logo

মার্কিন টিভি চ্যানেলে বাংলাদেশি তাসমিন

মার্কিন টিভি চ্যানেলে বাংলাদেশি তাসমিন

ওয়াশিংটন, ১৪ জানুয়ারি- এনবিসির মালিকানাধীন ডব্লিউএইচএজি নিউজ চ্যানেলের প্রযোজক ও সংবাদদাতা হিসেবে যোগ দিলেন বাংলাদেশি বংশোদ্ভূত তাসমিন মাহফুজ। আর এর মধ্য দিয়ে মূলধারায় শীর্ষস্থানীয় মিডিয়ায় বাঙালি প্রজন্মের অবিস্মরণীয় উত্থানের পরিধি প্রসারিত হচ্ছে।  খবর এনআরবি নিউজের।

এর আগে তাসমিন এবিসি-ফোর ইউটাহর সাউদার্ন ইউটাহ ব্যুরো চিফ ছিলেন। সেখানে তিনি নিজে স্পট জার্নালিজমের সময় ফটো শ্যুটিং করেছে, সেগুলো প্রচারের উপযোগীও করেছেন।

টিভি সাংবাদিকতায় তাসমিনের যাত্রা শুরু হয় ইস্তাম্বুল থেকে। এরপরই ‘ইব্রু টিভি’ নামক একটি ইন্টারন্যাশনাল নেটওয়ার্কে যোগ দিয়েছিলেন তাসমিন। সেই টিভিতে তিনি রিপোর্টিং করেন নিউইয়র্ক সিটি, নিউজার্সি এবং ওয়াশিংটন ডিসি থেকে। হ্যারিকেন স্যান্ডির আঘাতে ক্ষত-বিক্ষত এলাকার রিপোর্টিংয়ের পর কানেকটিকাটে স্যান্ডিহুক এলিমেন্টারি স্কুলে নির্বিচার গুলিবর্ষণের ঘটনাবলীর স্পট রিপোর্টিংয়ের মধ্য দিয়ে তাসমিনের সাংবাদিকতা মার্কিনীদেরও দৃষ্টি কাড়ে। এজন্যে গত বছর তাকে টিভি নিউজে অসাধারণ ভূমিকার জন্যে তাসমিনকে ‘উইমেন ইন মিডিয়া ফাউন্ডেশন’র পক্ষ থেকে এওয়ার্ড প্রদান করা হয়। গত জুন মাসে নিউইয়র্ক সিটিতে বর্ণাঢ্য এক অনুষ্ঠানে এ পুরস্কার গ্রহণ করেন তাসমিন।

তাসমিন নিজেকে বিশেষ কোন গোত্র অথবা অঞ্চলের মধ্যে আটকে রাখতে চান না। নিজেকে বিশ্বের নাগরিক হিসেবে গণ্য করেন এবং মানবতার কল্যাণে সাংবাদিকতাকে প্রাধান্য দিচ্ছেন।

ফ্লোরিডার ওয়েস্ট পামবিচের বিশিষ্ট ব্যবসায়ী-সমাজকর্মী আব্দুল ওয়াহিদ মাহফুজ এবং সাংস্কৃতিক সংগঠক নাজমুন মাহফুজের কন্যা তাসমিন ইন্টারন্যাশনাল স্টাডিজে গ্র্যাজুয়েশন করেন জর্জিয়ার আটলান্টায় অবস্থিত এমরয় ইউনিভার্সিটি থেকে। একই প্রতিষ্ঠান থেকে মাস্টার্স করেছেন আইন বিষয়ে। এরপর আন্তর্জাতিক সম্পর্ক বিভাগে দু’বছরের ইন্টার্নশিপ করেছেন জাতিসংঘ সদর দফতরে।ছয় ভাষায় কথা বলতে অভ্যস্ত তাসমিন এখন ভার্জিনিয়া, মেরিল্যান্ড, ওয়েস্ট ভার্জিনিয়া এবং পেনসিলভেনিয়া অঙ্গরাজ্যব্যাপী প্রচারিত ডব্লিউএইচএজি নিউজ চ্যানেলের সান্ধ্যকালীন সংবাদ বুলেটিন অর্থাৎ ৬টা, ৭টা এবং রাত ১১টার সংবাদ কভার করছেন। একইসাথে বিশেষ এসাইনমেন্টও থাকছে প্রতিদিনের কভারেজের সাথে। 

বাঙালি সংস্কৃতির প্রতি দরদী তাসমিনের। শৈশব আর কৈশোরে ফ্লোরিডার আরো অনেকের সাথে কম্যুনিটির প্রায় প্রতিটি অনুষ্ঠানেই তাসমিন ছিলেন সরব। তার মা একটি টিভিতে দু’সপ্তাহ অন্তর ছোট্ট একটি অনুষ্ঠান চালাতেন সাউথ ফ্লোরিডায়। পিবিএস এবং ক্যাবল টিভিতে তা দেখা যেত। ওই সময়েই তাসমিন তার মায়ের সাথে নানাভাবে সম্পৃক্ত ছিলেন অর্থাৎ টিভি সাংবাদিকতার প্রতি তার আগ্রহ তৈরি হয়েছিল।