Deshe Bideshe

DESHEBIDESHE

Login
ইউনিজয়
ফনেটিক
English

গড় রেটিং: 0/5 (0 টি ভোট গৃহিত হয়েছে)

print

আপডেট : ০৭-২৪-২০১৭

পুলিশ কর্মকর্তার বিরুদ্ধে স্ত্রী নির্যাতনের অভিযোগ

পুলিশ কর্মকর্তার বিরুদ্ধে স্ত্রী নির্যাতনের অভিযোগ

নড়াইল, ২৩ জুলাই- চাকরিতে বদলি ও পদোন্নতির কথা বলে ১০ লাখ টাকা যৌতুকের দাবিতে নড়াইলে তিন দিন ঘরে আটকে রেখে স্ত্রী ফাতেমা বেগম শিখাকে রড দিয়ে পিটিয়ে আহত করার অভিযোগ উঠেছে পুলিশের এক পরিদর্শকের বিরুদ্ধে।

এদিকে শিখাকে হাসপাতালে গিয়ে হুমকি দিচ্ছেন ওসি সৈয়দ আল মামুন। এছাড়া হাসপাতাল থেকে তিন বছরের শিশু সন্তানকে তুলে নেয়ার ভয়ে তাকে মায়ের কাছে রাখা সম্ভব হয়নি।

গৃহবধূর পরিবার ওসি আল মামুনের ভয়ে আতংকে রয়েছেন।

আল মামুন বর্তমান খুলনার আদালতে পরিদর্শক (ওসি) হিসেবে কর্মরত রয়েছেন বলে জানা যায়।

স্থানীয় ও পারিবারিক সূত্র জানায়, সাড়ে চার বছর আগে নড়াইলের লোহাগড়া পৌরসভার কুন্দশী এলাকার সৈয়দ সিরাজ আলীর ছেলে পুলিশ কর্মকর্তা সৈয়দ আল মামুনের সঙ্গে উপজেলার দিঘলিয়া গ্রামের আব্দুল মান্নান শরীফের মেয়ে ফাতেমা বেগম শিখার বিয়ে হয়।

বিয়ের পর কিছুদিন স্ত্রী ফাতেমা বেগম শিলাকে প্রায়ই স্বামী আল মামুন নির্যাতন করতেন। যৌতুকের দাবি মেটাতে গৃহবধূর পাঁচ লাখ টাকার গহনাসহ বাবার বাড়ি গরু পর্যন্ত বিক্রি করতে হয়েছে। এমনকি টাকা সুদ করে এনেও যৌতুকের টাকা দিয়েছেন শিখার পরিবার।

চাকরিতে বদলি ও পদোন্নতির কথা বলে পুলিশ কর্মকর্তা আল মামুন সম্প্রতি ফাতেমার বাবার কাছে ১০ লাখ টাকা যৌতুক দাবি করেন। দাবিকৃত ওই টাকা দিতে ব্যর্থ হওয়ার শুক্রবার রাতে ফাতেমাকে রড দিয়ে পিটিয়ে জখম করা হয়। পরে উদ্ধার করে লোহাগড়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করে পরিবারের সদস্যরা।

হাসপাতালে চিকিৎসাধীন ফাতেমা জানান, যৌতুকের দাবিতে তার স্বামী তিনদিন ঘরে আটকে রেখে রড দিয়ে পিটিয়ে জখম করেছেন। এছাড়াও তার শরীরের বিভিন্ন স্পর্শকাতর স্থানে নির্যাতন করা হয়েছে।

ফাতেমা বেগম শিখার মা ফুরজাহান বেগম বলেন, 'মামুন এতোটা লোভী আমরা আগে বুঝতে পারিনি। মোটা অঙ্কের টাকা ছাড়াও যখন যা চেয়েছে আমার পবিরার তাই দিয়েছে। তবুও ওর টাকার নেশা কাটেনি। আমার মেয়েকে নির্যাতন করার উপযুক্ত বিচার চাই।'

বাবা আব্দুল মান্নান শরীফ বলেন, 'হাসপাতালেও আমার মেয়ের চিকিৎসা ঠিকভাবে করতে পারছি না। জামাই (ওসি মামুন) হাসপাতাল ছাড়ার হুমকি দিয়ে গেছে। আমরা এখন নিরাপত্তাহীনতার মধ্যে আছি।'

লোহাগড়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের আবাসিক মেডিকেল অফিসার ডা. শেখ আবুল হাসনাত বলেন, 'ফাতেমার শরীরে একাধিক আঘাতের চিহ্ন রয়েছে। তার চিকিৎসা চলছে।'


ফাতেমা বেগম শিখার স্বামী পুলিশ কর্মকর্তা সৈয়দ আল মামুনের কাছে এঘটনা প্রসঙ্গে জানতে চাইলে তিনি বলেন, আমি সাংবাদিকদের কাছে কোনো মন্তব্য করবো না। আপনারা যা পারেন লিখুন।'

লোহাগড়া থানার ওসি জাহাঙ্গীর আলম সাংবাদিকদের সঙ্গে ফাতেমার নির্যাতনের বিষয়ে কথা বলতে রাজি হননি।

Bangla Newspaper, Bengali News Paper, Bangla News, Bangladesh News, Latest News of Bangladesh, All Bangla News, Bangladesh News 24, Bangladesh Online Newspaper
উপরে