logo

যদিও মিষ্টি তবুও ডায়াবেটিস এবং ওজন কমাতে কার্যকরি

যদিও মিষ্টি তবুও ডায়াবেটিস এবং ওজন কমাতে কার্যকরি

শীতকাল হোক কিংবা গরমকাল সব কালেই রাস্তায় আখের রস দেখতে পাওয়াই যায়। গরমকালে এক গ্লাস আখের রস খেলেই যেন ক্লান্তি দূর হয়ে যায়। অবশ্য আখের রসকে প্রাকৃতিক এনার্জি ড্রিঙ্ক বলা হয়। তবে শুধুমাত্র ক্লান্তি দূর করতেই নয় ত্বকের জন্য এবং শরীরের জন্যও যথেষ্ট উপকারি হল আখের রস। আর কদিন বাদেই হয়ত হালকা গরম পরতে শুরু করবে। তখন আখের রস আপনার ক্লান্তি দূর করা ছাড়াও আর কি কি উপকার করবে দেখে নেওয়া যাক...

১. ক্যানসার প্রতিরোধ
আখের রসে প্রচুর পরিমানে ক্যালসিয়াম, ম্যাগনেসিয়াম, পটাসিয়াম, আয়রন, ম্যাঙ্গানিজ থাকে। যা ব্রেস্ট ক্যানসার এবং প্রস্টেড ক্যানসার রোগ প্রতিরোধে সক্ষম।

২. হৃদরোগ উপশম
হার্ট ভালো রাখতে সাহায্য করে এই রস। হার্ট অ্যাটাক রুখতেও সাহায্য করে এই রস। এমনকি শরীরে খারাপ কোলেস্টেরলের নিঃসরণ কমাতেও সাহায্য করে।

৩. ওজন কমাতে
আখের রস মিষ্টি হলেও এই রস ওজন কমাতে সাহায্য করে। এতে প্রচুর পরিমাণে ফাইবার থাকে। যা ওজন কমাতে সাহায্য করে। এমনকি কোলেস্টেরলের পরিমাণ কমিয়ে দেয়।

৪. ডায়াবেটিসের পক্ষে উপকারি
খেতে মিষ্টি হলেও এটি ডায়াবেটিসের পক্ষে খুবই কার্যকরি। এতে জিআই-এর পরিমাণ খুব কম থাকে। যার জন্য ডায়াবেটিস রোগীরা নিয়মিত এই আখ খেতেই পারেন।

৫. ত্বকের পক্ষে উপকারি
আখের রস ত্বকের পক্ষে খুবই উপকারি। এতে আলফা হাআইড্রক্সি অ্যাসিড থাকে। যা ব্রণ, বলিরেখা দূর করে ত্বককে হাইড্রেট করতে সাহায্য করে। এমনকি না খেয়ে আখের রস রস যদি মুখে মাস্ক হিসেবে লাগিয়ে রাখা যায় তাহলে ত্বকের রুক্ষতা দূর করে ত্বককে উজ্জ্বল ও সতেজ করে তুলতে সাহায্য করে।

৬. হজমশক্তি বাড়ায়
এতে পটাসিয়ামের পরিমাণ খুব ভালো থাকে। এমনকি ফাইবারও যথেষ্ট বেশি পরিমানে থাকে। যার জন্য আখের রস খেলে কোষ্ঠ কাঠিন্যের সমস্যা দূর করে হজম শক্তি বাড়াতে সাহায্য করে। এমনকি গরমকালে ডিহাইড্রেশনের সমস্যা দেখা যায়, আখের রস ডিহাইড্রেশন দূর করতে সক্ষম। পেটের ইনিফেকশন রুখতেও কাররকরি ভূমিকা পালন করে এই রস।