logo

ভাইবোন চায় না চীনের শিশুরা

ভাইবোন চায় না চীনের শিশুরা

বেইজিং, ১০ জানুয়ারি- চীন সরকার দেশ থেকে এক পরিবার এক শিশু নীতি তুলে দিলেও শিশুরা তা তুলে নেয়নি। অনেক পরিবারেই ছোট ছোট শিশুরা পরিবারে নতুন সদস্য আনার ঘোর বিরোধী। এতোদিন একমাত্র সন্তান হিসেবে থাকা বাচ্চাগুলো এখন আর ভাইবোনের সঙ্গে বাবা-মাসহ পরিবারের সবার আদর ভালোবাসা ভাগ করে নিতে রাজি নয়।

পূর্ব চীনের কিংদাও শহরে চতুর্থ শ্রেণী পড়ুয়া কয়েকজন ছেলেমেয়ে মিলে একটি ‘ভাইবোন বিরোধী জোট’ তৈরি করেছে। ওই জোটের নামে তারা গোপন বৈঠকে বসে বাবা-মাকে কীভাবে দ্বিতীয় সন্তান নেয়া থেকে বিরত রাখা যায় সেই পরিকল্পনা করে। চীনের গণমাধ্যমে এমন একটি ঘটনার কথাও বলা হয়েছে, যেখানে বাচ্চা ছেলে ক্রমাগত বদমেজাজি আর বিশৃঙ্খলা করে তার মাকে গর্ভপাত করাতে বাধ্য করেছে।

গত ১ জানুয়ারি থেকে চীনে পরিপূর্ণভাবে বাতিল হয়েছে ৩ যুগ পুরোনো এক সন্তান নীতি। এর আগে তিন বছর ধরে জনগণকে বিভিন্ন প্রচারণার মাধ্যমে এতে অভ্যস্ত করানো হয়েছে।


শিশুর সংখ্য কম হওয়ায় দেশটিতে বয়স্ক জনগণের সংখ্যা বেড়ে গেছে। এই ‘বয়স্ক’ সমস্যা নিয়ন্ত্রণে আনতে এক সন্তান প্রথা বাদ দেয়া হয়েছে। তবে শত প্রচারণাও একমাত্র সন্তান হিসেবে আদরযত্ন পাওয়া ছেলেমেয়েগুলোর মন গলাতে পারেনি। পরিস্থিতি এখন এমন যে, কিছু কিছু পরিবারে বাবা-মা অবাধ্য সন্তানকে ভয় দেখান, যদি তারা ভদ্র হয়ে না চলে তবে তার জন্য নতুন ভাই বা বোন নিয়ে আসা হবে!

সামাজিক মাধ্যমে এ বিষয়ে একটি আলোচনামূলক পোস্টে ওয়্যাং ডংহুই লিখেছেন, এভাবে মজা করে দ্বিতীয় সন্তানের ব্যাপারটাকে শিশুদের কাছে একটি খারাপ বিষয় হিসেবে উপস্থাপন না করে বরং বোঝাতে হবে ছোট ভাই বা বোন একজন সঙ্গী, একজন বন্ধু এবং বিষয়টা খুব খুশির। ভাইবোন পাওয়াকে শাস্তি নয়, উপহার হিসেবে তুলে ধরতে হবে শিশুদের কাছে, এমনটাই পরামর্শ বিশেষজ্ঞদের।