Deshe Bideshe

DESHEBIDESHE

Login
ইউনিজয়
ফনেটিক
English

গড় রেটিং: 3.0/5 (5 টি ভোট গৃহিত হয়েছে)

print

আপডেট : ০৯-০৯-২০১৮

বিএনপির ১৯৭ নেতাকর্মীর বিরুদ্ধে পুলিশের ৩ মামলা

বিএনপির ১৯৭ নেতাকর্মীর বিরুদ্ধে পুলিশের ৩ মামলা

নারায়ণগঞ্জ, ০৯ সেপ্টেম্বর- নারায়ণগঞ্জের তিনটি থানায় বিএনপি চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা তৈমুর আলম খন্দকার, জেলা বিএনপির সভাপতি কাজী মনিরুজ্জামান ও সাধারণ সম্পাদক মামুন মাহমুদসহ মোট ১৯৭ জন নেতাকর্মীর বিরুদ্ধে তিনটি মামলা করা হয়েছে। রবিবার (৯ সেপ্টেম্বর) রাতে নারায়ণগঞ্জ সদর, ফতুল্লা ও সিদ্ধিরগঞ্জ থানায় পুলিশ বাদী হয়ে পৃথক তিনটি মামলা করেছে।

নারায়ণগঞ্জ সদর থানার এসআই প্রবীর কুমার রায় বাদী হয়ে সরকার উৎখাত ও দেশের পরিস্থিতি অস্থিতিশীল করার অভিযোগে বিশেষ ক্ষমতা আইন ও বিস্ফোরক আইনে একটি মামলা দায়ের করেন। মামলায় শনিবার চাষাড়া থেকে আটক চার জনকে গ্রেফতার দেখানো হয়েছে। তারা হলো- হাসান (১৮), আফজাল হোসেন (৩০), হাবিবুর রহমান (৩২) ও মফিজুল (৩৫)। আসামিরা হলো- জেলা বিএনপির সভাপতি কাজী মনিরুজ্জামান মনির, জেলা বিএনপির সহ-সভাপতি অ্যাডভোকেট আবুল কালাম আজাদ বিশ্বাস, নারায়ণগঞ্জ মহানগর বিএনপির সিনিয়র সহ-সভাপতি অ্যাডভোকেট সাখাওয়াত হোসেন খান, জেলা বিএনপির সাংগঠনিক সম্পাদক মাসুকুল ইসলাম রাজীব, জেলা বিএনপির সাংগঠনিক সম্পাদক জাহিদ হাসান রোজেলসহ ২০ জন ও অজ্ঞাত আরও ২০ জন রয়েছে। নারায়ণগঞ্জ সদর মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) কামরুল ইসলাম মামলার সত্যতা নিশ্চিত করেছেন।

একই রাতে জেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক অধ্যাপক মামুন মাহমুদসহ বিএনপি ও অঙ্গ সংগঠনের ৪০ নেতাকর্মীর বিরুদ্ধে বিশেষ ক্ষমতা আইন ও বিস্ফোরক আইনে সিদ্ধিরগঞ্জ থানার এসআই আমিনুল ইসলাম-২ বাদী হয়ে সিদ্ধিরগঞ্জ থানায় আরও একটি মামলা করেন।  মামলায় দুজনকে গ্রেফতার দেখানো হয়েছে। তারা হলেন- জিয়াউদ্দিন বিজয় (৩৫) ও রমজান ভূঁইয়া (৩৮)। অন্য আসামিরা হলেন- বিএনপির কেন্দ্রীয় নির্বাহী কমিটির সদস্য ও সাবেক সংসদ সদস্য গিয়াসউদ্দিন, জেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক অধ্যাপক মামুন মাহমুদ, নুর উদ্দিন, আলী আহমেদ লালা ব্যাপারী, আলী আকবর হোসেন, নাসিক কাউন্সিলর ইকবাল হোসেন, কাউন্সিলর জিএম সাদরিল, টি এইচ তোফা, আব্দুল হাই রাজু, তৈয়ব আলী, আখিল উদ্দিন ভূঁইয়া, মাজেদুল ইসলাম, মমতাজ উদ্দিন মন্তু, জুয়েল রানা, মনিরুজ্জামান রবি, মানিক, মোক্তার হোসেন সহ ২০ জনের নামে ও  অজ্ঞাত আরও ২০ জন। সিদ্ধিরগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আব্দুস সাত্তার মিয়া মামলার সত্যতা নিশ্চিত করেছেন।

অপরদিকে বিএনপি চেয়ারপারসনের রাজনৈতিক তৈমুর আলম খন্দকার, জেলা বিএনপির সাংগঠনিক সম্পাদক জাহিদ হাসান রোজেল, ফতুল্লা থানা বিএনপির সাবেক সভাপতি খন্দকার মনিরুল ইসলাম, স্বেচ্ছাসেবক দলের সাবেক নেতা আকরাম প্রধান, যুবদল নেতা সরকার আলমসহ ৪৭ নেতাকর্মীর নাম উল্লেখ করে এবং অজ্ঞাত আরও ৭০ জনকে আসামি করে ফতুল্লা মডেল থানায় আরেকটি মামলা দায়ের হয়েছে। ফতুল্লা মডেল থানার এসআই মো. শফিউল আলম বাদী হয়ে শনিবার রাতে ওই মামলাটি দায়ের করেন। মামলায় দুই জনকে গ্রেফতার দেখানো হয়েছে। তারা হলেন- হাজী আবদুল কাদের ও ইসমাইল হোসেন।

তাদের কাছ থেকে পাঁচটি ককটেল, ১৮ পিস লোহার রড ও ১৯টি বাঁশের লাঠি উদ্ধার করা হয়েছে বলে মামলায় উল্লেখ করা হয়েছে। আসামিদের বিরুদ্ধে ৮ সেপ্টেম্বর ফতুল্লা থানার জামতলা ঈদগাহ মাঠের পশ্চিম পার্শ্বে রাস্তার ওপর নেতাকর্মীরা বিভিন্ন ধরনের অস্ত্রশস্ত্র ও বিস্ফোরক দ্রব্যে সজ্জিত হয়ে দেশকে অস্থিতিশীল ও নাশকতামূলক কর্মকাণ্ড ঘটানোর উদ্দেশ্য সমবেত হয়ে নারায়ণগঞ্জে গুরুত্বপূর্ণ স্থাপনায় হামলা, পাওয়ার হাউজ, রেলপথ উড়ানো, তেলের ডিপোতে হামলার অভিযোগ আনা হয়। ওই ঘটনাস্থল থেকেই ২ জনকে আটকের বিষয়টি উল্লেখ করা হয় মামলায়। ফতুল্লা মডেল থানার ওসি শাহ মঞ্জুর কাদের মামলার সত্যতা স্বীকার করে বলেন মামলায় দুই জনকে গ্রেফতার করা হয়েছে। বাকি আসামিদের গ্রেফতারের চেষ্টা চলছে।

তথ্যসূত্র: বাংলা ট্রিবিউন
এইচ/২২:১২/০৯ সেপ্টেম্বর

 

 

নারায়নগঞ্জ

আরও সংবাদ

Bangla Newspaper, Bengali News Paper, Bangla News, Bangladesh News, Latest News of Bangladesh, All Bangla News, Bangladesh News 24, Bangladesh Online Newspaper
উপরে