Deshe Bideshe

DESHEBIDESHE

Login
ইউনিজয়
ফনেটিক
English
হাস্যরসে ভরপুর লেখা দিতে লগইন/রেজিষ্টার করুন

হাসিখুশি ক্লাব

স্মৃতিশক্তি বাড়ানোর ওষুধ

নাসিরুদ্দিন হোজ্জা একবার স্মৃতিশক্তি বাড়ানোর জন্য এক হেকিমের কাছ থেকে ওষুধ নিয়েছিলেন। কয়েক মাস পর তিনি হেকিমের কাছে গেলেন ওই ওষুধ আনার জন্য। হেকিম : আচ্ছা,…

বউয়ের সঙ্গে কথা হয় না

ছেড়া-ফাটা জিন্স ব্যবসায়ী ফজলু সকালবেলা থানায় হাজির- ডিউটি অফিসার : সকাল সকাল থানায় কেন আসছেন ভাই? ফজলু : আমার বউয়ের বিরুদ্ধে সেফারেশন কেস দেব। গত ৫ বছর ধরে বউয়ের সঙ্গে আমার কোনো কথা হয় না। ডিউটি অফিসার : বাচ্চা-কাচ্চা কয়টা? ফজলু : ২টা ছেলে! বড় ছেলে ৪ আর ছোটটা ২ বছর! ডিউটি অফিসার : কী বলেন! একটু আগেই বললেন, ৫ বছর ধরে কথা হয় না! তাইলে কিভাবে কি ভাই? ফজলু : কী যে বলেন স্যার! বাচ্চা হওয়ার জন্য কি কথা বলতে হয় নাকি! এমএ/ ০৮:২২/ ২১ মে

মেয়ের এতো বড় সর্বনাশ

বাসায় ঢুকেই মৌমিতা বেসিনের সামনে গিয়ে বমি করা শুরু করল। বমি বন্ধ হওয়ার কোনো নামগন্ধ নেই। মৌমিতার মা ছুটে এলেন- মা : কি রে, তোর কী হয়েছে? মৌমিতা : কিছু না। মা : সত্যি করে বল, তোর এই সর্বনাশ কে করেছে? মৌমিতা কিছু না বলে তার সঙ্গে থাকা বন্ধুর দিকে আঙুল দেখাল। এবার ওর মা গিয়ে বন্ধুর গালে কষে এক চড় দিলেন। মা : বজ্জাত ছেলে! অসভ্য! তুই মৌমিতার ফ্রেন্ড হয়ে ওর এতো বড় ক্ষতি করলি? আমি তোকে বিশ্বাস করতাম। বন্ধু : আন্টি, আপনি এসব কী বলছেন? আমি তো কিছুই বুঝতে পারছি না! মা : বেয়াদব! আমার মেয়ের এতো বড় সর্বনাশ করে আবার ন্যাকামো করছিস! মৌমিতা : মা, তুমি ওকে কী বলছো? আমিই তো ওকে বলেছিলাম! মা : কী বলেছিলি? মৌমিতা : ও তো না-ই করেছিল, আমি জেদ করেছিলাম রাস্তার পাশের মামা হালিম খাব। সেটা খেয়েই তো আমার এই অবস্থা! এমএ/ ১০:৩৩/ ২০ মে

আবার ফেল করেছিস?

মুখ ঝামটা মেরে পাপিয়া বেগম তার ছেলে বল্টুকে বললেন- পাপিয়া : নালায়েক! তুই আবার ফেল করেছিস? পাশের বাসার রুমকীকে দেখ, কত্ত ভালো রেজাল্ট করেছে ও! বল্টু : ওকে আর নতুন করে কী দেখব? পরীক্ষার হলে বসে ওকে দেখছিলাম বলেই তো আজ এই দশা! এমএ/ ১০:৩৩/ ১৯ মে

ট্রাম্প ফুল স্পিডে ডিম পারে

শিক্ষক : শাকিল, বল তো আমেরিকার প্রেসিডেন্টের নাম কী? শাকিল : জানি না। শিক্ষক : এবার ফয়েজ বল তো, গাড়ি কীভাবে চালানো উচিত নয়? ফয়েজ : জানি না স্যার। শিক্ষক : এখন সাদিয়া বল তো, মুরগি কী পারে? সাদিয়া : স্যার জানি না। শিক্ষক : গাধার দল। সায়মন : স্যার, আমি জানি। শিক্ষক : বল তো শুনি? সায়মন : ট্রাম্প ফুল স্পিডে ডিম পারে। এমএ/ ১০:২২/ ১৮ মে

লাঞ্চ কি ফেসবুকে করবে? 

