Deshe Bideshe

DESHEBIDESHE

Login
ইউনিজয়
ফনেটিক
English

গড় রেটিং: 3.0/5 (1 টি ভোট গৃহিত হয়েছে)

print

আপডেট : ০৭-২৬-২০১৭

জাল মুক্তিযোদ্ধা সনদে চাকরি, প্রমাণের পরও স্বপদে বহাল

জাল মুক্তিযোদ্ধা সনদে চাকরি, প্রমাণের পরও স্বপদে বহাল

পাবনা, ২৬ জুলাই- জাল মুক্তিযোদ্ধা সনদে চাকরি নিয়েও বহাল তবিয়তে রয়েছেন পাবনা সরকারি বালিকা বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক তায়জুল ইসলাম। জেলা শিক্ষা অফিসারের তদন্তেও তার প্রমাণ মিলেছে। পিতার মুক্তিযোদ্ধা সনদের স্বপক্ষে গ্রহণযোগ্য কোনো দালিলিক প্রমাণ দিতে পারেননি তায়জুল। প্রতারণার আশ্রয় নিয়ে ২০০৬ সালে মুক্তিযোদ্ধা কোটায় চাকরিতে যোগদানের দশ বছরেও তার বিরুদ্ধে প্রশাসনিক ব্যবস্থা না নেওয়ার অভিযোগ করেছেন অনেকে।

এ বিষয়ে গত ৩০ এপ্রিল, 'জাল সনদে সরকারি চাকরিতে দশ বছর' শিরোনামে সংবাদ প্রকাশ হলে তা ব্যপক আলোচিত হয়। গত ৪ জুলাই এ বিষয়ে প্রতিবেদন জমা দিয়েছেন জেলা শিক্ষা অফিসার নাসির উদ্দিন।

চাটমোহর উপজেলার অষ্টমনিষা মির্জাপুর গ্রামের আব্দুল আজিজ প্রামাণিকের ছেলে তায়জুল ইসলাম মুক্তিযোদ্ধা সন্তান পরিচয় দিয়ে মুক্তিযোদ্ধা কোটায় ২০০৬ সালে ৩২ বছর বয়সে পাবনা সরকারি বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ে সহকারী শিক্ষক পদে যোগদান করেন। অদ্যাবধি তিনি এ পদে কর্মরত রয়েছেন।

ভুল তথ্য দিয়ে অমুক্তিযোদ্ধা পিতার সন্তান মুক্তিযোদ্ধা কোটায় চাকরি নেওয়ার পাবনায় শহরের গোবিন্দা এলাকার আব্দুল হাইয়ের অভিযোগের ভিত্তিতে আইনজীবী রফিকুল আলম দিপুর মাধ্যমে ২০১৬ সালের ৭ ডিসেম্বর তায়জুল ইসলামকে লিগ্যাল নোটিশ দেওয়া হয়। নোটিশে উল্লেখ করা হয়েছে ২০১১ সালের বাংলাদেশ মুক্তিযোদ্ধা সংসদ কেন্দ্রীয় কমান্ড কাউন্সিলের তালিকায় তায়জুলের পিতা আব্দুল আজিজ প্রামানিকের নাম উল্লেখ নেই। তিনি ভুল তথ্য দিয়ে সরকারি চাকরি গ্রহণ করায় ওই পদে অনেক প্রকৃত মুক্তিযোদ্ধার সন্তান মৌখিক পরীক্ষায় অংশ নিয়ে চাকরি বঞ্চিত হয়।

বাংলাদেশ মুক্তিযোদ্ধা সংসদ চাটমোহর উপজেলা কমান্ড কাউন্সিল সূত্রে জানা যায়, সংক্ষুব্ধ মহলের অভিযেগের প্রেক্ষিতে বাংলাদেশ মুক্তিযোদ্ধা সংসদের মহাসচিব (প্রশাসন) আব্দুল আজিজ প্রামাণিকের মুক্তিযোদ্ধা পরিচয় নিশ্চিত হবার জন্য চিঠি দেন। ২০১১ সালের তালিকায় নাম না থাকায় আব্দুল আজিজ সম্প্রতি মুক্তিযোদ্ধা তালিকাভুক্ত হতে আবেদন করেন।

