logo

যে ৫টি দেশে কেউ সহজে অসুস্থ হয় না!

যে ৫টি দেশে কেউ সহজে অসুস্থ হয় না!

মানুষের সুস্থতা-অসুস্থতা অবশ্যই সে যে অঞ্চলে থাকেন তার আবহাওয়ার উপরে নির্ভর করে। আবার ভাল আবহাওয়াও মানুষের প্রাকৃতিক সম্পদ ব্যবহারের ধরণ, নগর পরিকল্পনা, সচেতনতা ইত্যাদির উপর নির্ভর করে। বাংলাদেশের মত একটি দেশ যেখানে বায়ূ দূষণ, শব্দ দূষণ ভয়াবহ মাত্রায়, যেখানে নাগরিক ধুলায় শহরের আকাশ থাকে ধোয়াচ্ছন্ন- সেখানে আমাদের জন্য আশ্চর্য হওয়ার মতই একটি ব্যাপার যে এমন ও দেশ আছে যেখানে তাদের পরিবেশই প্রাকৃতিক উপায়ে মানুষকে সুস্থ রাখে।
আসুন জেনে নিই এমন ৫ টি দেশের কথা।

১। কাতার-
কাতারের মানুষ খুব কমই স্বাস্থ্য সমস্যা নিয়ে ডাক্তারের শ্মরনাপন্ন হন, তারা তেমন একটা অসুস্থই হন না। সম্ভবত এখানকার মানুষের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা খুবই ভাল, এছাড়া জীবনব্যাপী এই সুস্থতার আর কোন ব্যাখ্যা পাওয়া যায় না! তাদের প্রতি ১০০০ জন মানুষের জন্য ৭.৭ জন ফিজিশিয়ান রয়েছে। যদিও তাদের গড় আয়ু মাত্র ৭৭.৬ বছর এবং একই সাথে তারা সারা বিশ্বে অতিস্থূলতার জন্য ২য় অবস্থানে রয়েছে, তবু তাদের সার্বিক মৃত্যুহার খুবই কম। কাতারে স্বাস্থ্যসেবা দেয়া হয় বিনামূল্যে সরকারি এবং বেসরকারি উভয় পর্যায়ে এবং স্বাস্থ্যসেবা পদ্ধতি এখানে খুবই উন্নত মানের।
 
২। নরওয়ে
সারা বিশ্বের মধ্যে স্বাস্থ্যসেবা খাতে সবচেয়ে বেশী ব্যয় করে নরওয়ে। দেশটি প্রতি বছর এখাতে জনপ্রতি ৯০৫৫ ডলার ব্যয় করে। সুস্বাস্থ্য রক্ষার স্বার্থে তারা বিশ্বের সব উচ্চদক্ষতা সম্পন্ন স্বাস্থ্যসেবাদানকারী প্রতিষ্ঠানের সাথে যোগাযোগ রক্ষা করে যাতে দেশে কোন বিশেষ রোগের চিকিৎসা করা না গেলে তাকে সহজেই পাঠিয়ে দেওয়া যায় বাইরে। দেশের অভ্যন্তরেও তারা অনেক কম খরচে সেবা প্রদান করে। একটি বিকাশমান অর্থনীতির দেশ হওয়া স্বত্ত্বেও জাতিকে সুস্থ রাখার প্রয়াসে নরওয়ে সর্বোচ্চ সুবিধা দিয়ে থাকে।
 
৩। সুইজারল্যান্ড
সুস্থতার দিক থেকে সুইজারল্যান্ড ৩য় অবস্থানে রয়েছে। সম্ভবত এই অঞ্চলের ঠান্ডা, বরফ শীতল আবহাওয়া এর মূল কারণ। সুইজারলয়ান্ডে মৃত্যুহার প্রতি ১০০০ জনে ৯ জন। বিস্ময়কর ব্যাপার হল, তাদের এলকোহল সেবনের মাত্রা গ্লোবাল স্ট্যান্ডার্ড এর তুলনায় ৭৩% বেশি এবং ২২% প্রাপ্ত বয়স্ক নারী এবং ৩১% প্রাপ্তবয়স্ক পুরুষ ধূমপায়ী। এইসব বদভ্যাস থাকার পরও তারা একটি সুস্থ্য জাতি।

৪। লুক্সেমবার্গ
এই দেশটি জনপ্রতি স্বাস্থ্যসেবা খাতে ব্যায়ের দিক থেকে ৪র্থ। স্বাস্থ্যসেবায় অর্থ ব্যয় করার পাশাপাশি প্রাকৃতিক দিক থেকেও দেশটি মানুষের সুস্থতার অনুকূলে। এই অঞ্চলের মানুষ শক্ত সামর্থ্য, মজবুত এবং সহজে অসুস্থ হয় না। কিন্তু এখানেও মানুষ অতিস্থূলতা এবং মাত্রাতিরিক্ত এলকোহল আসক্তিতে ভোগে। দেশটি জনগণের জন্য বিনামূল্যে উচ্চমানের চিকিৎসা ব্যবস্থা নিশ্চিত করেছে।
 
৫। জাপান
জাপানের মানুষ দীর্ঘজীবি এবং সুস্থ হয়ে থাকে। জনগণকে স্বাস্থ্যসেবা দেওয়ার পাশাপাশি তারা নিজেদের চিকিৎসা ব্যাবস্থার ও উন্নতি করে যাচ্ছে। বিভিন্ন শারীরিক পরীক্ষা-নিরীক্ষা এবং রোগ নির্ণয় যন্ত্র তারা নিজেরাই আবিষ্কার করেছেন। জাপানে চিকিৎসা ব্যায়ের ৭০% সরকার বহন করে থাকেন।
 
দেশের বাইরে পারি জমিয়ে সেখানেই বসতি গড়তে চান যারা এই দেশগুলোর কথা ভেবে দেখুন। পরিচ্ছন্ন আবহাওয়া এবং রাষ্ট্র প্রদত্ত স্বাস্থ্যসুবিধা আপনাকে এবং আপনার সন্তানকে দিতে পারে একটি ভবিষ্যৎ সুস্থ জীবন।