logo

‘কয়েক বছরের মধ্যেই’ তৃতীয় বিশ্বযুদ্ধ!

‘কয়েক বছরের মধ্যেই’ তৃতীয় বিশ্বযুদ্ধ!

স্টকহোম, ২৯ জানুয়ারী- একটি শান্তিপ্রিয় দেশ হিসেবেই সুইডেনের পরিচিতি সবার কাছে। গত দুইশ বছরেও কোনো যুদ্ধে অংশ নেয়নি দেশটি। অথচ হঠাৎ করেই আগামী ‘কয়েক বছরের মধ্যে’ তৃতীয় বিশ্বযুদ্ধের সতর্কতা দিয়েছেন সেই দেশের একজন শীর্ষ সামরিক কর্মকর্তা। আর এজন্য নিজের সেনাদের প্রস্তুত থাকার জন্যেও বলেছেন তিনি।

সুইডেনের সেনা কর্মকর্তা অ্যান্ডার্স ব্রানস্ট্রম এক বিবৃতিতে বলেছেন, ‘বর্তমান বিশ্ব পরিস্থিতিতে এটা স্পষ্ট যে কয়েক বছরের মধ্যেই আমরা যুদ্ধে জড়িয়ে পড়তে পারি। আমাদের সেনাবাহিনীকে যেকোনো সময় সমস্ত শক্তি দিয়ে যুদ্ধে অংশগ্রহণের সিদ্ধান্ত বাস্তবায়ন করতে হবে।’  

তার এ মন্তব্য ব্যাপকভাবে বিতর্কের সৃষ্টি করেছে। অনেকে প্রশ্ন রেখেছেন, সত্যিকার অর্থেই এটা কি ঘটবে? এটা প্রতিরোধে ইউরোপ কি যথেষ্ট শক্তিশালী? সুইডেন কি নিজেকে রক্ষা করতে পারবে?

জেনালের ব্রানস্টর্ম বলেন, ইউরোপে ক্রমবর্ধমান উত্তেজনায় সুইডেন তার সামরিক কৌশল পরিবর্তন করতে পারে। দেশটি এখন আর আন্তর্জাতিক পর্যায়ে পুলিশের কোনো কাজে সহায়তা করছে না। এর পরিবর্তে সুইডেন এখন শক্তিশালী প্রতিপক্ষের বিরুদ্ধে যুদ্ধের ওপর গুরুত্ব দিচ্ছে।

তিনি আরো বলেন, সুইডেনের সেনাবাহিনী বর্তমানে দেশটিকে রক্ষার জন্য যেকোনো সামরিক হামলা শুরুতেই রুখে দিতে সেনাদের প্রস্তুত করছে।

যুদ্ধ-বিগ্রহের ক্ষেত্রে ঐতিহাসিকভাবেই সুইডেনের ভূমিকা নিরপেক্ষ। এমনকি প্রথম ও দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধেও কারো পক্ষে অবস্থান নেয়নি দেশটি। তবে ইউরোপীয় ইউনিয়নের সাথে সম্পর্ক জোরদার করতে সাম্প্রতিক বছরগুলোতে ন্যাটোতে যোগ দেয়ার কথা ভাবছে তারা। তবে এর প্রতিবাদ জানিয়েছে রাশিয়া।  

সুইডেনের জাতীয় নিরাপত্তা সংস্থা ‘সাপো’ গত বছর তাদের এক প্রতিবেদনে জানিয়েছে, দেশটির বিরুদ্ধে গুপ্তচরবৃত্তিতে সবচেয়ে ভয়বহ হুমকি হচ্ছে রাশিয়া। গত বছরের এক জরিপে দেখা যায়, সুইডেনের ৪১ শতাংশ লোক চায় তাদের দেশ ন্যাটোতে যোগদান করুক। বাকি ৩৯ শতাংশ এর বিরুদ্ধে। পাঁচ বছর আগে মাত্র ২৩ শতাংশ লোক ন্যাটোতে যোগ দেয়ার পক্ষে ছিল।