logo

দুপুরে দেশে এসে রাতেই গলা কাটলেন পপি!

খায়রুল ইসলাম রাজিব


দুপুরে দেশে এসে রাতেই গলা কাটলেন পপি!

চট্টগ্রাম, ১৭ আগস্ট- চট্টগ্রাম মহানগরীর ফয়সলেকে লেকভিউ আবাসিক হোটেলে স্বামী মাঈনুদ্দিন ওরফে শাহরিয়ার শুভ (২৯) কে গলা কেটে হত্যা করেছে চীন ফেরত চিকিৎসক স্ত্রী রোকসানা আক্তার পপি। বৃহস্পতিবার মধ্যরাতের এই ঘটনায় খুলশী থানা পুলিশের হাতে আটক হয়েছেন পপি। আটক পপি মিরসরাই উপজেলার বারৈয়ারহাট পৌরসভার মেহেদীনগর এলাকার আবু আহম্মদের মেয়ে। চীনের একটি মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের ইন্টার্ন চিকিৎসক তিনি।

গতকাল বৃহস্পতিবার মধ্যরাতে খুলশী থানা পুলিশ যুবকের লাশ উদ্ধার করেছে। নিহত শাহরিয়ার শুভ ছাগলনাইয়া উপজেলার ৯ নম্বর শুভপুর ইউনিয়ন পরিষদের (ইউপি) ১ নম্বর ওয়ার্ড বালিরচর গ্রামের বাসিন্দা। তাঁর বাবার নাম সিরাজুল ইসলাম। তিনি ছাত্রলীগের রাজনীতির সঙ্গে জড়িত ছিলেন।

নগর পুলিশের সহকারী কমিশনার (বায়েজিদ বোস্তামি জোন) সোহেল রানা গণমাধ্যমকে জানান, ‘পপির সাথে চার বছর আগে মাঈনুদ্দিনের গোপনে বিয়ে হয়। পরে মেয়েটি ডাক্তারি পড়ার জন্য চীনে যায়। জিজ্ঞাসাবাদে পপি জানিয়েছেন, দুই বছর ধরে তাদের সম্পর্ক ভালো যাচ্ছিল না। চীনে যাওয়ার পর থেকে তার নানা অশ্লীল ছবি ফেসবুকে ছড়িয়ে দেন মাঈনুদ্দিন। এর জের ধরে পপি দেশে ফিরে একাই মাঈনুদ্দিনকে জবাই করে হত্যা করেছেন।’

খুলশী থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) নোমান বলেন, ‘মোটেল কর্তৃপক্ষের কাছ থেকে খবর পেয়ে ‘লেক ভিউ মোটেল’-এর দ্বিতীয় তলার ২০৩ নম্বর কক্ষ থেকে এক যুবকের গলাকাটা মরদেহ উদ্ধার করা হয়। নিহতের মাথা শরীর থেকে পুরোপুরি বিচ্ছিন্ন ছিল।’

তিনি আরও বলেন, ‘পরিবার ও মোটেল কর্তৃপক্ষের সঙ্গে কথা বলে নিশ্চিত হয়েছি, গত ১৬ আগস্ট বিকেলে নিহত মাঈনুদ্দিন তার স্ত্রী রোকসানা আক্তার পপিকে নিয়ে মোটেলে ওঠেন। গতকাল মধ্যরাতে মোটেল কর্তৃপক্ষ ওই রুমে কেউ আছে কি না, তা যাচাই করতে গিয়ে মাঈনুদ্দিনের গলাকাটা মরদেহ দেখতে পায়।’

নিহত শুভর বড় ভাই মো. জাফর বলেন, ‘একটি মেয়ের সঙ্গে আমার ভাইয়ের সম্পর্ক ছিল। মেয়েটি গতকাল বিকেলে চীন থেকে দেশে এসেছে এবং আমার ভাই তাকে ঢাকা বিমানবন্দরে রিসিভ করে চট্টগ্রামে নিয়ে আসে। ওই মেয়ে আমার ভাইকে পরিকল্পিতভাবে গলা কেটে হত্যা করেছে। তার শরীর থেকে মাথা বিচ্ছিন্ন করে ফেলা হয়েছে।’

এদিকে নির্ভরযোগ্য একটি সূত্র জানায়, শুভ ও পপির মধ্যে দীর্ঘদিন প্রেমের সম্পর্কের পর তিন-চার বছর আগে তারা গোপনে বিয়ে করেন। পরে পপি চীন চলে যান। চীনে থাকাকালে এর মধ্যে পপি মিরসরাই এলাকায় অপর এক যুবকের সঙ্গে সম্পর্কে জড়িয়ে পড়েন। এ নিয়ে পপির সঙ্গে শাহরিয়ার শুভর বিরোধ শুরু হয়। দুই-তিন দিন আগে শুভ পপির ওই কথিত প্রেমিককে খুঁজতে যান একটি কোচিং সেন্টারে। মূলত শাহরিয়ারের চাপে পপি গতকাল দেশে আসতে বাধ্য হন বলে সূত্র জানায়।

গতকাল দুপুরে পপি ঢাকা আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে পৌঁছালে শাহরিয়ার তাঁর এক বন্ধুকে নিয়ে প্রাইভেটকারযোগে ঢাকায় যান। তখন পপি প্রাইভেটকারে না এসে এবং শুভর বন্ধুর সঙ্গে দেখা করতে অপারগতা প্রকাশ করেন। শুভকে নিয়ে আলাদাভাবে বাসে করে চট্টগ্রাম যান। সরাসরি তারা ফয়’স লেকের লেকসিটির লেকভিউ হোটেলে ওঠেন।

সূত্র: বিডি২৪লাইভ

আর/১৭:১৪/১৭ আগস্ট