logo

গর্ভবতী নারীদের যাওয়া উচিৎ নয় এই দেশগুলোতে

কে এন দেয়া


গর্ভবতী নারীদের যাওয়া উচিৎ নয় এই দেশগুলোতে

গর্ভাবস্থায় এমনিতেই বাঙালি নারীরা তেমন ভ্রমণ করতে চান না। কিন্তু যারা ভ্রমণ করতে চান, তারা অবশ্যই কিছু কিছু দেশে যাওয়া থেকে বিরত থাকুন। এসব দেশে এমন একটি ভাইরাসের প্রাদুর্ভাব দেখা গেছে যা আপনার অনাগত সন্তানের জীবন ঝুঁকিতে ফেলতে পারে। জিকা ভাইরাসের সংক্রমণের কোনো প্রতিকার এখনো পর্যন্ত পাওয়া যায়নি।

আমেরিকার Centers for Disease Control and Prevention (CDC) গর্ভবতী নারীদের সাবধান থাকতে বলে এক অ্যালার্ট জারি করে। এতে ব্রাজিলসহ ১৪টি দেশে ভ্রমণের ব্যাপারে তাদেরকে সতর্ক করে দেওয়া হয়। যিকা ভাইরাসের এই প্রাদুর্ভাবের সাথে বড় সংখ্যায় শিশুদের মাইক্রোসেফালি উপসর্গ নিয়ে জন্মগ্রহণ করতে দেখা গেছে। মাইক্রোসেফালি হলো এক ধরণের জেনেটিক অ্যাবনরমালিটি, যেখানে ভ্রূণের মস্তিষ্ক স্বাভাবিকভাবে বাড়তে পারে না ফলে শিশুর মাথা অস্বাভাবিক রকমের ছোট হয়। যারা গর্ভবতী অথবা অচিরেই গর্ভধারণের ইচ্ছে আছে তাদেরকে এসব দেশে ভ্রমণের ব্যাপারে দ্বিতীয়বার চিন্তা করতে বলা হয়েছে।

এই দেশগুলো হলো: ব্রাজিল,  মেক্সিকো, গুয়াতেমালা, এল সালভাদর, হন্ডুরাস, হাইতি, পানামা, ইকুয়েডর, কলম্বিয়া, ভেনেজুয়েলা, গায়ানা, সুরিনাম, ফ্রেঞ্চ গায়ানা, বলিভিয়া এবং প্যারাগুয়ে।

কেন গর্ভবতী নারীরা এসব এলাকায় যেতে পারবেন না? তা বোঝার জন্য এই রোগের ব্যাপারে কিছু জেনে রাখা প্রয়োজন আপনার। বেশীরভাগ মানুষের মাঝে এই ভাইরাস সংক্রমণের কোনো উপসর্গ থাকে না। বড়জোর ঠাণ্ডা বা ফ্লুয়ের মতো কিছু অসুস্থতা দেখা যেতে পারে। কিন্তু এসব এলাকায় জিকা ভাইরাসের প্রাদুর্ভাবের পাশাপাশি শিশুদের অস্বাভাবিক ছোট মাথা নিয়ে জন্মানোর ঘটনাও উল্লেখযোগ্য পরিমাণে বেড়ে গেছে। এ কারণে এসব জায়গায় এ সময়ে না যাওয়াই ভালো। আর যদি যেতেই হয় তাহলে পোকামাকড়ের কামড় থেকে বাঁচার জন্য বিশেষ ব্যবস্থা নেওয়া জরুরী।

জিকা ভাইরাস মশার কামড়ের মাধ্যমে ছড়ায়। আক্রান্ত ব্যক্তির শারীরিক সংস্পর্শে ছড়ায় না। এর কোনো প্রতিকার বা ভ্যাকসিন এখনো পাওয়া যায়নি।