logo

জি এম কাদেরকে মন্ত্রী বানাতে দর-কষাকষিতে এরশাদ?

হাবিবুর রহমান


জি এম কাদেরকে মন্ত্রী বানাতে দর-কষাকষিতে এরশাদ?

ঢাকা, ০১ ফেব্রুয়ারী- আরো একজন মন্ত্রী চাইছেন জাপা চেয়ারম্যান এইচ এম এরশাদ? আর এজন্যই নাকি দরকষাকষি করতে মন্ত্রিসভা থেকে বের হয়ে আসার ইস্যুটি সামনে নিয়ে এসেছেন সাবেক এই স্বৈরশাসক? গতকাল রবিবার সচিবালয়সহ রাজনৈতিক মহলে এমন আলোচনা শোনা গেছে।বলাবলি হচ্ছে- জি এম কাদেরকে মন্ত্রিসভার জায়গা দিলেই সব ঠিক।জাপার দায়িত্বশীল একটি সূত্র জানায়, এরশাদ আসলে জিএম কাদেরকে মন্ত্রী দেখতে চাইছেন। তবে এ ব্যাপারে সরকারের মনোভাব জানা যায়নি।

তবে এ বিষয়ে জানতে মন্ত্রিপরিষদ বিভাগের সঙ্গে যোগাযোগ করলে তারা জানায়, এমন কোনো তথ্য জানা নেই তাদের। এব্যাপারে জাপার নতুন কো-চেয়ারম্যান জি এম কাদের বিষয়টি উড়িয়ে দিয়েছেন। তিনি বলেছেন, মন্ত্রী হওয়ার জন্য দরকষাকষির যে কথা উঠেছে তা আদৌ সত্য নয়।

জাতীয় পার্টির অব্যাহত গৃহবিবাদের প্রেক্ষাপটে এবং মহাজোট সরকার ধরে রাখতে মন্ত্রিসভার রদবদল বা নতুন মুখের বিষয়টি সামনে এসেছে ।এর মধ্যে বড় গুঞ্জন হলো, জাতীয় পার্টির কো-চেয়ারম্যান জি এম কাদেরের মন্ত্রী হওয়ার বিষয়টি। তিনি আওয়ামী লীগের গত সরকারের মন্ত্রিসভার সদস্য ছিলেন। ২০১৪ সালের ৫ জানুয়ারির নির্বাচনে এরশাদের নির্দেশে তিনি প্রার্থিতা প্রত্যাহার করায় আর নতুন সরকারের মন্ত্রী হতে পারেননি।    

জি এম কাদেরের নতুন মন্ত্রী হওয়ার সম্ভাবনার বিষয়ে জাতীয় পাটির সংসদ সদস্য ও শ্রম প্রতিমন্ত্রী মজিবুল হক চুন্নু বলেন, “জি এম কাদেরকে মন্ত্রী করার বিষয়ে কয়েক দিন ধরে প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে আলাপ-আলোচনা করছেন আমাদের পার্টির চেয়ারম্যান এইচ এম এরশাদ। তাকে মন্ত্রিত্ব দেয়া হবে কি না, তা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ও আমাদের চেয়ারম্যান জানেন।”

চুন্নু আরও বলেন. “জি এম কাদেরকে মন্ত্রিত্ব দিলে হয়তো তিনি আর সরকার ও জাতীয় পাটির সম্পর্ক নিয়ে সমালোচনা করবেন না। সরকারও মুক্তি পাবে শরিক দলের নানা সমালোচনা থেকে।”

নাম প্রকাশ না করার শর্তে জাতীয় পাটির অপর একজন মন্ত্রী বলেন, “জি এম কাদের যা করছেন তা বাড়াবাড়ি নয়, এটা সরকারের সঙ্গে দর-কষাকষি, যাতে সরকারের কাছে থেকে জাতীয় পার্টি আরও মন্ত্রিত্ব পায়।” জি এম কাদের ও রুহুল আমিন হাওলাদারকে মন্ত্রিত্ব দেয়া হলে সব ঠিক হয়ে যাবে বলে মনে করেন তিনি।

এদিকে গত ২৮ জানুয়ারি বৃহস্পতিবার মাগরিবের নামাজের বিরতির সময় প্রধানমন্ত্রীর সংসদের কার্যালয়ে শেখ হাসিনার সঙ্গে রুদ্ধদ্বার বৈঠক করেন বিরোধীদলীয় নেতা রওশন এরশাদ ও তার অনুসারীরা। এ বৈঠক নিয়ে রাজনৈতিক মহলে নানা গুঞ্জন চলছে। তবে বৈঠক সূত্রে জানা গেছে, জাতীয় পার্টির মধ্যে বিরাজমান বিরোধ নিয়েই কথা বলেন রওশন এরশাদ। এই সংকট মোকাবেলায় তিনি প্রধানমন্ত্রীকে হস্তক্ষেপ করতে অনুরোধ জানান। এ সময় তিনি জাতীয় পার্টি মন্ত্রিসভায় থাকছে বলেও প্রধানমন্ত্রীকে জানান।

পরে সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবেও রওশন এরশাদ সরকারে তাদের থাকার কথা জানান।