logo

এরশাদকে চালাতে হয় কাদেরের সংসার!

এরশাদকে চালাতে হয় কাদেরের সংসার!

ঢাকা, ২০ জানুয়ারি- ছোট ভাই জিএম কাদেরের সংসারে এখনও খরচাপাতি দিতে হয় বলে উল্লেখ করেছেন জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান হুসেইন মুহম্মদ এরশাদ।

তিনি বলেন, ‘ও (জিএম কাদের) খুব সৎ। ওর সংসার এখনও আমি চালাই। প্রতিমাসে ওর সংসারের জন্য অর্থ দিই। ও কমার্স মিনিস্টার ছিল। ইচ্ছে করলে হাজার হাজার কোটি টাকার মালিক হতে পারত।’ 

বুধবার (২০ জানুয়ারি) রাজধানীর বনানীতে নিজ কার্যালয়ের সামনে দলের কো-চেয়ারম্যান জিএম কাদের ও মহাসচিব এবিএম রুহুল আমিন হাওলাদারের দায়িত্ব অর্পণ উপলক্ষে আয়োজিত অনুষ্ঠানে তিনি এসব কথা বলেন।

এ সময় নিজের কোনো উত্তরাধিকারী নেই উল্লেখ করে দুঃখ প্রকাশ করেন সাবেক এই রাষ্ট্রপ্রধান।

এরশাদ বলেন, ‘ডায়ন্যাস্টিক পলিটিকসে (পরিবারতন্ত্রের রাজনীতি) বেগম জিয়া তার ছেলেকে এনেছেন, শেখ হাসিনা জয়কে প্রস্তুত করেছেন, আমার তো কোনো ছেলে নেই, উত্তরাধিকারী নেই। ভাই আছে। সেজন্যই ভাইকে কো-চেয়ারম্যান করেছি।’

ছোট ভাই জিএম কাদেরের প্রশংসা করে এরশাদ বলেন, ‘আমার ভাই অযোগ্য নয়। লেখাপড়ায় ভালো। সে মেকানিক্যাল ইঞ্জিনিয়ার। ভালো লেখে। ভালো বক্তব্য দিতেও জানে। তা ছাড়া সে তিন বার সংসদ সদস্য নির্বাচিত হয়েছে। মন্ত্রীও ছিল।’ 

জিএম কাদেরকে ছোট ভাইয়ের চোখে না দেখে অভিভাবকের মতোই মনে করেন তিনি। বলেন, ‘কাদের আমার ছোট ভাই না। ও আমাকে পিতৃতুল্য ভাবে।’

‘রংপুর অঞ্চলের মানুষও জিএম কাদেরকে দলের কো চেয়ারম্যান হিসেবে চায়। সুতরাং রংপুরবাসীর ইচ্ছা এবং ভবিষ্যতে আমি মারা গেলে যাতে বঙ্গবন্ধুর মতো আমার মৃত্যুবার্ষিকী ও জন্মবার্ষিকী পালন করা হয় সেজন্য আমি ওকে এ দায়িত্ব দিয়েছি’, বলেন এরশাদ।

স্ত্রী রওশন এরশাদকে কো-চেয়ারম্যান করতে চেয়েছিলেন তিনি। কিন্তু পরে বয়স বিবেচনা করে সিদ্ধান্ত বাতিল করেন এরশাদ। বলেন, ‘তার (রওশন) বয়স এখন ৭৬ বছর। ৩ বছর পর আগামী নির্বাচনের সময় তার বয়স হবে ৭৯। সেসময় তিনি চলতে পারবেন কি না আমি জানি না। আমি নিজেও চলতে পারব কি না জানি না। নির্বাচনের কাজে সারাদেশের বিভিন্ন প্রান্তে ঘুরে বেড়াতে হয়। এসব চিন্তা করেই জিএম কাদেরকে কো-চেয়ারম্যান করেছি।’

দলের মহাসচিব পদ থেকে সদ্য অব্যাহতি পাওয়া জিয়াউদ্দিন বাবলুর প্রতি ক্ষোভ প্রকাশ করে এরশাদ বলেন, ‘বাবলুর বাবা যখন অসুস্থ ছিল, তখন আমি নিজ খরচে ব্যাংককে গিয়ে দেখে এসেছি। ওকে আমি সন্তানের মতো দেখতাম। কিন্তু ও সেলফিশের মতো আচরণ করেছে।’

অনুষ্ঠানে শীর্ষ পর্যায়ের নেতাকর্মীরা এরশাদকে ফুলেল শুভেচ্ছা জানান। তারা নতুন দায়িত্বপ্রাপ্ত কো-চেয়ারম্যান জিএম কাদের ও মহাসচিব এবিএম রুহুল আমিনকেও ফুলের তোড়া দিয়ে বরণ করে নেন।