Deshe Bideshe

DESHEBIDESHE

Login
ইউনিজয়
ফনেটিক
English

গড় রেটিং: 2.8/5 (11 টি ভোট গৃহিত হয়েছে)

print
আপডেট : ১২-০৮-২০১৩

জঙ্গিবাদ দমনে বাংলাদেশের পাশে থাকবে সুইডেন


	জঙ্গিবাদ দমনে বাংলাদেশের পাশে থাকবে সুইডেন

স্টকহোম, ০৮ ডিসেম্বর- জঙ্গিবাদ দমনে বাংলাদেশের পাশে থাকার প্রত্যয় ব্যক্ত করেছে সুইডেন সরকার।

শুক্রবার সুইডিশ পার্লামেন্টের পররাষ্ট্র বিষয়ক সংসদীয় কমিটির উদ্যোগে ‘বাংলাদেশ অ্যাট দ্যা ক্রসরোড: সেক্যুলার ডেমোক্রেসি অর রিলিজিয়াস এক্সট্রিমিজম’ শীর্ষক এক সেমিনারের এ প্রত্যয় ব্যক্ত করেন দেশটির রাজনীতিকরা।

সেমিনারে সুইডশ ফ্রি চার্চ কাউন্সিলের সেক্রেটারি জেনারেল কারিন ভিবুন বিশ্ব মানবতার প্রতীক নেলসন ম্যান্ডেলার কথা স্মরণ করে বলেন, তিনিই হতে পারেন অনুকরণীয় বিশ্ব মানবতার একজন জ্বলন্ত প্রতীক।

দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়ায় জঙ্গি-মৌলবাদের উত্থানের কারণে বিভিন্ন সংখ্যালঘু সম্প্রদায় ছাড়াও খ্রিস্টানদের উপর যে অত্যাচারের খড়গ নেমে এসেছে, তাতে তিনি উদ্বিগ্নতা প্রকাশ করে এসব অঞ্চলে সেক্যুলার ডেমোক্রেটিক রাষ্ট্রীয় প্রথা অনুসরণের উপর গুরত্বারোপ করেন।  

জ্যাকব জনসন এমপি জানান, তার দল ও সরকার যে কোনো অপরাধীকে মৃত্যুদণ্ড দেওয়ার বিপক্ষে হলেও বাংলাদেশের আন্তর্জাতিক অপরাধ আদালতের রায় ও এর বাস্তবায়ন কীভাবে হবে, তার সিদ্ধান্ত নেওয়ার এখতিয়ার শুধু সেদেশের আইন, জনগণের উপর ন্যস্ত।

বাংলাদেশে ধর্মনিরপেক্ষ গণতন্ত্র প্রতিষ্ঠায় তার দল ভেন্সতের পার্টি বাংলাদেশ সরকারকে সর্বাত্মক সমর্থন ও সহযোগিতা দেবে বলে প্রত্যয় ব্যক্ত করেন তিনি।

ক্ষমতাসীন জোটের এমপি উলরিকা কার্লসন (মডারেট) তার বক্তব্যে বাংলাদেশে জঙ্গি-মৌলবাদের উত্থানে উদ্বেগ প্রকাশ করেন।

জঙ্গিবাদ নির্মূলে ভবিষ্যত প্রজন্মকে সঠিক শিক্ষা দেওয়ার কথা বলেন তিনি। এ ব্যাপারে তার সরকারের সর্বাত্মক সহযোগিতার আশ্বাস দেন।

সভাপতির বক্তব্যে ইসমাইল কামিল এমপি বাংলাদেশের বর্তমান রাজনৈতিক অবস্থা ও দেশটিতে জামায়াত ইসলামের জঙ্গি তৎপরতার বিষয়ে সুইডিশ সংসদে পূর্ণাঙ্গ আলোচনার জন্য উত্থাপন করবেন বলে জানান।

