Deshe Bideshe

DESHEBIDESHE

Login
ইউনিজয়
ফনেটিক
English

গড় রেটিং: 3.0/5 (72 টি ভোট গৃহিত হয়েছে)

print
আপডেট : ০৩-০৪-২০১৮

বিদ্রোহীর নজরুল :একটি প্রাতিস্বিক গ্রন্থ

ড. রহমান হাবিব


বিদ্রোহীর নজরুল :একটি প্রাতিস্বিক গ্রন্থ

তিনি বিদ্রোহী আর যৌবনের, প্রেম আর গানের কবি- এমন সুভাষণে ভূষিত নজরুল ইসলামকে নিয়ে আলোচনা সুপ্রচুর। কিন্তু, বিশ শতকের কবি-ভাবনার গভীরে কিছু দর্শন খোঁজার এষণা খুব কি একটা হয়েছে? বাংলার অন্যান্য কবি-লেখকের ব্যাপারে অনেকটাই হয়েছে; কিন্তু নজরুল ইসলামের বেলায় এমনটি মনে হয় দুর্নিরীক্ষ। স্বল্পালোকিত এই ক্ষেত্রটিতে আলোকপাতের জন্য এগিয়ে এসেছেন কাব্যবোদ্ধা দার্শনিক একজন। যে বিশেষণে নজরুল সমধিক পরিচিত, সেই 'বিদ্রোহী'কেই লেখক সূচ্যগ্রে স্থাপন করেন এবং অগ্নি-পূরিত করে তার বক্তব্যের বিশুদ্ধতা তুলে ধরেন। প্রথমে যে বালকের মক্তবি-শিক্ষায় জীবন শুরু, উত্তরকালে যাকে মৌলবাদীরা 'কাফের' বলতে বিলম্ব করে না, শ্যামাসঙ্গীত রচনা করে যে কবি সনাতনধর্মী জনগণের প্রাণ কাড়েন, বিদ্রোহী কবিতার বিভিন্ন চরণে যিনি ক্ষণে-ক্ষণে সৃষ্টিকর্তার মহাশক্তি-দৃষ্টের ধৃষ্টতা ধারণ করেন বলে ভ্রম হয়; তাকেই যদি লেখক প্রসৃত করেন 'কোরানিক জ্ঞানের মৌল-তাৎপর্যকে ব্যবহার করে কাব্য রচয়িতা হিসেবে'; তা হলে দর্শন-চিন্তার নতুন মাত্রিকতায় পাঠক সচকিত হতেই পারেন। বিশ্ববিদ্যালয়ের দর্শন বিভাগের সাবেক অধ্যাপক আ.ফ.ম. উবায়দুর রহমানের 'বিদ্রোহী-ও নজরুল :কাব্য-ভাবনার সূত্র, সংগতি ও পরিণতি' (ঢাকা, ভোরের শিশির, ২০১৭) গ্রন্থটি মূলত নজরুলের কাব্য-ভাবনার সূত্র, সঙ্গতি ও পরিণতি নির্দেশক একটি পুস্তিকা। দার্শনিক ও দর্শন চর্চাকারী বলেই তার চিন্তাসূত্র দর্শনসম্পৃক্ত। যুক্তি ও চিন্তাসাম্যের উচ্চাঙ্গতা দিয়ে বিদ্রোহী কবিতাটিকে বিচার- বিশ্নেষণ ও মূল্যায়ন করেছেন তিনি।

