Deshe Bideshe

DESHEBIDESHE

Login
ইউনিজয়
ফনেটিক
English

গড় রেটিং: 3.0/5 (10 টি ভোট গৃহিত হয়েছে)

print

আপডেট : ০৯-০৫-২০১৮

বিদেশি শিক্ষার্থী বাড়াতে সরকারকে বিশ্ববিদ্যালয়গুলোর পরামর্শ 

বিদেশি শিক্ষার্থী বাড়াতে সরকারকে বিশ্ববিদ্যালয়গুলোর পরামর্শ 

লন্ডন, ০৫ সেপ্টেম্বর- বিদেশি শিক্ষার্থীদের জন্য ব্রিটিশ ভিসার নিয়ম পাল্টে এমন ব্যবস্থা করা উচিত যাতে তারা বিশ্ববিদ্যালয়ে স্নাতক শেষ করার পর ব্রিটেনে অবস্থান করে দুই বছর কাজের সুযোগ পায়। এমন আহ্বান জানিয়েছে ব্রিটেনের বিশ্ববিদ্যালয়গুলোর কর্তৃপক্ষ।

ব্রিটেনের সরকারকে আহবান জানিয়ে বিশ্ববিদ্যালয়গুলো বলছে, যাতে বিদেশি শিক্ষার্থীদের জন্য ব্রিটিশ ভিসার নিয়ম পরিবর্তন করা হয়।

ব্রিটিশ ভিসার নিয়ম পরিবর্তন না করতে পারলে বিদেশি শিক্ষার্থীরা ব্রিটেনের পরিবর্তে বেশিরভাগ যুক্তরাষ্ট্র, কানাডা এবং অস্ট্রেলিয়াকে বেছে নিবে বলে মনে করেন তারা।

উল্লেখ্য, বর্তমানে বিদেশি শিক্ষার্থীরা ব্রিটেনের অর্থনীতিতে প্রতিবছর ২৬ বিলিয়ন পাউন্ড অবদান রাখছে।

বিদেশি শিক্ষার্থীদের পছন্দের তালিকায় এখন ব্রিটেনকে টপকে অস্ট্রেলিয়া দ্বিতীয় অবস্থানে উঠে এসেছে যা এক পরিসংখ্যানের তথ্যে উঠে এসেছে।

এদিকে ব্রিটেনের অভিবাসন বিষয়ক উপদেষ্টা কমিটি চলতি মাসেই সরকারের কাছে একটি প্রতিবেদন জমা দেবে। যাতে দেশটিতে বিদেশি শিক্ষার্থীদের অবস্থা সম্পর্কে তুলে ধরা হবে। এছাড়া ব্রিটেনের সরকারকে অভিবাসন বিষয়ক স্বাধীন পরামর্শের কথাও বলা হয়েছে প্রতিবেদনে।

ব্রিটেনের সরকার অভিবাসন বিষয়ক আইন পরিবর্তনের পর বিদেশি শিক্ষার্থীদের পড়াশুনা শেষে কাজ করতে পারার বিধান বাতিল হয়ে যায়। ২০১২ সালে এ আইন পরিবর্তন করে।

যদিও স্নাতক পাশ করার পর শিক্ষার্থীরা ব্রিটেনে থাকতে পারে। তবে তারা কত উপার্জন করতে পারবে সেটির সীমা নির্ধারণ করা আছে। ফলে দেশি শিক্ষার্থীরা ব্রিটেনে পড়ার আগ্রহ হারাবে।

অথচ আমেরিকা, অস্ট্রেলিয়া এবং কানাডার বিশ্ববিদ্যালয়গুলোতে পড়তে যাওয়া বিদেশি শিক্ষার্থীরা স্নাতক পাশ করার পর কাজ করার সুযোগ পায়।

এদিকে এ বিষয়ে ব্রিটেনের বিশ্ববিদ্যালয়গুলোর সংগঠন ‘ইউনিভার্সিটি ইউকে’-এর অধ্যাপক স্যার স্টিভ স্মিথ বলেন, পৃথিবীর বিভিন্ন দেশে বিদেশি শিক্ষার্থীদের যে সংখ্যা বাড়ছে সেখান থেকে বঞ্চিত হচ্ছে ব্রিটেন।

ব্রিটেনে বিদেশি শিক্ষার্থীরা ছাত্র ভিসার মাধ্যমে অনেকে অভিবাসনের জন্য পেছনের দরজা ব্যবহার করছেন এ ধরণের দাবি সত্য নয় দাবি করে তিনি বলেন, এ ধরনের দাবি সত্য নয়।

তিনি বলেন, গবেষণায় দেখা গেছে ব্রিটেনে পড়তে আসা বিদেশি শিক্ষার্থীদের ৯৮ শতাংশ ভিসার শর্ত মেনে চলেছে।

তিনি জানান, বিদেশি শিক্ষার্থী কমে যাবার কারণে শুধু যে আর্থিক ক্ষতি হচ্ছে, তা নয়। এর ফলে আন্তর্জাতিক অঙ্গনে ব্রিটেনের প্রভাব যেমন কমে যাবার ঝুঁকি তৈরি হয়েছে, তেমনি ব্রিটেনে গবেষণার জন্য জ্ঞানের ঘাটতিও তৈরি হবে।

উল্লেখ্য, গত এক দশকে ব্রিটেনে বিদেশি শিক্ষার্থীদের সংখ্যা বেড়েছে মাত্র তিন শতাংশ। অথচ আমেরিকায় বেড়েছে ৪০ শতাংশ, অস্ট্রেলিয়ায় ৪৫ শতাংশ এবং কানাডায় বেড়েছে ৫৭ শতাংশ।

তথ্যসূত্র: বিডি২৪লাইভ
আরএস/ ০৫ সেপ্টেম্বর

Bangla Newspaper, Bengali News Paper, Bangla News, Bangladesh News, Latest News of Bangladesh, All Bangla News, Bangladesh News 24, Bangladesh Online Newspaper
উপরে