logo

আতঙ্কে ৪ তলা থেকে লাফ দিয়েছেন ঢাবি শিক্ষার্থী!

আতঙ্কে ৪ তলা থেকে লাফ দিয়েছেন ঢাবি শিক্ষার্থী!

ঢাকা, ০৪ জানুয়ারি- সোমবার ভোরে ভূমিকম্পে একযোগে কেঁপে উঠেছে বাংলাদেশ, ভারত, মিয়ানমার ও  ভুটান। এ ভূমিকম্পে বাংলাদেশে এ পর্যন্ত একজনের মৃতের খবর পাওয়া গেছে। তবে এতে আতঙ্কে হুড়োহুড়ি করতে গিয়ে আহত হয়েছেন আরো প্রায় অর্ধ শতাধিক। এর মধ্যে শুধু ঢাকা মেডিকেল কলেজ (ঢামেক) হাসপাতালেই ভর্তি হয়েছেন ৪০।

সোমবার সকাল ৮টা পর্যন্ত ঢাকা মেডিকেল কলেজ (ঢামেক) হাসপাতাল সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে। 

সূত্রটি জানায়, আহতদের মধ্যে অন্তত ১৮ জন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক-শিক্ষার্থী। এরমধ্যে বেশিরভাগই হুড়োহুড়ি করে নামতে গিয়ে এবং ভবন থেকে লাফিয়ে আহত হয়েছেন। ঢাবির জহুরুল হক হলের চতুর্থ তলা থেকে লাফিয়ে গুরুতর আহত ইকবাল নামের এক শিক্ষার্থী গুরুতর আহত হওয়ার খবর পাওয়া গেছে।

এদিকে, ভূমিকম্পে আতঙ্কিত হয়ে অসুস্থ হয়ে রাজধানীর জুরাইনে আতিকুর রহমান (২৫) নামে এক যুবক নিহত হয়েছেন। আতিকুর রহমান ঢাকা ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটির ম্যানেজমেন্টের শেষবর্ষের শিক্ষার্থী। তিনি কুষ্টিয়ার মিরপুরের মঈনুদ্দিনের ছেলে। থাকতেন রাজধানীর জুরাইনের একটি মেস বাসায়।

এছাড়াও স্যার সলিমুল্লাহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল, শহীদ সোহরাওয়ার্দী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালসহ বিভিন্ন হাসপাতালে অনেকে চিকিৎসা নিচ্ছেন বলে খবর পাওয়া গেছে। তবে ভূমিকম্পে রাজধানীর কোথাও কোনো ভবনের বড় ধরনের ক্ষয়ক্ষতি বা ফাঁটল দেখা যায়নি।

আবহাওয়া অধিদপ্তরের উপ-পরিচালক (জলবায়ু) আব্দুর রহমান বলেন, ‘ভারতের মণিপুরে এ ভূমিকম্পের উৎপত্তিস্থল। আর রিখটার স্কেলে এর মাত্রা ছিল ৬ দশমিক ৭।’ 

তবে মার্কিন ভূতাত্ত্বিক জরিপ সংস্থা (ইউএসজিএস) জানায়, ভূমিকম্পের মাত্র ছিল ৬ দশমিক ৮। এর উৎপত্তিস্থল ছিল ভারত-মিয়ানমারের সীমান্ত জেলা মণিপুরের ইম্ফলে। ঢাকা থেকে এর দূরত্ব ছিল ৩৫১ কিলোমিটার উত্তর-পশ্চিমে। 

প্রাথমিক খবরে ভূমিকম্পের সময় ইম্ফলে একজনের নিহত হওয়ার খবর পাওয়া গেছে। আহত হয়েছেন আরো ৫০ জনের বেশি মানুষ। ধসে যাওয়া ভবনের ধ্বংসস্তূপে পড়ে এই হতাহতের ঘটনা ঘটে বলে জানা গেছে। এছাড়া ইম্ফলের একটি জনপ্রিয় মার্কেটসহ বেশ কিছু ভবনের ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে বলেও ভারতীয় গণমাধ্যমগুলো জানিয়েছে। ভূমিকম্পের পর সেখানকার বেশ কিছু এলাকায় বিদ্যুৎ সংযোগ বিচ্ছিন্ন রয়েছে।