logo

চিবুকের বাড়তি মেদ কমান ঘরোয়া উপায়ে

সাবেরা খাতুন


চিবুকের বাড়তি মেদ কমান ঘরোয়া উপায়ে

যদি আপনার চোয়ালের বাড়তি মাংসের জন্য আপনি হতাশায় ভোগেন তাহলে আপনি একা নন। অনেক নারী ও পুরুষ এই সমস্যাটিতে ভুগছেন। গ্রীবা বা চিবুকে ফ্যাট জমলে দেখতে ভালো দেখায় না। একে ডাবল চিন বা টার্কি নেক ও বলে। সাধারণত ওজন বৃদ্ধি, তুলতুলে মাংসপেশি এবং বয়স বৃদ্ধি পেলে ডাবল চিন হয়ে থাকে। অনেকেই এই সমসাটির সমাধানের জন্য প্লাস্টিক সার্জারি ও বোটক্স করে থাকেন। যদিও এইভাবে খুব তাড়াতাড়ি ফল পাওয়া যায় কিন্তু এই প্রক্রিয়াগুলো ব্যয় বহুল ও বেদনাদায়ক এবং দীর্ঘস্থায়ী ফলাফলের জন্য নিয়মিত ফলো আপে থাকতে হয়। কিন্তু বিকল্প ও সহজ উপায় হচ্ছে কিছু ফেসিয়াল এক্সারসাইজ। অনুরুপভাবে প্রচুর পানি পান করার সাথে সুস্থ ও সুষম খাদ্য গ্রহণের মাধ্যমে চিবুকের অতিরিক্ত মাংস কমানো কমানো সম্ভব। ডাবল চিন প্রতিরোধের জন্য এবং চোয়াল দৃঢ় ও নিখুঁত করার জন্য কিছু ঘরোয়া টিপস আছে যা আজ আমরা জেনে নিব।

১। ক্যালরি গ্রহণ কমান
মুখের আকার ও গঠনের ক্ষেত্রে জিনগত বৈশিষ্ট্য অনেক গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে। দৃঢ় ও নিখুঁত চোয়ালের জন্য ওজন নিয়ন্ত্রণে রাখুন।

২। চিবানোর অভ্যাস করুন
চিবালে গাল দৃঢ় হয় এবং চিবুকের মাংসপেশীর শক্তি বৃদ্ধি করে। চিবিয়ে খেলে পরিপাক ভালো হয়। প্রতিদিন ১টা করে চুইংগাম খেতে পারেন।  

৩। মুখের ব্যায়াম করুন
গ্রীবার ফ্যাট কমানোর জন্য প্রচুর ব্যায়াম আছে যেমন-

ক। এই ব্যায়ামটি করার জন্য আয়নার সামনে বসুন ও মুখ বন্ধ করুন। তারপর দৃঢ় দাঁতে দাঁত চেপে রাখুন এবং মুখ ভর্তি করে বাতাস নিন। তারপর মুখের বাতাস এক গাল থেকে আরেক গালে নিন। এর ফলে আপনার চোয়ালের উপর টান পড়বে।

খ। একটি চেয়ারে বসুন এবং আপনার মাথাটি যতটুকু সম্ভব নীচের দিকে ঝোঁকান। এই ব্যায়ামটি আপনার গ্রীবার মাংসপেশীতে টান সৃষ্টি করবে এবং চোয়ালকে নিখুঁত করবে।

গ। এই ব্যায়ামটি করার শুরুতে আপনার মুখে পানি ছিটিয়ে নিন। তারপর আপনার নীচের ঠোঁটটি এমন ভাবে বাহির করুন যাতে চিবুকে ভাঁজ পড়ে। এইভাবে কয়েক সেকেন্ড থাকার পরে আপনার চিবুক আস্তে আস্তে বুকের সাথে লাগান। এইভাবে কয়েক সেকেন্ড থাকার পর রিল্যাক্স করুন।

ঘ। এই ব্যায়ামটি করার জন্য দাঁতে দাঁত চেপে ধরুন তারপর যত বড় করে সম্ভব হাসুন। কয়েক সেকেন্ড এভাবেই থাকুন। তারপর স্বাভাবিক অবস্থায় ফিরে যান এবং কিছুক্ষণ রিল্যাক্স করুন। এভাবে ৯ বার করুন। দিনে ১০ বার এই ব্যায়ামটি করুন। এই ব্যায়ামটি করার সময় আপনি আপনার ঘরে একা একা করুন।     

৪। প্রচুর পানি পান করুন
পানি ত্বককে আর্দ্র রাখে। এছাড়াও বয়সের সাথে সাথে ত্বক ঝুলে যাওয়া রোধ করে। তাই দিনে অন্তত ৩ লিটার পানি পান করুন।

৫। বালিশ ছাড়া ঘুমান
উঁচু বালিশে ঘুমালে ঘাড়ে ও স্পাইনাল কর্ডে প্রভাব পড়ে। তাই নিচু বালিশে ঘুমান এবং সম্ভব হলে বালিশ ছাড়া ঘুমানোর চেষ্টা করুন।

এই নিয়মগুলো নিয়মিত অনুসরণ করলে আপনার ডাবল চিনের সমস্যা দূর হবে আশা করা যায়। তবে রাতারাতি ফল আশা করা ঠিক নয়। ধৈর্য ধরে নিয়মগুলো পালন করতে হবে, তবেই আপনি আপনার কাঙ্ক্ষিত ফল লাভ করতে পারবেন।