবাসীদের সংখ্যা সোমবারে হ্রাস পায় বলে এসোসিয়েটেড প্রেস (এপি) সূত্রে জানা যায়। গত দিনে ৬ হাজার জনের থেকে কমে সোমবার ২ হাজার ৯০০ জনের মতো সীমান্ত অতিক্রম করে মেসিডোনিয়ায় প্রবেশ করে বলে স্থানীয় পুলিশের বরাতে জানায় এপি।

Bangla Newspaper, Bengali News Paper, Bangla News, Bangladesh News, Latest News of Bangladesh, All Bangla News, Bangladesh News 24, Bangladesh Online Newspaper
উপরে