এক লোক সকাল সকাল ফেসবুক খুলে বসেছিল। তার এক মহিলা বন্ধু লুচি, আলুরদমের ছবি আপলোড করে লিখলো, ‘এসো, সবাই ব্রেকফাস্ট করি।’  লোকটি কমেন্ট করলো- ‘খুব ভালো টেস্ট ছিল, দারুণ লাগলো।’  লোকটির স্ত্রী এই কমেন্ট দেখে স্বামীকে আর টিফিন দিলো না। চার ঘণ্টা না খেতে দেওয়ার পর স্ত্রী বলল-  স্ত্রী : কই গো, শুনছো?  স্বামী : কী হয়েছে? স্ত্রী : তুমি কি লাঞ্চ ঘরে করবে নাকি ফেসবুকে? এমএ/ ০২:২২/ ১৭ মে

প্রেমিক যখন পাঠাওয়ের চালক

প্রেমিকার বাড়ির সামনে প্রেমিকাকে ড্রপ করার সময় সামনে পড়ল প্রেমিকার বাবা। বাবা জিজ্ঞেস করলেন- বাবা : ছেলেটা কে? প্রেমিকা : আব্বা, উনি পাঠাওয়ের ড্রাইভার। বাবা : ভাড়া কত হইছে? মেয়ে : একশ’ টাকা। বাবা : এই নাও, দিয়ে বিদায় করো। ছেলে : ধন্যবাদ, ফুচকার দোকানে খরচ হওয়া একশ’ টাকা ফেরত দেওয়ার জন্য। এমএ/ ১২:০০/ ১৭ মে

বিয়ে করেননি কেন?

প্রবীণ রাজনীতিবিদের সাক্ষাৎকার নিতে এসে সাংবাদিক জানতে চাইলেন- সাংবাদিক : আচ্ছা, আপনি বিয়ে করেননি কেন? রাজনীতিবিদ : এর পেছনে রয়েছে একটি ঘটনা।  সাংবাদিক : ঘটনাটি একটু বলবেন কি? রাজনীতিবিদ : আজ থেকে বিশ বছর আগে এক অনুষ্ঠানে গিয়েছিলাম। আমার সামনেই বসেছিলেন শাড়ি পরা এক মহিলা। আমি চেয়ার থেকে উঠতে গেলে হঠাৎ তার শাড়ির সঙ্গে পা লেগে যায়। নিচের দিকে তাকিয়েই মহিলা গাধা, উল্লুক, টিকটিকি, হনুমান, মুখপোড়া বলে গালাগালি শুরু করেন। হঠাৎ মুখ তুলে আমাকে সামনে দেখতে পেয়ে বলেন, ‘দুঃখিত, কিছু মনে করবেন না। আমি ভেবেছিলাম, এটা বুঝি আমার স্বামীর কাজ’। এমএ/ ১২:২২/ ১৭ মে

তিন পাগলের পরিকল্পনা

তিন পাগল পাগলাগারদ থেকে পালানোর পরিকল্পনা করছে- ১ম পাগল : পালামু পশ্চিম দিক দিয়া। ওইদিকের দেয়াল যদি বেশি উঁচু হয়, তাইলে একটা মই জোগাড় করতে হইবো। তারপরে মই দিয়া দেয়াল ডিঙ্গায়া পালামু। ২য় পাগল : আর দেয়াল যদি বেশি পুরু হয়, তাইলে শাবল দিয়া গর্ত কইরা পালামু। ৩য় পাগল : তাইলে মনে হয় আমরা আর পালাইতে পারুম না রে। ১ম পাগল : কেন? ৩য় পাগল : পশ্চিম দিকে তো কোনো দেয়ালই নাই, সব খোলা। এমএ/ ১২:৪৪/ ১৬ মে

নখ বড় করার ওষুধ

রোগী : ডাক্তার সাহেব, আমি খুব চুলকানির সমস্যায় ভুগছি। দয়াকরে আমাকে একটা ওষুধ দিন। চিকিৎসক : দোকান থেকে এই ওষুধটা কিনে নিন। রোগী : এতে কি চুলকানি সেরে যাবে? চিকিৎসক : আমি আপনার নখ বড় করার ওষুধ দিয়েছি। যাতে আপনি ভালোভাবে চুলকাতে পারেন। এমএ/ ১১:২২/ ১৫ মে

বুকের ভেতর টিকটিক শব্দ

অপারেশনের রোগীকে কয়েকদিন পরে দেখে- চিকিৎসক : আরে আপনি! কী খবর? এখন কেমন আছেন? কোনো সমস্যা হচ্ছে না তো? রোগী : না, কোনো সমস্যা হচ্ছে না। তবে হয়েছি কী, এখন দম নেওয়ার সময় আর ছাড়ার সময় বুকের ভেতরটায় টিকটিক শব্দ হয়। চিকিৎসক : তাই তো বলি, আমার এতো দামি ব্রান্ডের হাতঘড়িটা কই গেল? এমএ/ ০৩:১১/ ১৪ মে

বিয়ের আগে চুমু খেয়েছিল?

স্বামী : আচ্ছা, বিয়ের আগে তোমাকে কেউ চুমু খেয়েছিল? স্ত্রী : একবার পিকনিকে গিয়েছিলাম। সেখানে আমাকে একা পেয়ে একটা ছেলে ছুরি বের করে বলেছিল, ‘যদি চুমু না খাও, তাহলে খুন করে ফেলবো’। স্বামী : তারপর তুমি চুমু খেতে দিলে? স্ত্রী : দেখতেই পাচ্ছো, আমি এখনও বেঁচে আছি। এমএ/ ১০:০০/ ১৩ মে

 1 2 3 >  শেষ ›
Bangla Newspaper, Bengali News Paper, Bangla News, Bangladesh News, Latest News of Bangladesh, All Bangla News, Bangladesh News 24, Bangladesh Online Newspaper
উপরে