logo

প্রজাতন্ত্র দিবসে ২৫০০০ পড়ুয়াকে জুতো দেবেন আইএএস

tannistha bhandari


প্রজাতন্ত্র দিবসে ২৫০০০ পড়ুয়াকে জুতো দেবেন আইএএস

নয়াদিল্লি, ২২ জানুয়ারি- প্রচণ্ড ঠাণ্ডায় কাবু হয়েও  খালি পায়েই স্কুলে যেতে হয় পড়ুয়াদের। এই অবস্থা দেখেই বিচলিত হয়ে পড়েন আইএএস অফিসার জিতেন্দ্র কুমার সোনি। ঠিক করে ফেলেন, ২৫,০০০ পড়ুয়ার হাতে তুলে দেবেন জুতো। শুরু করেন 'চরণ পাদুকা যোজনা'। ২৬ জানুয়ারির আগেই সফল হতে চলেছে তাঁর সেই উদ্যোগ। জুতো পাবে পড়ুয়ারা। আগামী সপ্তাহে দেওয়া হবে জুতো।

হনুমানগড়ের ধনসারের বাসিন্দা ওই আধিকারিক। বাবা ঘড়ি তৈরি করে সংসার চালাতেন। ছেলেকে ভাল স্কুলে পড়ানোর জন্য কোনও খামতি রাখেননি তিনি। সোনি জানান,  তিনি নিজেও সরকারি স্কুলে পড়াশোনা করেছেন। বাবা কিভাবে কষ্ট করে তাঁকে পড়িয়েছেন তা তিনি দেখেছেন। দর্জির সেলাই করা জামা পরেই স্কুলে যেতেন তিনি। কখনও কোনও বড় শহর দেখেননি। গত বছর যখন তিনি দেখেন কিছু ছেলেমেয়ে জুতো ছাড়াই স্কুলে যাচ্ছে তখন তাদের দোকানে নিয়ে গিয়ে জুতো কিনে দেন।

তিনি আরও বলেন, ডিসেম্বরের মাঝামাঝি সময়ে একটি স্কুলে গিয়ে যখন তিনি দেখেন পড়ুয়াদের পায়ে জুতো নেই। তখন তাঁর চোখে জল এসে যায়। এমনকী তাদের বই কেনার পয়সা নেই বলেও জানতে পারেন তিনি। এরপরই তিনি এই উদ্যোগ নেন। ২৭৪ টি গ্রাম পঞ্চায়েতকে কাছ থেকে ছাত্রছাত্রীদের ও তাদের পরিবার সম্পর্কে সব তথ্য জানার নির্দেশ দেন তিনি। একটা সাধারণ জুতোর দাম ২০০ থেকে ৩০০ টাকা। তিনি পরিকল্পনা করেন, মানুষের কাছ থেক সাহায্য চাইবেন তিনি। জানা যায় ২৫০০ স্কুলের প্রত্যেকটিতে অন্তত ১০ জন এমন ছাত্র বা ছাত্রী আছে যাদের পায়ে জুতো নেই। জানুয়ারির প্রথম সপ্তাহে চালু হয় এই উদ্যোগ। ২৬ জানুয়ারির মধ্যেই জুতো বিলি করার ব্যবস্থা করে ফেলেছেন তিনি। স্বাধীনতা দিবসের আগে শিশুদের গরমের জুতো কিনে দেওয়া হবে বলেও তিনি জানান।