logo

ওএলইডিতে ঝুঁকছে জাপান ডিসপ্লে

ওএলইডিতে ঝুঁকছে জাপান ডিসপ্লে

২০১৮ সালে অরগানিক লাইট ইমিটিং ডায়োড (ওএলইডি) প্যানেলের বাণিজ্যিক উৎপাদন শুরু করার ঘোষণা দিয়েছে জাপান ডিসপ্লে ইনকর্পোরেটেড।

জাপানের শীর্ষস্থানীয় তিন ইলেকট্রনিক্স পণ্য নির্মাতা প্রতিষ্ঠান সনি, হিটাচি আর তোশিবার যৌথ উদ্যোগের ফলাফল ডিসপ্লে নির্মাতা প্রতিষ্ঠান ‘জাপান ডিসপ্লে’।

টেক জায়ান্ট অ্যাপল আইফোনে ওএলইডি স্ক্রিনের ব্যবহার শুরু করবে—প্রযুক্তিপণ্যের বাজারে এমন গুজব শোনা যাচ্ছে বেশ জোরেশোরেই। কোরিয়ান প্রতিদ্বন্দ্বী প্রতিষ্ঠানগুলোর সঙ্গে পাল্লা দিতে আর সম্ভাব্য ক্রেতা হিসেবে অ্যাপলের চাহিদা মেটানোর লক্ষ্যে প্রতিষ্ঠানটি নতুন প্রকল্প হাতে নিয়েছে বলে জানিয়েছে রয়টার্স।

এ প্রসঙ্গে প্রতিষ্ঠানটির গবেষণা কেন্দ্রের প্রধান আকিও তাকিমোতো বলেন, “ওএলইডি স্ক্রিন বানাতে আমরা আমাদের উন্নত ‘থিন-ফিল্ম ট্রানজিস্টর’ প্রযুক্তির সুবিধা নেব।”

এখনও অ্যাপলের আইফোনের জন্য স্ক্রিন সরবরাহ করে জাপান ডিসপ্লে। কিন্তু এক্ষেত্রেও দক্ষিণ কোরিয়ার এলজি ডিসপ্লে-এর মতো এশিয়ান প্রতিদ্বন্দ্বীদের সঙ্গে তীব্র প্রতিযোগিতা মোকাবেলা করতে হচ্ছে প্রতিষ্ঠানটিকে।

আরেক ইলেকট্রনিকস পণ্য নির্মাতা প্রতিষ্ঠান শার্প-এর ডিসপ্লে ইউনিট জাপান ডিসপ্লে-এর সঙ্গে একীভূত করতে শার্প-এ বিনিয়োগ করার বিষয়ে আলোচনা চালাচ্ছে জাপান ডিসপ্লে-এর সবচেয়ে বড় শেয়ারধারী প্রতিষ্ঠান ইনোভেশন নেটওয়ার্ক কর্পোরেশন অফ জাপান (আইএনসিজি)। এর মধ্যেই দেওয়া হলো নতুন ওই ঘোষণা।

২০১৮ সালের মধ্যে অ্যাপল তাদের আইফোনে ওএলইডি প্রযুক্তি ব্যবহার শুরু করতে পারে বলে শোনা যাচ্ছে। আর এক্ষেত্রে সম্ভাব্য সরবরাহকারী হিসেবে এলজি ডিসপ্লে আর স্যামসাং-এর প্যানেল নির্মাতা ইউনিটের নাম শোনা যাচ্ছে।

ওএলইডি স্ক্রিনে ব্যাকলাইটের প্রয়োজন নেই। তাই প্রচলিত স্ক্রিনের তুলনায় পাতলা হয় ওই স্ক্রিন, বাঁকানো ডিসপ্লে তৈরিতেও ব্যবহার করা যায় এটি। কিন্তু স্মার্টফোনে প্রচলিত এলসিডি স্ক্রিনের থেকে এর উৎপাদন খরচ তুলনামূলক বেশি