logo

যেসব কারণে কমছে না রাজধানীর যানজট

যেসব কারণে কমছে না রাজধানীর যানজট

ঢাকা, ২৯ জানুয়ারি- প্রতিদিন যানজটে বিড়ম্বনার শিকার হচ্ছেন রাজধানীবাসী। কোনো শহরের জন্য ২০ থেকে ২৫ শতাংশ রাস্তার প্রয়োজন হলেও ঢাকায় আছে মাত্র ৬ থেকে ৮ শতাংশ। ২০০৪ সালে ঢাকায় নিবন্ধিত গাড়ির সংখ্যা যেখানে ছিল ২০ হাজার সেখানে ২০১৬ সালে এসে দাঁড়িয়েছে লক্ষাধিক।

এ কারণেই যানজট কমার চেয়ে কয়েকগুণ বেড়েছে বলে মনে করেছেন বিশেষজ্ঞরা। আর নগরপিতা আশঙ্কা করছেন মেট্রোরেলসহ বিভিন্ন প্রকল্প বাস্তবায়নের সময় যানজটের তীব্রতা আরো বাড়ার। তবে প্রকল্প শেষ হলে কমতে পারে যানজট বলে মনে করেন তিনি। শুক্রবার সময় টিভি'র এক প্রতিবেদনে ওঠে আসে এসব তথ্য।  

প্রতিবেদনে বলা হয়, ঘণ্টার পর ঘণ্টা ঠায় রাস্তায় দাঁড়িয়ে থাকতে হয় গাড়িগুলোকে। এতে পুড়ছে তেল, ক্ষতি হচ্ছে শ্রমশক্তির। বুয়েটের এক গবেষণায় দেখা গেছে ঢাকায় চলাচল উপযোগী রাস্তার পরিমাণ ৪ হাজার কিলোমিটারের কিছু বেশি। কিন্তু এর পুরোটাও পুরোপুরি ব্যবহার করা যায় না।

ঢাকায় ৬ শতাংশ মানুষ ব্যক্তিগত গাড়ি ব্যবহার করেন যা ৮০ শতাংশ রাস্তা দখল করে আর ৭৫ শতাংশ মানুষ চলে বাসে যা ২০ ভাগেরও কম রাস্তা দখল করে। ফলে যানজটের তীব্রতা কমানো যাচ্ছে না।

বুয়েটের গবেষক অধ্যাপক ড. মিজানুর রহমান বলেন, ‘রেজিস্টার গাড়ির সংখ্যা শুধুমাত্র ২০১৫ সালেই ছিল প্রায় নব্বই হাজারেরও বেশি। কিন্তু সেই হারে রোড নেটওয়ার্ক বাড়েনি। ২০০৪ সালে কনসাম্পশন লেভেল যেখানে ছিল এখন কিন্তু তার চেয়ে অনেক বেশি। যেটা কিনা ব্যবস্থাপনার বাইরে চলে গেছে।’ এককভাবে যানজট কমাতে ট্রাফিক বিভাগ সক্ষম নয় বলে দাবি করেন ট্রাফিক (ডিএমপি) অতিরিক্ত পুলিশ কমিশনার খন্দকার গোলাম ফারুক।

বুয়েটের এক গবেষণায় রাজধানীতে যানজটের কারণগুলো হলো: অপর্যাপ্ত সড়কের পরিমাণ, ট্রাফিক নিয়ম না মানা, রাস্তার যথাযথ ব্যবহার না করা, পরিমাণের চেয়ে বেশি পরিমাণ জনসংখ্যার বসবাস। ফলে ঢাকায় প্রতিবছর আর্থিক ক্ষতি হচ্ছে ২ লাখ ৪০ হাজার কোটি টাকা। নষ্ট হচ্ছে প্রায় ৩২ লাখ কর্ম-ঘণ্টা। তবে মেট্রোরেলের মত বড় বড় প্রকল্প শেষ হলে যানজট কমতে পারে বলে মনে করছেন ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের মেয়র সাঈদ খোকন।