logo

চিপস খাওয়ানোর কথা বলে রবিউলের হাত কেটে নিয়েছিল সৎ বাবা

চিপস খাওয়ানোর কথা বলে রবিউলের হাত কেটে নিয়েছিল সৎ বাবা

ঢাকা, ০৪ জানুয়ারি- ছয় বছরের শিশু রবিউল ইসলাম ওরফে শান্তকে চিপস খাওয়ানোর কথা বলে তেজগাঁওয়ের জঙ্গলে নিয়ে তার দু’হাত কেটে ফেলার কথা ট্রাইব্যুনালকে জানিয়েছে হতভাগ্য ওই শিশু। সোমবার ঢাকার ২ নম্বর দ্রুত বিচার ট্রাইব্যুনালে শিশু রবিউল তার দুহাত কাটা মামলার আসামি সৎ বাবার বিরুদ্ধে সাক্ষ্য দিতে গিয়ে এ কথা জানায়।

ওই ট্রাইব্যুনালের বিচারক শফিউল আজম শিশুটির জবানবন্দি রেকর্ড করে পরবর্তী সাক্ষ্য গ্রহণের জন্য আগামী ১৮ জানুয়ারি তারিখ ধার্য করেছেন আদালত। জবানবন্দিতে শিশু রবিউল ট্রাইবুনালে বলেছে, তার সৎ বাবা তাকে চিপস খাওয়ানোর কথা বলে তেজগাঁওয়ের একটি জঙ্গলে নিয়ে যায়। সেখানে তার বাবা আরও কয়েকজনের সহযোগিতায় তার দুহাত কেটে ফেলে। 

মামলার অভিযোগে জানা যায়, ২০১৩ সালের ১১ ফেব্রুয়ারি শিশু রবিউলকে চিপস খাওয়ানোর কথা বলে তার সৎ বাবা জাহাঙ্গীর তেজগাঁও এলাকার একটি জঙ্গলে নিয়ে যায়। এরপর তার বাবাসহ কয়েকজন মিলে শিশুটির হাত-পা বেঁধে ধারালো দা দিয়ে শিশুটির দুহাত কেটে ফেলে। এ ঘটনাটি দেশের প্রায় সব গণমাধ্যমে প্রচারিত হয়। এরপর শিশু রবিউলের মা নাসিমা আকতার বাদি হয়ে তার স্বামীসহ অজ্ঞাত কয়েকজনের বিরুদ্ধে বনানী থানায় মামলা করেন।

মামলার তদন্ত শেষে বনানী থানা পুলিশ ওই বছরের (২০১৩) ১৭ সেপ্টেম্বর শিশুটির সৎ বাবা জাহাঙ্গীর ও তার সহযোগী আসলাম সরকারের বিরুদ্ধে আদালতে চার্জশিট দাখিল করে।

এ মামলার ১২ জন সাক্ষীর মধ্যে এ পর্যন্ত দুজনের সাক্ষ্য নেয়া শেষ হয়েছে। মামলার চার্জশিটভূক্ত আসামি জাহাঙ্গীর হোসেন ও আসলাম সরকার বর্তমানে জেলহাজতে রয়েছে। বাংলাদেশ মহিলা আইনজীবী সমিতি শিশু রবিউলকে আইনগত সহযোগিতা দিচ্ছে।