প্রথম প্রবন্ধ 'বিদ্রোহী'র নজরুল :কাব্য-ভাবনার সূত্র ও সঙ্গতি' নাম থেকেই বিষয় ও বক্তব্য স্পষ্ট। বাকি তিনটি প্রবন্ধে মূলত নজরুলের কাব্যচিন্তার পরিণতি অনুসন্ধান করেন লেখক। কাজী আবদুল ওদুদ 'অগ্নিবীণা'কে 'অনেকখানি কাব্য হিসেবে অকিঞ্চিৎকর' বলেছেন। অজিত দত্ত ও বুদ্ধদেব বসু, 'প্রগতি'তে বলেছেন, 'এর অধিকাংশ ফাঁকা আওয়াজ'। লেখক উপর্যুক্ত সমালোচকদের বক্তব্য যে যথাযথ নয়, তা কোরআনিক যুক্তির মাধ্যমে তুলে ধরার চেষ্টা করেছেন। 'বিদ্রোহী' পড়ে যারা নজরুলের বিদ্রোহী হয়েছেন, তাদের জবাবে নজরুল লিখেছেন- তারা হাফিজ-রুমীকে শ্রদ্ধা করেন বলে নজরুল মনে করেন না। কারণ নজরুল তার থেকেও তাদেরকে বেশি বিদ্রোহী মনে করেন। মানুষের ইচ্ছার স্বাধীনতার বিষয়টি রুমী তার 'মসনবী' শরীফে আদম ও ইবলিশের ঘটনা উল্লেখের মাধ্যমে কয়েকবার ব্যক্ত করেছেন। এটি জানা থাকা নজরুলের জন্য কঠিন ছিল না। তা ছাড়া নজরুল কোরআনের আম-পারা অনুবাদ করেছেন। নজরুলের অনেক গানে সরাসরি কোরআনের আয়াত ব্যাখ্যাত হয়েছে। আদমকে সৃষ্টি করে তাকে নিষিদ্ধ ফলের গাছের কাছে যেতে নিষেধ করার মাধ্যমে তার ইচ্ছার স্বাধীনতাকে পরীক্ষা করা হয়েছে। কোরআনের ইবলিশ বিদ্রোহী; তার বিদ্রোহ শূন্যগর্ভ। নজরুলের বিদ্রোহের ব্যবহারিক ও তাত্ত্বিক- উভয় দিককেই লেখক প্রতিপাদিত করেছেন। পৃথিবীতে ন্যায় ও শৃঙ্খলাকে প্রতিষ্ঠা করে নজরুল তার বিদ্রোহী কবিতায় দায়িত্বশীলতার পরিচয় দিয়েছেন। ভৃগু বিষ্ণুকে শ্রেষ্ঠ এবং একমাত্র উপাসনার যোগ্য বলায় ভৃগুর মাধ্যমে যে একেশ্বরবাদকে প্রতিষ্ঠা দিয়ে নজরুল তৌহিদ বা আল্লাহর একাত্মবাদকেই পরম গুরুত্ব দিয়েছেন, তা লেখক বলেছেন। হিন্দু ধর্মের প্রসঙ্গ এনে নজরুল বরং একক আল্লাহর প্রভুত্ব করার বিষয়টিকেই প্রতিপাদিত করতে চেয়েছেন। আদমকে (আ.) স্বাধীন ইচ্ছা ও জ্ঞান উভয়ই দেওয়া হয়েছে। নজরুলও তার বিদ্রোহে ইচ্ছা ও জ্ঞানকে সমীকৃত করতে পেরেছেন বলেই আত্ম-আবিস্কারের শক্ত ঘোষণা দিতে সমর্থ হয়েছেন। বিদ্রোহী কবিতার ৫৯-৮৫ এবং ১০১-১০৫ সংখ্যক চরণে যে প্রেমের অবিস্মরণীয়তার কথা লিখেছেন, তা-ও মানুষের প্রতি আল্লাহর ভালোবাসাময়তার অবলেপের সমান্তরালতার ইঙ্গিতবাহী বলে লেখক খুব তীক্ষষ্ট মন্তব্য করেছেন।

বিদ্রোহীর সূত্র সম্পর্কিত কিছু বিপরীত ভাবনা দ্বিতীয় অধ্যায়ের প্রতিপাদ্য। পাশ্চাত্যের অ্যানলাইনমেন্টের বুদ্ধিবৃত্তিক সুমিতিকে নজরুল আবেগের প্রাবল্যেও তুঙ্গতাকে স্পর্শ করেন এবং বিদ্রোহীর মধ্যে অনেকটাই ধারণ করেন। হুইটম্যানের ঝড়হমং ড়ভ গুংবষভ কবিতায় গ্রিক জীবনবোধের উপস্থিতি এবং মার্কিন গণতন্ত্রের ভাষ্য রয়েছে। তৃতীয় বিশ্বের দরিদ্র বাংলায় গ্রিক জীবনের সুমিতি ও মার্কিন গণতন্ত্রেও সৌষম্য প্রয়োগযোগ্য নয় বলেই নজরুলের বিদ্রোহীতে তা কল্পনা যৌক্তিক নয়; তবে হুইটম্যানের মরমিবাদের সঙ্গে নজরুলীয় মরমিবাদেও সামীপ্য কল্পনা করা যায়। তবে হুইটম্যানের চেয়ে ইকবাল, রুমী, জামী, সাদীর মরমিবাদ ধারায় নজরুল যে বেশি প্রাণিত- লেখকের এ বক্তব্যকে সাদরে স্বাগত জানাতে হয়। তাই লেখকের ভাষ্য :'কবি হিসেবে নজরুলের সঙ্গে হুইটম্যানের তুলনাকে তাই যুক্তিবিদ্যার ভাষায় মন্দ উপমার দৃষ্টান্ত বলা চলে' (পৃষ্ঠা-৩৭)। 