এদিকে পাবনা সরকারি বালিকা বিদ্যালয় সূত্রে জানা যায়, ভূয়া সনদে মুক্তিযোদ্ধা কোটায় তায়জুলের চাকরির বিষয়টি তদন্তে জেলা শিক্ষা অফিসার নাসির উদ্দিনকে দায়িত্ব দেওয়া হয়। তদন্ত শেষে গত ৪ জুলাই পাবনা জেলা প্রশাসকের নিকট তদন্ত প্রতিবেদন জমা দেওয়া হয়।

তদন্ত প্রসঙ্গে জেলা শিক্ষা অফিসার নাসির উদ্দিন জানান, বেশ কয়েকবার সময় দেওয়ার পরও পাবনা সরকারি বালিকা বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক তায়জুল ইসলাম তার পিতা আব্দুল আজিজ প্রামাণিকের মুক্তিযোদ্ধা সনদের স্বপক্ষে গ্রহণযোগ্য কোনো দালিলিক প্রমাণ দেখাতে পারেননি। তাড়াশ উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার সাক্ষরিত একটি প্রত্যয়নপত্র জমা দিলেও, জাতীয় মুক্তিযোদ্ধা কাউন্সিল প্রদত্ত সংজ্ঞার শর্তাবলী পূরণ হয়নি। মুক্তিবার্তা তালিকা, ভারতীয় তালিকা কিংবা প্রধানমন্ত্রী প্রতিস্বাক্ষরিত সনদের কোনটিই তার নেই। কিন্তু এ বিষয়ে সিদ্ধান্ত গ্রহণে জেলা মুক্তিযোদ্ধা সংসদ বরাবর বার বার চিঠি দিয়েও উত্তর পাওয়া যায়নি।

সনদ জালিয়াতি করে চাকরি নেওয়া এ শিক্ষকের বিরুদ্ধে অভিযোগ প্রমাণিত হলেও অজ্ঞাত কারণে তার বিরুদ্ধে কোনো ব্যবস্থা নেওয়া হয়নি। বরং তিনি তার কর্মস্থলে নিজ পদে বহাল রয়েছেন। তার অপকর্মের বিষয়ে কেউ মুখ খুললে ভাড়াটে মাস্তান পাঠিয়ে তাদের হুমকি দিচ্ছেন বলেও অভিযোগ করেছেন নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক বিদ্যালয়ের কয়েকজন শিক্ষক।

চাটমোহর মির্জাপুর গ্রামের মুক্তিযোদ্ধা ও পাবনার বার সমিতির সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা শাহ আলম ক্ষোভ প্রকাশ করে বলেন, আব্দুল আজিজ প্রামাণিক মুক্তিযোদ্ধা নন। জালিয়াতির মাধ্যমে মুক্তিযোদ্ধা কোটায় চাকরি নিয়ে তিনি ও তার সন্তানেরা সকল মুক্তিযোদ্ধাদের অসম্মান করেছেন।

এসব বিষয়ে পাবনা সরকারি বালিকা বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মো. ওয়াজেদ আলীর সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি জানান, সহকারী শিক্ষক তায়জুলের ব্যাপারে সিদ্ধান্ত এখনো মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক শিক্ষা অধিদপ্তর থেকে আসেনি। এ বিষয়ে বিভাগীয় পত্র পেলে তার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

এ বিষয়ে অভিযুক্ত শিক্ষক তায়জুল ইসলামের সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি এ ঘটনাকে ষড়যন্ত্র উল্লেখ করে বলেন, ‘একজন দুর্নীতিবাজ শিক্ষকের অপকর্মের প্রতিবাদ করায়, চাকরিতে যোগদানের এত বছর পরে এসব নিয়ে ঘাটাঘাটি হচ্ছে।’

মুক্তিযোদ্ধা তালিকায় পিতার নাম না থাকার বিষয়ে জানতে চাইলে তিনি বলেন, ‘সকল কাগজপত্রাদি রয়েছে, অচিরেই মুক্তিযোদ্ধা তালিকায় নাম প্রকাশ পাবে।’

পাবনা

আরও সংবাদ

Bangla Newspaper, Bengali News Paper, Bangla News, Bangladesh News, Latest News of Bangladesh, All Bangla News, Bangladesh News 24, Bangladesh Online Newspaper
উপরে