Deshe Bideshe

DESHEBIDESHE

Login
ইউনিজয়
ফনেটিক
English

গড় রেটিং: 3.1/5 (128 টি ভোট গৃহিত হয়েছে)

print

আপডেট : ১২-০৪-২০১৩

মুক্ত হয়ে দেশে রোমানা


মুক্ত হয়ে দেশে রোমানা

ঢাকা, ০৪ ডিসেম্বর- সকাল ৭টা বাজার কিছুক্ষণ আগ থেকে শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরের বাইরে স্বজনদের অপেক্ষা। কখন নামবে কাঙ্খিত উড়োজাহাজটি। প্রিয়জনের মুখটি দেখতে সবার অধীর আগ্রহ।

এ অপেক্ষা রোমানা আক্তারের জন্য। সেই রোমানা যিনি রিক্রুটিং এজেন্সি উইন ইন্টারন্যাশনালের প্রতারণার কারণে জর্ডানে 'বন্দী' জীবন কাটাচ্ছিলেন।

বিমানবন্দরে অপেক্ষায় ছিলেন স্বামী সাদ্দাম হোসেন, বড় বোন মাকসুদা আক্তার, চাচাত ভাই দুলালসহ পরিবারের কয়েকজন সদস্য। অবশেষে এ অপেক্ষার অবসান হলো যখন লাল সোয়েটার পরিহিত রোমানা এক পা দু'পা করে বিমানবন্দরের টার্মিনালের দিকে আসতে শুরু করেন।

দেশের মাটিতে পা দিয়েই খুঁজে ফিরছিলেন স্বজনদের মুখ। যেই দেখলেন বড় বোনকে দৌড়ে এসে জড়িয়ে ধরলেন।

মঙ্গলবার সকাল ৮টা ৩৫ মিনিটে এয়ার এ্যারাবিয়ার একটি ফ্লাইটে জর্ডান থেকে দুবাই হয়ে হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে পৌছান রোমানা আক্তার।

ফিরে এলেন রোমানা

রোমানাকে দেশে ফিরিয়ে আনতে প্রবাসী ও বৈদেশিক কর্মসংস্থান মন্ত্রণালয়ে থেকে জর্ডানে পাঠানো 'উইন ইন্টারন্যাশনাল’ নামক রিক্রুটিং এজেন্সিকে ৭ দিনের সময় বেঁধে দেয়া হয়ে। এরপর 'রোমানাকে উদ্ধারে উদ্যোগ' শিরোনামে আরো একটি প্রতিবেদন প্রকাশ করে পরিবর্তন।

পরে রোমানাকে দেশে ফেরত আনতে অভিযুক্ত রিক্রুটিং এজেন্সি উইন ইন্টারন্যাশনালের কর্মকর্তা আনোয়ার হোসেন জর্ডানে যান। গত মঙ্গলবার রোমানাকে উইন ইন্টারন্যাশনালের জর্ডানের অফিসে নিয়ে যাওয়া হয় বলে রোমানা জর্ডান থেকে টেলিফোনে জানান।

দেশে ফেরার পর বিমানবন্দরের আনুষ্ঠানিকতা শেষ করে বেরিয়ে আসার সাথে সাথে স্বজনদের পেয়ে কান্নায় ভেঙ্গে পড়েন রোমানা। তবে এ কান্নার আড়ালে লুকিয়ে ছিল এক চিলতে প্রশান্তি। এ সময় বড় বোন মাকসুদা আক্তার আদরের ছোট বোনটিকে পেয়ে জড়িয়ে ধরে আবেগে আপ্লুত হয়ে অশ্রুসিক্ত নয়নে জড়িয়ে ধরেন আদরের ছোট বোনকে। নিজের আবেগ জানিয়ে তিনি বলেন, “আমার বোনকে ফিরে পাইছি। আর কোন চিন্তা নাই। কোন দুঃখ নাই। বোইনটা উদ্ধারের জন্য বিভিন্ন মিডিয়া এবং মানবাধিকার সংস্থার দ্বারে দ্বারে ঘুরছি কিন্তু কেউ কথা রাখে নাই। আপনাদের সহযোগিতা ছাড়া রোমানাকে ফিরে পেতাম না। আল্লাহ আপনাদের ভালো করুক।”

মুক্ত হয়ে দেশে রোমানা

রোমানা কুমিল্লার দাউদকান্দির বোয়ালমারি ইউনিয়নের জামালপুর গ্রামের বাসিন্দা। দেশে ফিরেই তিনি কথা বলেন তার স্নেহময়ী মায়ের সাথে। মায়ের সাথে টেলিফোনে কথা বলতে গিয়ে বারবার কান্নায় ভেঙ্গে পড়েন রোমানা। আবেগ জড়ানো কন্ঠে তিনি তার মাকে বলেন, "মা আমি দেশে আইসা পড়ছি। আর কোন ভয় নাই। আমি আসতাছি তোমার কাছে। তোমারে খুব দেখতে ইচ্ছা করতাছে।"

ফোনের অপর প্রান্ত থেকে রোমানাকে তার মা বলেন,"সোনামানিক আমার তোর জন্য কতো কান্না করছি। তুই তাড়াতাড়ি বাড়ি ফিরে আয়। তোর পছন্দের সব খাবারগুলা রাইন্দা রাখছি।" জানান রোমানা।

এদিকে বিমানবন্দর থেকেই রোমানাকে নিয়ে দুপুরে তার পরিবার কুমিল্লার গ্রামের বাড়ির পৌছায়। মেয়েকে ফিরে পাওয়ার পর টেলিফোনে রোমানার মা খুরশিদা বেগম বলেন, “আমার মাইয়ারে আনা হইছে আমি খুব খুশী। আমার খুব স্বস্তি লাগতাছে। যেমনে হোক যেভাবে হোক আমার মাইয়া আমার বুকে ফিইরা আইছে। আমি মাইয়ার জন্য পাগল হই গেছিলাম। আপনাদের কৃতজ্ঞতা জানানোর ভাষা আমার নাই।"

 

Bangla Newspaper, Bengali News Paper, Bangla News, Bangladesh News, Latest News of Bangladesh, All Bangla News, Bangladesh News 24, Bangladesh Online Newspaper
উপরে