logo

‘অবসরের পর রায় লেখা অসাংবিধানিক নয়’

সঞ্জয় চাকী


‘অবসরের পর রায় লেখা অসাংবিধানিক নয়’

ঢাকা, ২৭ জানুয়ারি- অবসরের পর বিচারপতিদের রায় লেখার বিষয়ে প্রধান বিচারপতি এসকে সিনহার করা মন্তব্যে প্রসঙ্গে আইনমন্ত্রী আনিসুল হক সংসদকে বলেছেন, ‘অবসরে গিয়ে রায় লেখা অসাংবিধানিক নয়।’

তিনি আরো বলেন ‘প্রধান বিচারপতি বিচারপতিদের অবসরে যাওয়ার পর রায় লেখাকে অসাংবিধানিক ও বেআইনী বলেছেন। সংবিধানের কোনো অনুচ্ছেদে লেখা নেই- বিচারপতিরা অবসরে গেলে রায় লিখতে পারবেন না।’ প্রধান বিচারপতির করা মন্তব্যের বিষয়ে মঙ্গলবার পয়েন্ট অব অর্ডারে জাতীয় সংসদে আলোচনার সূচনা করেন স্বতন্ত্র সংসদ সদস্য রুস্তম আলী ফরাজী।

আলোচনায় অংশ নিয়ে সরকারি দলের সদস্যরা বলেন, প্রধান বিচারপতির কাছ থেকে এমন মন্তব্য যেমন অপ্রত্যাশিত; তেমনি এ মন্তব্য নিয়ে পানি ঘোলার চেষ্টাও অশোভন ।

এসময় আইনমন্ত্রী বলেন, ‘আইনে কোনো বাধা না থাকায় বিশ্ব জুড়েই অবসরের পর রায় লেখার রেওয়াজ আছে। তবে বিচারপ্রার্থীদের দুর্ভোগ কমাতে এমন মন্তব্য করে থাকতে পারেন প্রধান বিচারপতি।’

আনিসুল হক বলেন, ‘হাইকোর্ট বিভাগের রায় যতটুকু সম্ভব এজলাশে বসে দেয়ার কথা থাকলেও আপীল বিভাগের রায় এজলাসে বসে দেয়ার ক্ষেত্রে কোনো বিধান নেই। আপীল বিভাগে রায়ের অপারেটিভ অংশ ঘোষণা করা হয়। পূর্ণাঙ্গ রায় পরবর্তীতে লেখা হয়। অতএব বিষয়টি বেআইনীও নয়।’

তিনি বলেন, ‘কোনো কোনো বিচারপতি পূর্ণাঙ্গ রায় দেয়ার ক্ষেত্রে দেরি করে থাকেন। এ ক্ষেত্রে প্রধান বিচারপতি সময়সীমা নির্ধারণ করে একটি নির্দেশনা দিতে পারেন।

আইনমন্ত্রী অভিযোগ করে বলেন, ‘প্রধান বিচারপতির এই বক্তব্যকে কাজে লাগিয়ে কেউ কেউ ঘোলা পানিতে মাছ শিকারের চেষ্টা করছেন। বিশেষ করে যারা বাসে পেট্রোল মেরে মানুষ হত্যা করেছে তারা এই বক্তব্যকে লুফে নিয়েছেন। অথচ প্রধান বিচারপতি স্পষ্ট করে বলেছেন- পুরনো কোনো রায় এর ফলে বাতিল হবে না।

পয়েন্ট অব অর্ডারে এ বিষয়ে আরো বক্তব্য রাখেন সরকারি দলের সদস্য সুরঞ্জিত সেনগুপ্ত, আব্দুল মতিন খসরু ও স্বতন্ত্র সদস্য রুস্তম আলী ফরাজী।