logo

উন্নয়ন দেখলে বিএনপির গাত্রদাহ হয়

উন্নয়ন দেখলে বিএনপির গাত্রদাহ হয়

ঢাকা, ০৬ জানুয়ারি- বাংলাদেশের উন্নয়ন দেখে বিএনপির গাত্রদাহ হয় বলে মন্তব্য করেছেন প্রধানমন্ত্রীর রাজনৈতিক উপদেষ্টা এইচটি ইমাম।

বুধবার দুপুরে রাজধানীর শিল্পকলা একাডেমিতে এক আলোচনা সভায় এইচটি ইমাম বলেন, ‘এদেশের মানুষ এগিয়ে যাবে, ভালোভাবে থাকবে, ভালো পোশাক পরবে, শিক্ষায়-চিকিৎসায় উন্নতি করবে কিন্তু  এসব দেখে বিএনপির গাত্রদাহ হয়।’

‘৫ জানুয়ারি কী কারণে বিএনপি পৈশাচিক নৃত্যে মেতেছিলেন। এ ধরনের বর্বরাচিত পৈশাচিক আচরণ তারা সাধারণ মানুষের ওপর করতে পারেন না। কাজেই ধরে নিতে হবে, তাদের আক্রমনটি জনগণের বিরুদ্ধে, গণতন্ত্রের বিরুদ্ধে।’

তিনি বলেন, ‘বিএনপি চায়- ‘এদেশকে যেভাবেই হোক ধ্বংস করতে হবে। একাত্তরে যেভাবে পাকিস্তানি হানাদাররা নিরস্ত্র বাঙালির ওপর ঝাঁপিয়ে পড়েছিলো, ঠিক একই কায়দায় ২০১৫ সালে তার পুনরাবৃত্তি করেছিলো বিএনপি।’ 

বিএনপি দেশের সব নারকীয় ঘটনা পিছনে আছে উল্লেখ করে প্রধানমন্ত্রীর রাজনৈতিক উপদেষ্ট বলেন, ‘একাত্তর, পঁচাত্তর এবং তার পরবর্তীতে যত সব নারকীয় ঘটনা ঘটেছে- এমনকি ২০০১-০৬, ২১ আগস্ট গ্রেনেড হামলা, সারাদেশে একযোগে সিরিজ বোমা হামলা সবগুলো একই ধারাবাহিকতা চলে এসেছে। ২০১৫ সালের ৫ জানুয়ারি থেকে বিএনপি এর চরম পরিণতি ঘটিয়েছে।’

তিনি বলেন, ‘আমরা বলবো, সারা দুনিয়া বলবে, এই সময় আওয়ামী লীগের নেতৃত্বে বাংলাদেশ রুখে দাঁড়িয়েছে। দেশের জনগণ তাদের (বিএনপি) প্রতিরোধ করেছে। সেই প্রতিরোধের ফলেই ৯০ দিনের আন্দোলন শেষে বেগম জিয়া বাধ্য হয়ে সুড়সুড় করে বাসায় ফিরে গেছেন।’

এইচটি ইমাম বলেন, ‘বিএনপি গণতন্ত্র হত্যা দিবস বললেও ৫ জানুয়ারি নির্বাচনের মাধ্যমে গণতন্ত্র রক্ষা পেয়েছে। গণতান্ত্রিকভভাবেই দেশ এখন এগিয়ে যাচ্ছে। ২০১৫ সালের ৫ জানুয়ারির পর বিএনপি-জামায়াত দেশজুড়ে পৈশাচিক নির্যাতন শুরু করে। যার বলি হয়েছে নিরীহ জনসাধারণ। তাদের কাছে দেশ নয়, ক্ষমতাই আসল। যার জন্য তারা নিরীহ মানুষকে পুড়িয়ে মারতেও দ্বিধা করে না। পৌর নির্বাচনসহ স্থানীয় নির্বাচনে বিএনপির প্রার্থী অংশ নিয়ে জয়লাভও করেছে, তবুও তারা বলছে কারচুপির কথা। যদি তাই হয় তাহলে আপনাদের প্রার্থী জয়লাভ করলো কীভাবে?’

সাবেক পররাষ্ট্র মন্ত্রী দীপু মনি বলেন, ‘খালেদা জিয়া আমেরিকার একটি পত্রিকায় এক নিবন্ধে  বাংলাদেশকে বাণিজ্যিক সুবিধা বন্ধের জন্য বলেছেন। তার কাছে ক্ষমতাই আসল। দেশের স্বার্থের মূল্য নেই।’

আলোচনা সভা সঞ্চালনা করেন প্রচার ও প্রকাশনা বিষয়ক সম্পাদক হাছান মাহমুদ।