logo

ঘাস খেয়ে বেঁচে আছে ৪ লাখ সিরীয়

ঘাস খেয়ে বেঁচে আছে ৪ লাখ সিরীয়

মাদায়া, ১১ জানুয়ারী- জাতিসংঘের নতুন এক প্রতিবেদন অনুসারে, যুদ্ধবিদ্ধস্ত সিরিয়ার ১৫টি এলাকায় বাশার আল আসাদের বাহিনীর অবরোধের কারণে না খেয়ে থাকতে হচ্ছে প্রায় চার লাখ সিরীয়কে। এর আগে জাতিসংঘ জানিয়েছিল, সিরিয়ার মাদায়া শহরেই প্রায় ৪০ হাজার মানুষ খাদ্য সংকটে আছে। সেখানকার লোকজন ঘাস, লতা-পাতা খেয়ে বেঁচে আছে।

সংস্থাটি জানিয়েছে, শনিবার এক চুক্তির মধ্য দিয়ে সিরিয়ার প্রেসিডেন্ট বাশার আল আসাদ সরকারের সেনাবাহিনী এলাকাগুলোতে মাত্র ১০ শতাংশ খাদ্য, ওষুধ ও ত্রাণসামগ্রী পৌঁছে দেয়ার অনুমতি দেয়। এসব এলাকায় ত্রাণ পৌঁছাতে সিরীয় সরকার জাতিসংঘকে অনুমতি দেয়ার পরই কাজ শুরু করেছে দাতব্য সংস্থাগুলো।


গত বছরের অক্টোবরের পর থেকে এই মাদায়া শহরে বাইরে থেকে কোনো খাবার ঢোকেনি। মরিয়া হয়ে সেখানকার অধিবাসীরা শিশুসহ কয়েকজনের ভঙ্গুর, কৃশ এবং কঙ্কালসার ছবি ইন্টারনেট ছড়িয়ে দিয়েছেন। সেখানে চিকিৎসা সহায়তা দেওয়া একটি বেসরকারি সংস্থা ডক্টরস উইদাউট বর্ডার বলছে, ১ ডিসেম্বর থেকে ক্ষুধার কারণে বা না খেতে পেয়ে এখানে ২৩ জনের মৃত্যু হয়েছে। এদের মধ্যে আছে ছয়টি ছোট্ট শিশু, যাদের বয়স এক বছরের নিচে। ডক্টরস উইদাউট বর্ডারের পরিচালক ব্রাইস ডি লি ভিঙ্গু এই মাদায়া শহরকে ‘একটি খোলা কারাগার’ বলে মন্তব্য করেছেন। তিনি বলেন, এ শহর ছেড়ে যারা পালিয়ে যেতে চেষ্টা করে তারা বুলেট বা ভূমি মাইনের প্রাণ হারাচ্ছে।

এদিকে, জাতিসংঘের শিশু বিষয়ক সংস্থা ইউনিসেফ এর মুখপাত্র জুলিয়েট তৌমা বলেন, প্রবেশাধিকার না থাকায় আক্রান্ত জনগোষ্ঠীর মানবিক সহায়তার প্রয়োজন মেটানো অসম্ভব হয়ে পড়েছে। তিনি আরও বলেন, তীব্রতর হয়ে চলা লড়াই আর ক্রমবর্ধমান সহিংসতার কারণে ৪৫ লাখেরও বেশি লোক জাতিসংঘ চিহ্নিত ‘পৌছানো দূরুহ’ এলাকাসমূহে বাস করছে। আর এদের অর্ধেকেরও বেশি শিশু।