logo

মেঘালয়ে খাদে বাস, মৃত ১০

মেঘালয়ে খাদে বাস, মৃত ১০

দুর্ঘটনাগ্রস্ত বাস।

নয়াদিল্লি, ২৭ জানুয়ারি- নৈশ বাস খাদে পড়ে অন্তত ১০ জন যাত্রীর মৃত্যু হল। ঘটনাস্থল আবারও মেঘালয়ের সোনাপুর এলাকা। মেঘালয়ের আইজি (আইন-শৃঙ্খলা) জি এইচ পি রাজু জানান, বেসরকারি ট্রাভেল এজেন্সির বাসটি গত কাল সন্ধ্যায় গুয়াহাটি থেকে হাইলাকান্দির উদ্দেশে ছেড়েছিল। রাত দেড়টা নাগাদ ক্লেরিয়েট থানার তাংসেং গ্রামের কাছে পাহাড়ি রাস্তায় নিয়ন্ত্রণ হারান চালক নরেশ বড়ো। বাসটি সোজা পাহাড় থেকে শতাধিক ফুট গভীর খাদে আছড়ে পড়ে।

পুলিশ ও সেনাবাহিনী স্থানীয় বাসিন্দার সাহায্য নিয়ে উদ্ধারকাজ শুরু করে। প্রথমে তারা ৭টি মৃতদেহ ছড়িয়ে-ছিটিয়ে পড়ে থাকতে দেখেন। পরে আরও তিনজনের মৃতদেহ খুঁজে পাওয়া যায়। আহত অবস্থায় ২১ জনকে উদ্ধার করে প্রথমে ক্লেরিয়েট প্রাথমিক স্বাস্থ্যকেন্দ্রে পাঠানো হয়। ১৩ জনকে প্রাথমিক চিকিৎসার পর ছেড়ে দেওয়া হয়। সাত জনকে পাঠানো হয় জোয়াই হাসপাতালে। এক জনের অবস্থা আশঙ্কাজনক বলে তাঁকে গুয়াহাটি মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। বাসে আরও দেহ আটকে থাকতে পারে বসে পুলিশের সন্দেহ। এলাকা দুর্গম হওয়ায় বাসের দেহ কেটে উদ্ধারকাজ চালাতে সমস্যা হচ্ছে।

রাজ্যের সমাজকল্যাণমন্ত্রী গৌতম রায় জানান, প্রশাসন দ্রুত উদ্ধারকার্য চালানোর চেষ্টা করছে।  সার্কল অফিসার সরফরাজ হক পূর্ব জয়ন্তিয়া হিল জেলার ক্লেরিয়েট হয়ে জোয়াই গিয়েছেন।

এখনও পর্যন্ত মৃতদের সাত জনকে শনাক্ত করা গিয়েছে। তাঁদের মধ্যে তিন জন আধাসেনার জওয়ান। প্রশাসন সূত্রে খবর, মৃত জওয়ানেরা হলেন শুভেন্দু নমশূদ্র, পবন সিংহ এবং দান্তিরাম। ওই বাসে চেপে আট জওয়ান হাইলাকান্দি জেলার ঘাড়মুড়া ক্যাম্পে যাচ্ছিলেন।

বাসমালিকদের পক্ষে খোকন দত্ত জানান, ৩২ জন যাত্রী নিয়ে বাসটি রওনা হয়েছিল। তাংসেনে কেবল লাইন পাতার কাজ চলছিল। ওই গর্ত আলগা মাটি দিয়ে বোজানো ছিল। সেখানে চাকা পড়তেই দুর্ঘটনা ঘটে। চালক ও সহকারী জখম হয়েছেন।