Deshe Bideshe

DESHEBIDESHE

Login
ইউনিজয়
ফনেটিক
English

গড় রেটিং: 3.3/5 (61 টি ভোট গৃহিত হয়েছে)

print

আপডেট : ০৫-১২-২০১৮

যে অভ্যাসে এমনিতেই কমবে ওজন

যে অভ্যাসে এমনিতেই কমবে ওজন

শরীরের ওজন বেড়েই চলেছে, আর সেটা কোনো কারণ ছাড়াই! অতিরিক্ত এই ওজন অনেকের কাছেই অভিশাপ মনে হয়। কোনো কিছুতেই যেন কমতে চায় না ওজন। ডায়েট, ব্যায়াম, খাবারের নিয়ন্ত্রণ ও হাটাহাটি অনেক সময়ই ওজন কমানোর জন্য এগুলো যথেষ্ট নয়। তাই ব্যক্তিগত জীবনে কিছু অভ্যাস তৈরি করলে আপনার ওজন এমনিতেই কমতে থাকবে।

রিডার্স ডাইজেস্ট অবলম্বনে চলুন জেনে নেই, যেসব অভ্যাসে কমবে আপনার ওজন-

১. আপনার প্রতিদিনের খাদ্য তালিকায় রাখুন ক্যালসিয়াম আর ভিটামিন সি। এসব ভিটামিনযুক্ত খাবার খাওয়ার অভ্যাস করলে আপনার ওজন এমনিতেই কমতে থাকবে। এর পাশাপাশি নিয়মিত ডায়েট ও ব্যায়াম করার চেষ্টা করুন।

২. প্রতিদিনই কায়িক পরিশ্রম করার চেষ্টা করুন। অফিসে বসে কাজ করছেন? ১ ঘণ্টা পরপর ৫ মিনিটের একটা বিরতি নিয়ে হেটে আসুন।

৩. ওজন বেড়ে যাচ্ছে এ কারণে বুদ্ধি মত্তার সাথে সকালে নাস্তা করুন। বিকালের নাস্তায় কোনো ভারি খাবার রাখবেন না। খুবই কম ক্যালোরি কিন্তু পুষ্টি বেশি আছে এ রকম নাস্তা করুন।

আরও পড়ুন: শুধু অভ্যাস পরিবর্তনেই ওজন কমলো ৮০ কেজি!

৪. ঘুম কম হলে ল্যাপ্টিন এবং ঘেরলিন নামক দুইটি হরমোনের পরিমাণ বাড়ে যেটার মাধ্যমে আপনার ক্ষিধা আরো বেড়ে যাবে। তাই প্রতিদিন ৮ ঘণ্টা অবশ্যই ঘুমাতে হবে। ঘুমে ঘুমে কমবে চর্বি। মনে রাখতে হবে, ঘুম কম হলে আপনি ব্যায়াম করুন আর খাবার কম খান, যাই করেন না কেন কিছুতেই ওজন কমবে না।

৫. প্রতিদিন একই ব্যায়াম করেন, নিশ্চিত থাকুন যথাযথ ফল পাবেন না আপনি। ২-৩ মাস পরপর ব্যায়ামের ধরন পাল্টিয়ে ফেলুন। অনেক পুষ্টিবিদ কার্ডিও ওয়ার্কআউট কম করতে বলেছেন। কারণ কার্ডিও ওয়ার্কআউট করলে অতিরিক্ত ক্ষিধা লাগে এবং আপনাকে মুটিয়ে দেয়।

৬. প্রতিদিন নগর জীবনে খাবারের সাথে আপনার অজান্তেই শরীরে ঢুকে যাচ্ছে প্লাস্টিক, কীটনাশক, মেলামাইনসহ আরো অনেক ক্ষতিকারক দ্রব্য। এগুলো থেকে বাঁচার জন্য অর্গানিক খাবার খাওয়ার অভ্যাস করুন। এক্ষেত্রে জীবানুমুক্ত খাবার খাওয়ার অভ্যাস গড়ে তুলতে হবে।

৭. ওজন কমাতে শুধুমাত্র ব্যায়ামের উপর নির্ভর করে থাকলে হবে না। ওজন কমানো শুধু ব্যায়ামের উপর নির্ভরশীল নয়, ব্যায়ামের সাথে ডায়েট, পরিমিত ঘুম, স্বাস্থ্যকর জীবনযাপন সব মিলিয়েই আপনার ওজন কমাতে সাহায্য করে।

৮. প্রতিদিন প্রাণ খুলে হাসুন। হাসি রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণে সাহায্য করে। হার্টের রোগীদের যেমন নিয়মিত হাসি দরকার, তেমনই প্রাণ খুলে হাসলে হৃদরোগের সম্ভাবনা অনেকটাই কমে যায়। হাসি সবার অজান্তেই শরীরের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়িয়ে দেয়। হাসির থেকে শরীরে ‘টি-সেল’-এর পরিমাণ বাড়ে। এটাই শরীরকে বাড়তি ক্ষমতা জোগায়। এছাড়া হাসি খুশি মানুষের আয়ু বেশি হয়। 

আরও পড়ুন: এক ঘি এর জাদুতেই ওজন কমল ৪০ কেজি!

হাসি ক্লান্তি দূর করে, জীবনের আনন্দ বাড়িয়ে দেয়। প্রতিদিন ১০ থেকে ১৫ মিনিট প্রাণ খুলে হাসলে পর্যাপ্ত ক্যালরি ক্ষয় হয়। আর ১ ঘণ্টা হাসলে আপনার শরীরের ১২০ ক্যালরি ক্ষয় হয়। শরীরের মেদ ঝরানোর জন্য দীর্ঘ সময় ধরে হাঁটলে যে কাজ হয় তার সমান কাজ হতে পারে প্রাণ খুলে হাসতে পারলে। তাছাড়া হাসি প্রাকৃতিক ভাবে শরীরে মেটাবোলিজম বাড়ায় যা শরীর থেকে বাড়তি ক্যালরি ক্ষয় করে ওজন কমাতে খুবই সাহায্য করে।

৯. পছন্দ সই কোনো ব্যায়াম করুন। শরীরের ওজন কমানোর জন্য যে ব্যায়ামটি করলে আপনি ক্লান্তিতে ভেঙ্গে পড়েন সেই ব্যায়ামটি বাদ দিন। নতুন ব্যায়াম করুন যেটা আপনার ভালো লাগে এবং সাথে ওজন কমে।

তথ্যসূত্র: বিডি২৪লাইভ
আরএস/০৯:০০/ ১২ মে

শরীর চর্চা

আরও সংবাদ

Bangla Newspaper, Bengali News Paper, Bangla News, Bangladesh News, Latest News of Bangladesh, All Bangla News, Bangladesh News 24, Bangladesh Online Newspaper
উপরে