logo

সৌদিতে ভুল চিকিৎসায় শিশুর মৃত্যু

সৌদিতে ভুল চিকিৎসায় শিশুর মৃত্যু

রিয়াদ, ০৬ জানুয়ারি- সৌদিতে ভুল চিকিৎসার কারণে আট মাস বয়সী এক শিশুর মৃত্যু হয়েছে। বুধবার স্থানীয় সৌদি গ্যাজেট এ তথ্য প্রকাশ করেছে। শিশুটিকে অসুস্থ অবস্থায় এ্যাম্বুলেন্সে করে শিশু হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়েছিল। সেখানেই তার মৃত্যু হয়েছে।

শিশুটির বাবা আওন আল-সায়রি জানিয়েছেন, তার আট মাস বয়সী মেয়ে আরিয়ামের শ্বাসপ্রশ্বাসে সমস্যা হচ্ছিল। তিনি বলেন, ‘আমি তাকে প্রথমে শারোরাহ পাবলিক হাসপাতালে নিয়ে গিয়েছিলাম। সেখানকার ডাক্তার তার অবস্থা পরীক্ষা করে তার জন্য একটি ড্রপ দিয়েছিলেন। পরে আমি আমার মেয়েকে নিয়ে বাড়িতে ফিরে আসি।’

কিন্তু বাসায় ফেরার পর তার অবস্থা আরো খারাপ হতে থাকায় সায়রি তার মেয়েকে নিয়ে পরদিন সকালেই আবার হাসপাতালে যান। তিনি বলেন, ‘সেখানে ডাক্তাররা বললেন আমার মেয়ের হৃদপিণ্ড ফুলে গেছে। তারা আমাকে জানালেন হৃদরোগের ডাক্তার না আসা পর্যন্ত আমাদেরকে কয়েক ঘণ্টা অপেক্ষা করতে হবে। কিন্তু ততক্ষণে আমার মেয়ের অবস্থা আরো খারাপ হচ্ছিল।’

তিনি আরো বলেন, ‘চিকিৎসকরা যখন আমার মেয়েকে চিকিৎসার জন্য প্রস্তুত করছিলো তখন আমার মেয়ে নিঃশ্বাস নিচ্ছিল না। সে যেন শ্বাস নিতে পারে এজন্য তারা চেষ্টা করে যাচ্ছিলেন। পরে তারা আমাকে বললেন আমার মেয়েকে জরুরি ভিত্তিতে নাজরান হাসপাতালে নিয়ে যাওয়ার জন্য। চিকিৎসকরা জানতেন আমার মেয়ের ফুসফুসে দুধ আটকে গিয়েছিল। আর একারণেই তার শ্বাসপ্রশ্বাসে সমস্যা হচ্ছিল।’

তিনি আরো জানিয়েছেন, ওই হাসপাতালের চিকিৎসকরা একটি এ্যাম্বুলেন্সের ব্যবস্থা করেছিলেন। কিন্তু তিনি অনেক অনুরোধ করার পরেও কোনো চিকিৎসককে তিনি সঙ্গে করে নিয়ে যেতে পারেন নি।

এরপর তারা খাব্বাস পাবলিক হাসপাতালে পৌঁছালেন। কিন্তু সেখানে চিকিৎসকরা তার মেয়ের চিকিৎসা করাতে অপারগতা জানালেন কারণ শিশুটি অনেক আগেই মারা গেছে। তারা পরে শিশুটির মৃতদেহ তাদের হাসপাতালের মর্গে রাখলেন। তারা আল সায়রিকে জানিয়েছিলেন, তার মেয়ে চিকিৎসকের ভুল চিকিৎসার কারণে মারা গেছে।

চিকিৎসকদের ওই কথায় খুব হতাশ হয়েছিলেন তিনি। এ সম্পর্কে তিনি বলেন, ‘চিকিৎসকদের এই কথা আমার জন্য মোটেও ভালো ছিল না। আমি আমার সন্তানকে হারিয়েছি। এজন্য ওই চিকিৎসকদের বিরুদ্ধে আমি অভিযোগ দায়ের করেছি।’ তাদের সবাইকে এর জন্য বিচারের মুখোমুখি হতে হবে বলেও জানিয়েছেন তিনি।