তৃতীয় অধ্যায়ে 'দার্শনিক-কবি নজরুল :বিদ্রোহীর একটি অপ্রচলিত মূল্যায়ন' আসলে মেটাফিজিক্স বা অধিবিদ্যাতে মানব ও স্র্রষ্টার অস্তিত্বেও বিষয়ক। ভাষাদর্শন বিশ্নেষণী দর্শনবিশেষ; কারণ ভাষার স্পষ্টতা ও অস্পষ্টতার ওপর বক্তব্য বোঝা-না বোঝা নির্ভর করে। 'বিদ্রোহী'তেও জীবন ও জগতের মূল প্রসঙ্গ সম্পর্কে যুগপৎ আবেগিক ও বুদ্ধিবৃত্তিক সিদ্ধান্ত প্রদান করেন বলেই লেখক কবিকে দার্শনিক-কবি হিসেবে অভিহিত করেছেন। বিশ্ব ছাড়ায়ে একা সর্বোচ্চে উঠে যাওয়ার মধ্যে আসলে 'স্রষ্টার ভালোবাসা ও শক্তিকে ধারণ' করেই স্রষ্টাজ্ঞানময় হওয়ার আকাঙ্ক্ষাই অভিব্যক্ত হয়। এটিকে কেউ স্ববিরোধী মনে করলে অজ্ঞেয়বাদীর তকমা তাকে দুর্ভাগ্যজনকভাবে বহন করেই জীবনকে নির্বাহ করে যেতে হবে বলে লেখক সুগভীর দার্শনিক মন্তব্য করেন। চতুর্থ বা শেষ অধ্যায়ে 'বিদ্রোহীর তত্ত্বগত পরিণতি : নজরুল ও তার প্রতিবাদী মানবতাবাদ'-এর কথা আছে। তার সাহিত্যচর্চার অবেক্ষাকালেই যে বিদ্রোহী রচনার মাধ্যমে মানুষ ও তার নিয়তিকে সবার ঊর্ধ্বে স্থান দিয়ে জীবনের দর্শনকে বিনির্মাণ করেছেন, তাই এটি আসলে তার সাহিত্যচিন্তার ভিত্তিভূমি বলে মানতে হয়। ১৯২০-এর দশকে তিনি যখন মানবতার কথা লিখছেন তখন পেশাদার দার্শনিকরা মানবতাবাদের ব্যাপারে আগ্রহান্বিত ছিলেন না। সে জন্য বাংলায় মানবতাবাদ প্রচারে নজরুলকে পথিকৃৎ বলতে হয়। 

একটি সুলিখিত, চিন্তাসমৃদ্ধ, দর্শনশৃঙ্খলা সম্পৃক্ত ও প্রাতিস্বিক গ্রন্থ রচনার জন্য লেখক অবশ্যই বাঙালি পাঠকের অভিনন্দন পাওয়ার যোগ্য। া

লেখক
আ.ফ.ম. উবায়দুর রহমান
প্রকাশক
ভোরের শিশির
প্রকাশকাল
২০১৭

সূত্র: সমকাল
এমএ/ ১০:৩৩/ ০৪ মার্চ

বইপত্র

আরও লেখা

Bangla Newspaper, Bengali News Paper, Bangla News, Bangladesh News, Latest News of Bangladesh, All Bangla News, Bangladesh News 24, Bangladesh Online Newspaper
উপরে