সেমিনারে পররাষ্ট্র বিষয়ক সংসদীয় কমিটির আহ্বায়ক ও ক্ষমতাসীন জোটের এমপি (মডারেট) ইসমাইল
কামিলের সভাপতিত্বে সূচনা বক্তব্য দেন বাংলাদেশ থেকে আমন্ত্রিত আন্তর্জাতিক অপরাধ আদালতের প্রসিকিউটর ব্যারিস্টার ড. তুরিন আফরোজ।

একাত্তরের ঘাতক দালাল নির্মূল কমিটি সুইডেন শাখার সভাপতি আকতার এম জামানের সঞ্চালনায় সেমিনারে আরও বক্তব্য রাখেন সুইডিশ ফ্রি চার্চ কাউন্সিলের সেক্রেটারি জেনারেল কারিন ভিবুন, সুইডিশ পার্লামেন্ট মেম্বার জ্যাকব জনসন (বাম), সুইডিশ পররাষ্ট্র বিষয়ক সংসদীয় কমিটির মেম্বার উলরিকা কার্লসন এমপি ও স্থানীয় বাংলাদেশ কম্যুনিটির পক্ষে স্টকহোম ক্যারোলিন্সকা ইন্সটিটিউটের গবেষক ড. ফরহাদ আলী খান।
সেমিনারের প্রথম পর্বে প্রদর্শন করা হয় বিশিষ্ট সাংবাদিক, লেখক ও ফিল্মমেকার শাহরিয়ার কবির নির্মিত প্রামাণ্যচিত্র ‘দ্য আলটিমেট জিহাদ’।

ড. ফরহাদ আলী খান সংক্ষেপে বাংলাদেশের রাজনীতির বর্তমান প্রেক্ষাপট তুলে ধরেন। বিরোধীদল বিএনপির প্রত্যক্ষ ছত্রছায়ায় কীভাবে জামায়াত ইসলাম একাত্তরের মতো বাংলাদেশে গণহত্যা চালাচ্ছে ও বাংলাদেশের অর্থনীতির ভিতকে ভেঙে দিতে বাংলাদেশের লাভজনক প্রতিষ্ঠানগুলোকে একের পর এক ধ্বংস করে দিচ্ছে তা তুলে ধরেন।

তিনি সুইডেন সরকারের কাছে আবেদন করেন জঙ্গিবাদ নির্মূল করার জন্য বাংলাদেশ সরকারের পাশে দাঁড়াতে। বিচার এড়াতে বাংলাদেশ থেকে পালিয়ে আসা কোনো যুদ্ধাপরাধীকে সুইডেনে আশ্রয় না দেওয়ার জন্যও দাবি জানান তিনি।

সূচনা বক্তব্যে ব্যারিস্টার তুরিন আফরোজ বিএনপি-জামায়াতের আন্তর্জাতিক আদালতের বিরুদ্ধে বিশ্বব্যাপী ছড়ানো প্রপাগান্ডার জবাব দিতে গিয়ে বলেন, বিচার প্রক্রিয়া যদি রাজনৈতিক উদ্দেশ্যে হতো তাহলে বর্তমান সরকারের দু’জন যুদ্ধাপরাধীর বিচার ট্রাইব্যুনালে হতো না।

তিনি ১৯৭৩ সালের বিশেষ আইনের কথা উল্লেখ করে বলেন, কোনো রায়ই এই আইনের বরখেলাপ করে দেওয়া হয়নি।

ব্যারিস্টার তুরিন জামায়াতের বিভিন্ন মিথ্যাচারের স্বরূপ ও সেগুলোর জবাবে বলেন, বিশ্বের কোথাও যুদ্ধাপরাধীদের বিচার কখনোই মানবিক দৃষ্টিকোণ থেকে করা হয়নি, যেটা বাংলাদেশের আন্তর্জাতিক অপরাধ আদালতে হচ্ছে।

ইউরোপ

আরও সংবাদ

Bangla Newspaper, Bengali News Paper, Bangla News, Bangladesh News, Latest News of Bangladesh, All Bangla News, Bangladesh News 24, Bangladesh Online Newspaper
উপরে