logo

ভোট বর্জন করতে থাকলে নিশ্চিহ্ন হবে বিএনপি: আশরাফ

ভোট বর্জন করতে থাকলে নিশ্চিহ্ন হবে বিএনপি: আশরাফ

সৈয়দ আশরাফুল ইসলাম

ঢাকা, ২৬ জানুয়ারি- নির্বাচন বয়কটের ধারা থেকে বেরিয়ে আসতে না পারলে বিএনপি নিশ্চিহ্ন হয়ে যাবে বলে মন্তব্য করেছেন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক সৈয়দ আশরাফুল ইসলাম।সোমবার রাজধানীর ধানমন্ডিতে দলীয় সভানেত্রীর কার্যালয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে তিনি বলেন, “এদেশে অনেক দল ছিল। কনভেনশন মুসলিম লীগের মতো শক্তিশালী দল ছিল, এখন এদের নামও শোনা যায় না। পার্টি করলেই যে সারা জীবন টিকে থাকবে এমন না।

“বাস্তব সত্যটাকে অসত্যভাবে দেখলে নিজের অস্তিত্বটাও থাকবে না। বিএনপি নির্বাচন বয়কটের ধারা থেকে বেরিয়ে আসতে না পারলে নিশ্চিহ্ন হয়ে যাবে। আশা করি, বিএনপি এ বিষয়টি উপলব্ধি করতে পারবে এবং বর্তমান সংবিধানের অধীনে নির্বাচনে আসবে।”

প্রধান বিচারপতির বক্তব্যকে ধরে তত্ত্বাবধায়ক সরকার বাতিলের রায় অবৈধ বলে বিএনপির বক্তব্যের প্রতিক্রিয়া সাংবাদিকরা জানাতে চাইলে তা এড়িয়ে যান আশরাফ।     “রাজনীতির মাঠে পরাজিত হয়ে কে কী বললো, তা নিয়ে সময় নষ্ট করলে তাদের সময় পার হয়ে যাবে।”

প্রধান বিচারপতির বক্তব্যের প্রসঙ্গে জনপ্রশাসনমন্ত্রী আশরাফ বলেন, “এটা কোনো রায় নয়। সুপ্রিম কোর্টের আপিল বিভাগের সাংবিধানিক বোর্ড রয়েছে, উনারা কোনো রায় দেননি। সুপ্রিম কোর্টে একক ব্যক্তির কোনো রায় হয় না।”

আগামী ২৮ মার্চ আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় সম্মেলনের আগে ৭৭টি সাংগঠনিক জেলার মধ্যে ৬৯টির সম্মেলন হয়েছে বলে জানান তিনি। “বাকিগুলোরও তারিখ দেওয়া হয়েছে। সময়মতো সম্মেলন করে আমরা এবারের টার্গেট পূরণ করব।”

এবারের সম্মেলনে দলীয় গঠনতন্ত্রের কোনো পরিবর্তন হবে কি না -এ প্রশ্নের জবাবে আশরাফ বলেন, জাতীয় কাউন্সিলে এ ব্যাপারে সিদ্ধান্ত হলে গঠনতন্ত্র পরিবর্তন হতে পারে। তবে সম্মেলনের আগে নিশ্চিত কিছু বলা যাচ্ছে না ।”

খালেদা জিয়ার বিরুদ্ধে রাষ্ট্রদ্রোহ মামলা এবং সমন জারি হওয়া প্রসঙ্গে তিনি বলেন, “তিনি (খালেদা জিয়া) কখনোই মুক্তিযুদ্ধের পক্ষে ছিলেন না, কোনো দিন থাকবেনও না।” দলের সম্পাদকমণ্ডলীর বৈঠকে সভাপতিত্ব করে সংবাদ সম্মেলন আসেন আশরাফ।

দলের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মাহাবুব-উল-আলম হানিফ, জাহাঙ্গীর কবির নানক, সাংগঠনিক সম্পাদক আ ফ ম বাহাউদ্দিন নাছিম, প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক হাছান মাহমুদ, কৃষি বিষয়ক সম্পাদক আব্দুর রাজ্জাক, শ্রম বিষয়ক সম্পাদক হাবিবুর রহমান সিরাজ প্রমুখ।