logo

৫ জানুয়ারি ঘিরে আবার উত্তেজনা

৫ জানুয়ারি ঘিরে আবার উত্তেজনা

ঢাকা, ০২ জানুয়ারী- ৫ জানুয়ারি ঘিরে আবার উত্তেজনা ছড়াচ্ছে রাজধানীতে।  সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে বিএনপির সমাবেশ ডাকার পরদিন আজ শনিবার আওয়ামী লীগ জানিয়েছে তারাও সেদিন কর্মসূচি পালন করবে। এর মধ্যে সমাবেশের বিষয়টিও রয়েছে।

দলের একটি সূত্র জানায়, সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে সমাবেশ ডাকতে পারে আওয়ামী লীগ।

তবে আওয়ামী লীগের দপ্তর সম্পাদক ও প্রধানমন্ত্রীর বিশেষ সহকারী ড.  আবদুস সোবহান গোলাপ বলেন, “আমরা ৫ জানুয়ারি বিজয় মিছিল ও সমাবেশ করব।” তবে এসব কর্মসূচি কোথায় হবে এ ব্যাপারে কিছু বলতে রাজি হননি তিনি।

৫ জানুয়ারিকে ক্ষমতাসীন দল আওয়ামী লীগ ‘গণতন্ত্র রক্ষা দিবস’ এবং বিরোধী রাজনৈতিক দল বিএনপি ‘গণতন্ত্র হত্যা দিবস’ হিসেবে পালনের প্রস্তুতি নিচ্ছে।

বিএনপির ভারপ্রাপ্ত মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর জানান, ৫ জানুয়ারি ‘গণতন্ত্র হত্যা দিবস’ পালনের অংশ হিসেবে  তারা  সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে জনসভার কর্মসূচি নিয়েছেন। জনসভার জন্য অনুমতি চেয়ে ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশ কর্তৃপক্ষের কাছে চিঠি দিয়েছেন তারা। তবে এখনো সমাবেশের অনুমতি মেলেনি তাদের।

এদিকে শনিবার দুপুরে আওয়ামী লীগের সভাপতির ধানমন্ডির রাজনৈতিক কার্যালয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে দলটির প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক ড. হাছান মাহমুদ জানান, ‘গণতন্ত্র রক্ষা দিবস’ পালনের অংশ হিসেবে আওয়ামী লীগ দলীয়ভাবে কর্মসূচি পালন করবে। সুনির্দিষ্ট কর্মসূচির কথা না জানালেও দু-এক দিনের মধ্যেই তা জানিয়ে দেয়া হবে বলে জানান তিনি।

আওয়ামী লীগের একটি সূত্র নাম প্রকাশ না করার শর্তে জানান, আওয়ামী লীগ ৫ জানুয়ারি সোহরাওয়ার্দী উদ্যানেই সমাবেশ ডাকতে পারে।

তত্ত্বাবধায়ক সরকারের অধীনে নির্বাচনের দাবিতে বিএনপির নেতৃত্বাধীন ২০ দলের আন্দোলনের মধ্যেই ২০১৪ সালের ৫ জানুয়ারি অনুষ্ঠিত নির্বাচনে আওয়ামী লীগের নেতৃত্বাধীন মহাজোট সরকার দ্বিতীয় মেয়াদে ক্ষমতায় আসে।

ওই নির্বাচনের এক বছর পূর্তির দিন গত বছর ৫ জানুয়ারি ঘিরে ঢাকায় তীব্র রাজনৈতিক উত্তেজনা তৈরি হয়। সেদিন সরকার বিএনপিকে জনসভার অনুমতি না দেয়ায় দলটি টানা অবরোধ কর্মসূচির ডাক দেয়। প্রায় তিন মাস ধরে সারা দেশে চলে সহিংসতা। এই অবরোধ কর্মসূচির সময় পেট্রলবোমায় পুড়ে মারা যায় বহু মানুষ।

এই সময়ে বিএনপির চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া ‘গৃহবন্দী’ হয়ে ছিলেন। সারা দেশে বিএনপির শত শত নেতা-কর্মীকে গ্রেফতার করা হয়। পরে হামলা-মামলা-গ্রেপ্তারে সারা বছরই কোণঠাসা হযে থাকে বিএনপি, যার জের এখনো চলছে।

সর্বশেষ পৌরসভা নির্বাচনে বিএনপির অংশগ্রহণের মধ্য দিয়ে রাজনীতির গুমোট অবস্থা কাটছে বলে যখন মনে হচ্ছিল, তখন আবার ৫ জানুয়ারি ঘিরে দুই প্রধান দলের  বাহাস ও কর্মসূচি উত্তেজনার পারদে তাপ দিচ্ছে।