Deshe Bideshe

DESHEBIDESHE

Login
ইউনিজয়
ফনেটিক
English

গড় রেটিং: 3.0/5 (51 টি ভোট গৃহিত হয়েছে)

print

আপডেট : ০৩-০৪-২০১৮

মুখ্যমন্ত্রী মানিককে বাংলাদেশে চলে যেতে বললেন বিজেপি নেতা

মুখ্যমন্ত্রী মানিককে বাংলাদেশে চলে যেতে বললেন বিজেপি নেতা

ত্রিপুরা, ০৪ মার্চ- ভারতের ত্রিপুরা রাজ্যে লাল দুর্গ উড়িয়ে দিয়ে আত্মবিশ্বাসী বিজেপি নেতা এবার বিদায়ী মুখ্যমন্ত্রী মানিক সরকারকে এলাকা ছাড়ার পরামর্শ দিয়েছেন। সে ক্ষেত্রে তাঁকে পশ্চিমবঙ্গ, কেরালা বা বাংলাদেশে চলে যেতে পরামর্শ দিলেন বিজেপির নেতা হিমন্ত বিশ্ব শর্মা।

এদিকে এ ধরনের মন্তব্যকে কুরুচিপূর্ণ উল্লেখ করে ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন সিপিএম নেতারা। আজ রোববার পদত্যাগপত্র জমা দেওয়ার সময় এ ব্যাপারে মানিক সরকারের দৃষ্টি আকর্ষণ করা হলে তিনি কোনো মন্তব্য করেননি।

কংগ্রেস ছেড়ে তিন বছর আগে বিজেপিতে যোগ দেওয়া হিমন্ত বিশ্ব শর্মাকে উত্তর-পূর্ব অঞ্চলে বিজেপির জয়ের অন্যতম নায়ক হিসেবে ধরা হয়। অপ্রত্যাশিতভাবে সিপিএমের টানা ২৫ বছরের শাসনের অবসান ঘটিয়ে শূন্য থেকে শাসকের আসনে উন্নীত হয়েছে বিজেপি। গতকাল শনিবার ভোট গণনায় জয় নিশ্চিত হওয়ার পর হিমন্ত বিশ্ব শর্মা বিদায়ী মুখ্যমন্ত্রী মানিক সরকারের প্রতি তাচ্ছিল্য প্রকাশ করে তাঁকে ত্রিপুরা ছেড়ে চলে যেতে বলেন।

গতকাল এনডিটিভি অনলাইনের খবরে বলা হয়, ৬৯ বছর বয়সী মানিক সরকার টানা ২০ বছর ত্রিপুরার মুখ্যমন্ত্রীর দায়িত্ব পালন করেছেন। তাঁর উদ্দেশে হিমন্ত শর্মা বলেন, ‘মানিক সরকারের সামনে এখন তিনটি পথ খোলা আছে। তিনি পশ্চিমবঙ্গে চলে যেতে পারেন, যেখানে সিপিএমের কিছু অস্তিত্ব আছে। তিনি কেরালাও চলে যেতে পারেন, সেখানে তাঁর দল ক্ষমতায় এবং আরও তিন বছর তাদের শাসনের মেয়াদ আছে। অথবা তিনি প্রতিবেশী রাষ্ট্র বাংলাদেশে চলে যেতে পারেন।’

গত ১৮ ফেব্রুয়ারি ত্রিপুরা, মেঘালয় ও নাগাল্যান্ডে বিধানসভা নির্বাচন হয়। গতকাল ভোট গণনা শেষে তিন রাজ্যের ফল ঘোষণা করা হয়। ত্রিপুরায় ক্ষুদ্র জাতিসত্তার দল ইনডিজেনাস পিপলস ফ্রন্ট অব ত্রিপুরার (আইপিএফটি) সঙ্গে জোট বেঁধে বিজেপি ৪৩টি আসন পায়। এর আগে কখনো সেখানে কোনো আসন পায়নি দলটি। অপর দিকে টানা ২৫ বছর ধরে ক্ষমতায় থাকা সিপিএম মাত্র ১৬টি আসনে জয় পেয়েছে। ত্রিপুরা বিধানসভায় মোট আসন ৬০টি। হাড্ডাহাড্ডি লড়াইয়ের পর মানিক সরকার তাঁর আসন ধনপুরে জয় পেয়েছেন।

তবে দলের এক নেতা এমন ঔদ্ধত্যপূর্ণ মন্তব্য করলেও শিষ্টতার পরিচয় দিয়েছেন দলের আরেক নেতা বিপ্লব কুমার দেব। বলা হচ্ছে, তিনি হতে যাচ্ছেন ত্রিপুরার নতুন মুখ্যমন্ত্রী।

আজ আনন্দবাজার পত্রিকার অনলাইনের খবরে বলা হয়, প্রয়াত সিপিএম নেতা খগেন্দ্র জামাতিয়ার মরদেহ নিয়ে আসা হয়েছিল দলের কার্যালয়ে। সেখানে তাঁকে শ্রদ্ধা জানাতে যান বিপ্লব দেব। সে সময় তিনি মানিক সরকারের আশীর্বাদও নেন। সিপিএম কার্যালয় থেকে বেরিয়ে তিনি বলেন, ‘গণতন্ত্রে হারজিৎ থাকবেই। মানিক সরকার আমার দাদার মতো। তাঁকে শ্রদ্ধা করি, তাঁর পরামর্শও নেব।’ তিনি দলের নেতা-কর্মীদের কারও প্রতি বিদ্বেষমূলক আচরণ না করার অনুরোধ জানান।

আরও পড়ুন: চাঁদপুরের সন্তান হতে যাচ্ছেন ত্রিপুরার মুখ্যমন্ত্রী

এদিকে হিমন্তের মন্তব্য নিয়ে ক্ষুব্ধ প্রতিক্রিয়া জানিয়ে সিপিএমের কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য গৌতম দাশ বলেন, ‘বিজেপির নেতাদের এ ধরনের কথার উত্তর দিতে রুচিতে বাধে।’

তবে যাঁকে নিয়ে এই আলোচনা, সাদামাটা জীবন যাপনের জন্য খ্যাত মানিক সরকার কোনো মন্তব্য করতে রাজি হননি। আজ তিনি রাজ্যপালের কাছে পদত্যাগপত্র জমা দিয়েছেন। পরবর্তী মুখ্যমন্ত্রী দায়িত্ব না নেওয়া পর্যন্ত রাজ্যপাল তাঁকে দায়িত্ব পালনের অনুরোধ করেছেন। রাজভবন থেকে বেরিয়ে যাওয়ার সময় মানিক সরকার সাংবাদিকদের বলেন, ‘২০ বছর সরকার চালিয়েছি। অসংখ্য মানুষ সাহায্য করেছেন। তাঁদের ধন্যবাদ।’

সূত্র: প্রথম আলো
এমএ/ ১০:০০/ ০৪ মার্চ

ত্রিপুরা

আরও সংবাদ

Bangla Newspaper, Bengali News Paper, Bangla News, Bangladesh News, Latest News of Bangladesh, All Bangla News, Bangladesh News 24, Bangladesh Online Newspaper
উপরে